১৭ ডিসেম্বর ২০১৭, রবিবার ১২:০৯:০০ পিএম
সর্বশেষ:

০৬ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৪:০৬:৪৮ পিএম বুধবার     Print this E-mail this

আর কত নিঃস্ব হলে বিধবা ভাতা মিলবে অসহায় তারা ভানু’র

মোল্লা তোফাজ্জল টাঙ্গাইল থেকে
বাংলার চোখ
 আর কত নিঃস্ব হলে বিধবা ভাতা মিলবে অসহায় তারা ভানু’র

টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার গয়হাটা ইউনিয়নের গোপিনাথপুর গ্রামের স্বামী হারা হতদরিদ্র তারা ভানু (৬১) । প্রায় দুই যুগ আগে স্বামী আব্বাস মারা যান। এর পর থেকে জীবনের সাথে প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করে  ৪টি মেয়ে নিয়ে দুর্বিসহ জীবন-যাপন করে চলছেন বিধবা তারা ভানু। এখনো পর্যন্ত সরকারের বয়স্ক ভাতা কিংবা বিধবা ভাতার কোন তালিকায় নাম উঠেনি হতভাগ্য তারা ভানুর।
 বিধবা তারা ভানুর কোন ছেলে সন্তান না থাকায় সংসারে উপার্জনের তিনিই একমাত্র ভরসা। কাজেই অন্যের বাড়ী বাড়ী কাজ করে কোন মতে জীবিকা নির্বাহ করছেন। তিনি কান্না জরিতো কষ্ঠে  এ প্রতিবেদককে জানান, কত বছর আর কত অভাবের কবলে পরলে বয়স্ক ভাতা পাওয়া যাবে  বাবা বলতে পারেন। বহু বার চেয়ারম্যান এবং মেম্বারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি তবুও তাদের মন গলেনি।  জোটেনি বিধবা ভাতার কার্ডও।
২২ বছর আগে মারা যাওয়া আব্বাসের স্ত্রী তারা ভানু সাংবাদিকদের কাছে কষ্টের কথাগুলো বলতে বলতে কেঁদে ফেলেন  । তিনি আরো জানান আমার কোন ছেলে নেই ৪ টি মেয়ে রেখে স্বামী মারা যান। সেই থেকে অতি কষ্টের সাথে সংগ্রাম করে মানুষের দ্বারে দ্বারে হাত পেতে মেয়েদের বিয়ে দিয়েছি। এ বয়সে আর কত কষ্টের ঘানি টানতে হইবে আল্লাহ জানে । তিনি আরও বলেন,আজ আমি নি:স্ব ,আল্লাহ ছাড়া আর কেউ নেই আমার । প্রতিদিন অন্যের কাছ থেকে কুড়িয়ে কুড়িয়ে যা পাই তা নিয়ে অর্ধাহারে অনাহারে চলে তারা ভানুর সংসার ।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,অন্যের জায়গায় একটি ছোট ভাঙ্গা দুই চালা ঘরে কোন রকম বসবাস করে তিনি । তারা ভানুর মত এভাবেই অসহায় জীবন যাপন করে সম্পদ লোভী মানুষের ভিড়ে হাজারো বৃদ্ব । তাকে দেখার  কেউ নেই ,  তাহার সমবয়সী সবাই বয়স্কভাতা কিংবা বিধবা ভাতার র্কাড পেয়েছে। কিন্তু  আমি এমনই হতভাগি এখনো পর্যন্ত আমার কপালে জোটেনি সরকারী কোন প্রকার অনুদান।
এ ব্যাপারে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান আসকরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিধবা তারা ভানু নামের  মহিলার তথ্য তার জানা  আছে। তবে সুযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার  মো.সৌরভ তালুকদার  জানান, এ সংক্রান্ত বরাদ্দ পেলে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের কাছে তালিকা চাওয়া হয়। তাদের তালিকা অনুযায়ী কার্ড ইস্যু করা হয়। এ ক্ষেত্রে বিধবা তারা ভানুর বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখা হবে হবে বলেউ জানান তিনি।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
কার্যালয়
চৌধুরী কমপ্লেক্স, ৫০/এফ, ইনার সার্কুলার (ভিআইপি) রোড, নয়াপল্টন, ঢাকা-১০০০।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-৭১২৬৩৬৯
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2017. All rights reserved by Banglar Chokh
Developed by eMythMakers.com
Close