২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, বৃহস্পতিবার ০৮:৪৩:২৬ এএম
সর্বশেষ:

০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ১২:৩০:৩৬ এএম সোমবার     Print this E-mail this

জামালপুর-১ দেওয়ানগঞ্জ-বকশীগঞ্জ আসন

শক্তিশালী আওয়ামীলীগের প্রতিপক্ষ দুর্বল বিএনপি জাপা

আজিজুর রহমান চৌধুরী,জামালপুর থেকে
বাংলার চোখ
জামালপুর-১ দেওয়ানগঞ্জ-বকশীগঞ্জ আসন শক্তিশালী আওয়ামীলীগের প্রতিপক্ষ দুর্বল বিএনপি জাপা

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য ৬জন প্রার্থীর বিপরীতে বিএনপির ৩জন এবং জাতীয় পাটির ১জন প্রার্থী স্বস্ব দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তির জন্য এলাকায় গনসংযোগ করার পাশাপাশি জেলা ও কেন্দ্রিয় পর্যায়ে তদবির শুরু করেছেন। এ আসনে আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক ভাবে অত্যান্ত শক্তিশালী হলেও বিএনপি এবং জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক কাঠামো অত্যান্ত দুর্বল। এ আসনে সাংগঠনিক ভাবে অত্যান্ত শক্তিশালী আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা তাদের প্রতিপক্ষ বিএনপি এবং জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে আগামী নির্বাচনী লড়াইয়ে বিজয়ী হতে বদ্ধ পরিকর।
আওয়ামীলীগঃ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীরা এ আসনের দুইটি পৌরসভা ও দুটি উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নসহ প্রতিটি ওয়ার্ডেই আওয়ামীলীগসহ সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নিয়মিত কমিটি গঠন করেছেন। এছাড়াও বর্তমান সরকারের নানা সুযোগ সুবিধায় এ আসনে আওয়ামীলীগের তৃণমূল নেতা-কর্মীসহ উপজেলা পর্যায়ের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের মাঝেও চাঙ্গাভাব বিরাজ করছে। এতে এখানে আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক কাঠামো বিগত দিনগুলোর চেয়ে অত্যান্ত শক্তিশালী। তবে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন প্রাপ্তির দৌড়ে নিজেদের অবস্থান সুদৃঢ করতে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য ৬জন প্রার্থী ৬টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। তারা স্বস্ব গ্রুপের নেতা কর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে এলাকায় গণসংযোগের পাশাপাশি জেলা ও কেন্দ্রিয় পর্যায়ে তদবির শুরু করেছেন।
জামালপুর-১ আসনে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থী সাবেক তথ্য ও সংস্কৃতি মন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ এমপি বলেন, দেওয়ানগঞ্জের পোল্লাকান্দি ব্রীজ থেকে সাধুরপাড়া হয়ে বকশীগঞ্জ পর্যন্ত এলাকায় ৩০টি ব্রীজ কালভার্টসহ একটি পাকা রাস্তা নির্মাণ করে দুই উপজেলাবাসীর ৩০ কিলোমিটার ঘুরপথের দুরত্ব কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। বকশীগঞ্জ বাসীর দীর্ঘ দিনের প্রানের দাবী পুরনে বকশীগঞ্জ পৌরসভা প্রতিষ্টা করা হয়েছে। বকশীগঞ্জ পৌরসভার উন্নয়নে ৪০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। বকশীগঞ্জে ৫টি বড় ব্রীজসহ অবকাঠামোগত বহু উন্নয়ন ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বকশীগঞ্জ থেকে জামালপুর জেলা শহরে যাতায়াতের পথ সুগম করতে বকশীগঞ্জ-জামালপুর সড়ক উন্নয়নে ৩৫৬ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প একনেকে পাশ হয়ে বাস্তবায়নের অপেক্ষায় রয়েছে। এতে এক সময়ের বিচ্ছিন্ন প্রায় বকশীগঞ্জ আজ সারা দেশের সাথে সড়ক পথে সংযুক্ত। এছাড়াও দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জের প্রায় সকল গ্রামকে আলোকিত করা হয়েছে বিদ্যুতের আলোয়। এই দুই উপজেলার স্কুল, কলেজ, মাদরাসাসহ গ্রামীন অবকাঠামোর ব্যাপক উন্নয়ন করা হয়েছে যা এখন অনেক উপজেলার কাছে মডেল হিসাবে গন্য হচ্ছে। তাই দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জের সর্বত্রই গ্রামীণ অবকাঠমোর ব্যাপক উন্নয়ন করায় এ আসনের ভোটাররা আবুল কালাম আজাদ এমপিকে আবারও এমপি হিসেবে দেখতে চায় বলেও তিনি দাবী করেছেন।
এ আসনে আওয়ামীলীগের অপর শক্তিশালী সম্ভাব্য এমপি প্রার্থী দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ। তিনি নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন প্রাপ্তির জন্য বর্তমান এমপিকে চ্যালেঞ্জ করে কোমর বেঁধেই মাঠে নেমেছেন। তিনি এলাকায় গণসংযোগের পাশাপাশি জেলা ও কেন্দ্রিয় পর্যায়ে জোর তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন। দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ ছাত্র জীবনে দেওয়ানগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও দেওয়ানগঞ্জ কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি ছিলেন। তিনি দেওয়ানগঞ্জের চুকাইবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান ও দেওয়ানগঞ্জ পৌর সভার মেয়রও নির্বাচিত হয়েছিলেন। বর্তমানে তিনি দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে সততা ও দক্ষতার পরিচয় দিয়ে সুখ্যাতি অর্জন করছেন। দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ দলীয় সর্বস্তরের নেতা কর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার সবকটি ওয়ার্ডেই গনতান্ত্রিকভাবে নিয়মিত কমিটি গঠন করেছেন। তিনি দলের সাংগঠনিক কাঠামো অত্যান্ত শক্তিশালী করে তৃণমুল পর্যায় থেকে শুরু করে উপজেলা ও পৌর আওযামীলীগসহ সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনকে চাঙ্গা করেছেন।
দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, “ছাত্রলীগ থেকে শুরু করে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে দীর্ঘ ৩৬ বছর পার করেছি। আমি সর্বদায় এলকায় অবস্থান করে দলীয় নেতা-কর্মীদের সুখে দু:খে পাশে দাড়িয়েছি। বিগত দেওয়ানগঞ্জ পৌর নির্বাচনে নৌকার প্রতিকের বিজয় নিশ্চিত করতে গিয়ে বর্তমান এমপির ভাতিজা বিদ্রোহী প্রার্থী নুরন্নবী অপুর সমর্থদের আঘাতে আমার সহোদর বড় ভাই হাজি আব্দুস সালামকে হারিয়েছি। এরপরও বঙ্গবন্ধুর আদ্বর্শ বুকে ধারণ করেই শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করতে চাই।
দলীয় সুত্রে জানাগেছে, বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনগুলোতে জামালপুর-১ আসনে নৌকা প্রতিকে বকশীগঞ্জের চেয়ে দ্বিগুন ভোট দিয়েছে দেওয়ানগঞ্জবাসী। সেই হিসাবে এ আসনে দেওয়ানগঞ্জের প্রার্থীকে মনোনয়ন দিলে নৌকার বিজয় সুুনিশ্চিত। এ আসনের বর্তমান এমপি আবুল কালাম আজাদ সরকারী উন্নয়ন বরাদ্দের ক্ষেত্রে সম্প্র্রতি আতœীয়করণ নীতি অবলম্বন করায় এবং বার্ধক্যের কারণে তিনি সম্প্রতি দলীয় নেতা-কর্মী থেকে অনেটাই বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন। অপরদিকে উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ একজন কর্মঠ ও ক্লীন ইমেজের নেতা হিসাবে রাজনীতিতে সক্রিয় থাকায় এ আসনে তারই গ্রহণযোগ্যতা সর্বাধিক বলে গুঞ্জন চলছে।  
অপরদিকে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান প্রকৌশলী ইসতিয়াক হোসেন দিদার, বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ, বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শিল্পপতি আবুল কালাম আজাদ (মেডিসিন আজাদ) ও বকশীগঞ্জের আওয়ামী নেতা শিল্পপতি এমদাদুল হক নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন প্রাপ্তির জন্য এলাকায় গনসংযোগ ও কেন্দ্রিয় পর্যায়ে তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন। তন্মধ্যে বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ নৌকা প্রতিকের জন্য কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন। তিনি বিগত দিনে নিজের টাকায় প্রায় ৩৬ হাজার স্যানেটারী ল্যাট্রিন, ১৪ হাজার টিউবওয়েল ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মাঝে ধানবীজ বিতরণসহ প্রতিটি বাড়ি-বাড়ি দু’টি করে গাছ লাগিয়ে ব্যাপক প্রশংসা অর্জন করেছেন।
এ আসনে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থী ফারুক আজিজ ছাত্র জীবন থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বেড়ে উঠেছেন। ৭১’র মহান মুক্তিযুদ্ধে তার পরিবারের ১২জন সদস্য স্বাধীনতা যুদ্ধে সরাসরি অংশ গ্রহণ করেছেন। তন্মধ্যে যুদ্ধে শহীদ হয়েছেন ৪ জন। তিনি দীর্ঘদিন যাবত দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে গ্রামে গ্রামে ঘুরে নৌকায় ভোট চাওয়ার পাশপাশি শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরছেন। সাধারণ ভোটারদের দাবি আগামি সংসদ নির্বাচনে আ’লীগ থেকে মনোনয়ন দেয়া হলে ফারুক আজিজ বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন।
ফারুক আজিজ বলেন, আমি দেওয়ানগঞ্জের অবহেলতি ডাংধরা, চরআমাখাওয়া, হাতিভাঙ্গা ও পাররামরামপুর ইউনিয়নসহ দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার বিস্তীর্ণ চরাঞ্চলবাসীর ভাগ্যের পরিবর্তনের জন্য আওয়ামীলীগ থেকে এমপি হতে আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন চাইবো। আমি এমপি হলে যমুনা, ব্র্রহ্মপুত্র, দশানি ও জিঞ্জিরাম নদীর ভাঙ্গন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণসহ চরাঞ্চলের রাস্তাঘাটের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটানো হবে। এছাড়াও চরাঞ্চলে একটি নুতন উপজেলা গঠন এবং দেওয়ানগঞ্জ থেকে রৌমারী পর্যন্ত রেল লাইন স্থাপনের চেষ্টা করব।
এ আসনের আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী আওয়ামী নেতা শিল্পপতি এমদাদুল হক জানান, বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে বিপুল ভোট পেয়েও অল্পের জন্য হেরে গেছেন। তাই নিজের জনপ্রিয়তা কাজে লাগাতে আগামী নির্বাচনে  তিনি নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন চাইবেন বলে জানিয়েছেন।
জামালপুর-১ আসনে আওয়ামীলীগের অপর সম্ভাব্য প্রার্থী ব্যারিস্টার সামির সাত্তার। তিনি বর্তমান এমপি আবুল কালাম আজাদ এর ভাতিজা ও সাবেক বানিজ্য মন্ত্রী জাতীয় পার্টির নেতা এম এ সাত্তারের পুত্র। আসন্ন নির্বাচনে বর্তমান এমপি আবুল কালাম আজাদ এর যদি কোন কারনে মনোনয়ন প্রাপ্তিতে সমস্যা হয় সেক্ষেত্রে তিনি তার ভাতিজা ব্যারিস্টার সামির সাত্তারকে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য সুপারিশ করতে পারেন বলে এলাকায় গুঞ্জন চলছে।  এ ক্ষেত্রে নৌকার মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভবনা সামি সাত্তারের অনেকটাই বেশি।
সম্ভাব্য প্রার্থী ব্যারিস্টার সামির সাত্তার বলেন, বর্তমান এমপিসহ আওয়ামীলীগের অনেক শীর্ষ নেতাদের সাথে আমার পারিবারিক সম্পর্ক রয়েছে। এছাড়াও জন্মসুত্রেই রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হওয়ায় দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উপজেলার সর্বত্রই আমার ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে এবং আওয়ামীলীগের অপর সম্ভাব্য প্রার্থী হতে এ দুটি উপজেলার সর্বত্রই দীর্ঘদিন যাবত আমি কাজ করে যাচ্ছি। দল আমাকে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন দিলে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখাতে আমার বিজয় নিশ্চিত করতে প্রানাস্ত চেষ্টা করবো।

বিএনপিঃ এ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য তিনজন প্রার্থীর মধ্যে আলোচনায়র শীর্ষে রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রিয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও দেওযানগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি এম রশিদুজ্জামান মিল¬াত। এছাড়াও এআসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রিয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জামালপুর জেলা মহিলা দলের সভাপতি সাহিদা আক্তার রিতা এবং বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিযার উপদেষ্টা সাবেক আইজিপি আব্দুল কাইয়ুম।
দলীয় সুত্রে জানা গেছে,  দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি এম রশিদুজ্জামান মিল্লাত বিগত চার দলীয় জোট সরকার আমলে এমপি থাকা অবস্থায় ব্রহ্মপুত্র নদের উপর পুল্লাকান্দি সেতু নির্মাণ ও নদী ভাঙ্গন রোধে যমুনার পশ্চিম তীর সংরক্ষণে বাঁধ নির্মাণ করেছেন। এছাড়াও তিনি ওই সময় দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উপজেলার অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যুগান্তকারী উন্নয়ন করাসহ বহু রাস্তাঘাট ও ব্রীজ-কালভার্ট নির্মাণ করে দুটি উপজেলার সড়ক পথের ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন।  এরপরও এম রশিদুজ্জামান মিল্লাত বিগত ওয়ান ইলেভেনের পর দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়ায় ওই সময় আসনটি বিএনপির হাত ছাড়া হয়েছে এবং ভেঙ্গে পড়েছে বিএনপির সাংগঠনিক ঐক্য। এরই মধ্যে এ আসনে বিএনপির রাজনীতিতে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে মাঠে নামেন বিএনপির চেযারপার্সনের উপদেষ্টা সাবেক আইজিপি আব্দুল কাইয়ুম। এনিয়ে সাবেক এমপি এম রশিদুজ্জামান মিল্লাতের  সমর্থকদের সাথে সাবেক আইজিপি আব্দুল কাইয়ুম এর সমর্থকদের মধ্যে শুরু হয় চরম রাজনৈতিক বিরোধ। ওই বিরোধের জের ধরে এ দু’পক্ষের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা বিগত দিনে কয়েকদফা রক্তক্ষয়ী সংর্ঘষেও লিপ্ত হয়েছেন। এছাড়াও ওই দুগ্রুপের বিরোধের জের ধরে আজ থেকে এক বছর আগে বকশীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রৌফ তালুকদার বিএনপি থেকে বহিস্কার হয়েছেন। এরপর থেকেই বকশীগঞ্জে বিএনপির রাজনীতিতে চরম ধস নেমেছে এবং বিএনপির সিংহভাগ নেতাকর্মীরা নিস্ক্রিয় হয়ে পড়েছেন। এছাড়াও বকশীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির প্রায় প্রতিটি স্তরেই পকেট কমিটি বিদ্যমান থাকায় বিএনপির রাজনীতিতে দেখা দিয়েছে চরম সাংগঠনিক দুর্বলতা। তবে দেওয়ানগঞ্জ ্উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি এম রশিদুজ্জামান মিল্লাত সম্প্রতি এলাকায় সংগঠন চাঙ্গা করাসহ বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ শুরু করেছেন। এতে সম্প্রতি দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উভয় উপজেলা বিএনপি নেতা-কর্মীদের মাঝে প্রাণচাঞ্চচল্য ফিরে এসেছে এবং ইতিমধ্যেই বিএনপির অনেক নেতা-কর্মী রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন।
এ আসনে বিএনপির অপর সম্ভাব্য এমপি প্রার্থী বিএনপির কেন্দ্রিয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জামালপুর জেলা মহিলা দলের সভাপতি সাহিদা আক্তার রিতা। তিনি দেওয়ানগঞ্জে একজন ক্লিন ইমেজের জনপ্রিয় নেত্রী হিসেবেই পরিচিত। সাহিদা আক্তার রিতা ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে আওয়ামীলীগের হেভিওয়েট প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ এমপি’র সাথে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে অল্পের জন্য হেরে গেছেন। এরপরও তিনি জেলা মহিলা দলের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি দলের তৃণমূল পর্যায় থেকে শুরু করে জেলা ও কেন্দ্রিয় পর্যায়ে বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রমে সক্রিয় রয়েছেন।
অপরদিকে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী সাবেক আইজিপি আব্দুল কাইয়ুম ধানের শীষ প্রতিকের মনোনয়নের জন্য মাঝে মধ্যে বকশীগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় এসে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানাগেছে। তবে সম্প্রতি তাকে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার কোথাও কোন প্রকার রাজনৈতিক কর্মকান্ড চালাতে দেখা যায়নি।
জাতীয় পার্টিঃ এ আসনে জাতীয় পার্টি (জাপা) এর প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী আব্দুস সাত্তার লাঙ্গল প্রতিকের সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় রয়েছেন বলে জানাগেছে। তিনি বর্তমানেও জামালপুর জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতির দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছেন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
কার্যালয়
চৌধুরী কমপ্লেক্স, ৫০/এফ, ইনার সার্কুলার (ভিআইপি) রোড, নয়াপল্টন, ঢাকা-১০০০।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-৭১২৬৩৬৯
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2018. All rights reserved by Banglar Chokh
Developed by eMythMakers.com
Close