২৪ এপ্রিল ২০১৮, মঙ্গলবার ০১:০৩:২৩ এএম
সর্বশেষ:

১৬ এপ্রিল ২০১৮ ১২:৫৪:২৪ পিএম সোমবার     Print this E-mail this

লামায় মাইকিং করেও কোচিং বানিজ্য বন্ধ হচ্ছেনা

ফরিদ উদ্দিন,লামা প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 লামায় মাইকিং করেও কোচিং বানিজ্য বন্ধ হচ্ছেনা

বান্দবানের লামা উপজেলায় ৭টি ইউনিয়ন আর  ১টি পৌরসভার রয়েছে। লামা বাজারের  আস-পাশে গড়ে ওঠেছে শতাধিক পাইভেট কোচিং সেন্টার রয়েছে বলে জানা গেছে।আর এর নেপখ্য রয়েছে জামায়াত শিবিরের  একটি চক্র জড়িত বলে অভিযোগ ওঠেছে।
সম্প্রতিকারে লামা উপজেলা নিবার্হী অফিসার নুর -এ জান্নাত রুমী লামায় যোগদানের কয়েক দিন পরেই লামা তথ্য অফিসের মাধ্যমে কোচিং বানিজ্য বন্ধ করার জন্য মাইকিং করার পরে ও এ চক্রটি প্রশাসনের নাকের ডগায় এ বানিজ্য চালিয়ে যাচেছ জানা গেছে।
লামার ৭টি ইউনিয়নে রয়েছে শত শত কোচিং সেন্টার আর এ সকল কোচিং সেন্টারে চলছে বিভিন্ন অপরাধমুলক কমর্কান্ডসহ ইয়াবা পাচার ও সেবন বৃদ্ধি পেয়ে কোমলমতি ছাত্র ছাত্রীদের বৃদ্ধি পেয়ে বলে জানা গেছে।
 এদিকে সরকারী ভাবে নিষিদ্ধ থাকলে ও মানছেনা এ সকল শিক্ষকরা। কোন শিক্ষক প্রাইভেট টিউশন ও কোচিং বাণিজ্যের সাথে জড়িত থাকলে ৬ মাসের কারাদন্ড আথবা ২ লাক্ষ টাকা জরিমানা এমন বিধান থাকলেও এ আইন মানছেননা লামার অনেক শিক্ষক। আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রাইভেট টিউশন ও কোচিং বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন উপজেলার প্রতিটি স্কুল, মাদ্রসা,কলেজের কয়েকজন শিক্ষক।
খসড়া শিক্ষা আইনে বলা হয়েছে, কোন শিক্ষক নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে প্রাইভেট পড়াতে এবং কোচিং করাতে পারবেন না। অথচ স্বরজমিনে দেখা যায়,লামা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়,লামা আর্দশ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,ফাজিল মাদ্রাসা,লামা মুখ উচ্চ বিদ্যালয়,লাইনঝিরি দাখিল মাদ্রাসা,গজালিয়া উচ্চ বিদ্যালয়,ইয়াংছা নিম্ম মাধ্যমিক বিদ্যালয়, চাম্বি উচ্চ বিদ্যালয়, ফাসিয়াখালি উচ্চ বিদ্যালয়ের কতিপয় শিক্ষক নিজ প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের কোচিং বা ব্যাচ আকারে শ্রেনী কক্ষে কিংবা ভাড়া করা কক্ষে বা নিজ গৃহে প্রাইভেট পড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
খসড়া শিক্ষা আইনে আরও বলা হয়েছে একজন শিক্ষক পূর্বানুমতি স্বাপেক্ষে অন্য স্কুলের সর্বোচ্চ ১০ জন শিক্ষার্থীকে প্রাইভেট টিউশন করাতে পারবেন। সে ক্ষেত্রেও আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে একএকজন শিক্ষক একটি ব্যাচে ৫০-৬০ জন করে পড়াচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। শিক্ষক মানুষ গড়ার কারিগর। আর সমাজের স্মানিত মানুষেরাই যদি আইন না মানেন তখন সমাজের অন্য শ্রেনীর মানুষেরা কার পদাংক অনুসরন করবেন।
এ ব্যপারে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান ভুঁঞা বলেন, ইতিমধ্যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্টানে মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা পাঠিয়ে দিয়েছি। তারপরও কোন শিক্ষক আইন না মেনে কোচিং বাণিজ্যের সাথে জড়িত থাকলে তাদের নামের তালিকা উর্ধতন কতৃপক্ষের নিকট প্রেরণসহ বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এব্যপারে লামা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সারাবান তহুরা বলেন, কোচিং বানিজ্য বন্ধ করার জন্য আমরা ব্যবস্থা গ্রহন করেছি কিন্তু কতিপয় ব্যক্তিদের জন্য কঠিন হলেও সরকারী বিধিমোতাবেক  কোচিং বানিজ্য সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
বাংলার চোখ মিডিয়া লিমিটেড

চেয়ারম্যানঃ মোঃ আলী আকবর
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাঈম পারভেজ অপু
কার্যালয়
জামান টাওয়ার (৮ম তলা), ৩৭/২ কালভাট রোড, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
সেল : ০১৭১২০৮০৭৭৯ (চেয়ারম্যান), ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬ (নির্বাহী সম্পাদক)
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2018. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close