২৩ মে ২০১৮, বুধবার ০৭:০৫:৫১ এএম
সর্বশেষ:

১৬ মে ২০১৮ ০১:৩৭:০০ পিএম বুধবার     Print this E-mail this

গোপালগঞ্জে খোড়াখুড়ি বন্ধ করে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 গোপালগঞ্জে খোড়াখুড়ি বন্ধ করে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা

সড়ক সংস্কারের নামে গোপালগঞ্জ পৌরবাসী ও ব্যবসায়ীদের যেন ভোগান্তি কমছেই না। রমজানের আগে শহরের ব্যবসায়ীক সড়ক নামে পরিচিত চৌরঙ্গী-বাজার সড়কটি খুঁড়তে গেলে তা বন্ধ করে দেয় ব্যবসায়ীরা। তাদের দাবী ঈদের আগে সড়ক খুঁড়লে বন্ধ হয়ে পড়বে ব্যবসা বাণিজ্য। দীর্ঘ দুই বছর ধরে পৌরসভায় ড্রেনেজ নির্মাণের নাম চলছে সড়ক খোঁড়াখুঁড়ি।

জানাগেছে, গত দুই বছর আগে গোপালগঞ্জ পৌরসভায় এলাকায় ড্রেনেজ নির্মাণের নামে এক সাথে প্রায় ৮০ ভাগ সড়কে খোঁড়াখুঁড়ি করা হয়। এর মধ্যে কিছু সড়ক ঠিক হলেও অন্তত: ৬০ ভাগ সড়কে বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা হয়ে চমর ভোগান্তির সৃষ্টি হয। সেই সাথে ধূলাবালির শহরে পরিনত হয়। দীর্ঘ দিন ধরেও সংস্কার কাজ শেষ করতে পারেনি ঠিকাদাররা। আর এ কারনে প্রতিনিয়ত চরম দূর্ভোগে পড়ছে পৌরবাসী।

এদিকে ঈদের আগে শহরের চৌরঙ্গী থেকে বাজার পর্যন্ত সড়ক উন্নয়নের জন্য সড়কটি খোঁড়ার উদ্যোগ নেয় পৌরকতৃপক্ষ। জেলা শহরের মূল ব্যবসায়ীক এলাকা নামে পরিচিত এ সড়কে রয়েছে কাপড়, জুতা, কসমেটিক্সসহ বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় দোকান।

সোমবার সকালে এ সড়কটি খুঁড়তে গেলে ব্যবসায়ীদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হলে ড্রেনেজ নির্মাণ ও সড়ক সংস্কারের কাজ বন্ধ করে দেন তারা। এসময় খবর পেয়ে গোপালগঞ্জ পৌরসভার মেয়র কাজী লিয়াকত আলী লেকু ও কাউন্সিলর আতিকুর রহমান পিটু ঘটনাস্থলে এসে ব্যবসায়ী নেতাদের সাথে কথা বলেন।

এসময় তারা মেয়রকে বলেন, গত ঈদে সড়ক খুঁড়ে ফেলে রাখার কারনে দিয়ে হয়েছে লোকসান। এবারো যদি রমজানের আগে ও বর্ষা মৌসুমে সড়ক খোঁড়াখুঁড়ি করা হয় তাহলে ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ করে দিতে হবে।

ওই সড়কের গার্মেন্টস্ ব্যবসায়ী, শেখ তরিকুল ইসলাম কামাল বলেন, গত ঈদের আগে বর্ষা মৌসুমে চৌরঙ্গীর একটি সড়ক খুঁড়ে ফেলে রাখা হয়েছিল। বৃষ্টির কারনে জলাবদ্ধতা সৃস্টি হওয়ায় ক্রেতারা এ মুখো হননি। ফলে সেবার লোকসান দিতে হয়েছিল। এ বছরও যদি সড়কটি ভেঙ্গে ফেলা হত তাহলে এবছর ও আমাদের লোকসান গুনতে হত।

ব্যবসায় মো: গিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস বলেন, সড়ক ভাঙ্গার কারনে আর কত লোকসান দিতে হবে আমাদের তা জানা নেই। গত ঈদে লোকসান দিতে হয়েছে এবারো যদি লোকসানের পথে হাটতে হয় তাহলে দোকান বন্ধ রাখা ছাড়া আমাদের আর কোন উপায় নেই। আমরা চাই এই সড়কটি ঈদের পর ভাঙ্গা হোক।

সম্মিলিত ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ফরিদ আহম্মেদ দাঁড়িয়া বলেন, পৌর এলাকায় উন্নয়নের নামে দ্রুত সড়কগুলো খোঁড়াখুড়ি করা হলেও মেরামতের কাজ চলে ঢিলেভাবে। রমজানের আগে চৌরঙ্গী থেকে বাজার পর্যন্ত যে সড়ক রয়েছে তা খোড়াখুড়ি করতে আসে ঠিকাদের লোকজন। এসমসয় ব্যবসায়ীদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হলে আমার কাজটি বন্ধ রাখার অনুরোধ করে ঈদের পর কাজ করার জন্য বলেছি। পৌর মেয়র ঈদের পর সড়কের কাজ করার আশ্বাস দিয়েছেন।

গোপালগঞ্জ পৌরসভার কাউন্সিলর আতিকুর রহমান পিটু বলেন, ব্যবসায়ীদের কথা বিবেচনা করে পৌর মেয়রের সাথে কথা বলে এ সড়কটি কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে। যাতে রামজান ও ঈদের সময় ব্যবসায়ীরা ও ক্রেতারা নির্বিঘ্নে পন্য বিক্রয় ও কিনতে পারেন।

গোপালগঞ্জ পৌরসভার পৌর মেয়র কাজী লিয়াকত আলী লেকু বলেন, ব্যবসায়ীদের বলেছিলাম ১০ রমজানের মধ্যে সড়কটির সকল কাজ শেষ করা হবে। কিন্ত ব্যবসাযীরা সড়কটি খোড়াখুড়ি করতে অনুরোধ করে। রমজান ও ঈদেকে সামনে রেখে ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে এবং ব্যবসায়ীদের দাবীর মুখে কাজ বন্ধ করা হয়েছে। ব্যবসায়ীদের আশ্বস্ত করা হযছে ঈদের পর কাজ করা হবে।

তিনি আরো বলেন, পৌর এলাকায় উন্নয়নমূলক কাজ চলছে। উন্নয়ন করতে গেলে কিছুটা তো ভোগান্তি হবে। সব কিছুই মেনে নিয়ে সকলের সহযোগীতায় উন্নয়নমূলক কাজ শেষ করা হবে।


সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
বাংলার চোখ মিডিয়া লিমিটেড

চেয়ারম্যানঃ মোঃ আলী আকবর
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাঈম পারভেজ অপু
কার্যালয়
জামান টাওয়ার (৮ম তলা), ৩৭/২ কালভাট রোড, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
সেল : ০১৭১২০৮০৭৭৯ (চেয়ারম্যান), ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬ (নির্বাহী সম্পাদক)
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2018. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close