১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার ১১:১৭:১২ এএম
সর্বশেষ:

০৬ ডিসেম্বর ২০১৮ ০২:৩১:৫৯ এএম বৃহস্পতিবার     Print this E-mail this

সাপাহরে আজও দন্ডায়মান বটবৃক্ষ!

মনিরুল ইসলাম,সাপাহার(নওগাঁ)থেকে
বাংলার চোখ
 সাপাহরে আজও দন্ডায়মান বটবৃক্ষ!

 কালের ভ্রুকুটি উপেক্ষা করে প্রায়র্ শত বছর পেরিয়ে আজও দন্ডায়মান হয়ে রয়েছে সাপাহারের বটগাছটি।
এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, সাপাহার উপজেলার অন্তর্গত মানিকুরা গ্রামের রাস্তার পার্শ্বে শিব মন্দিরের উপর জন্ম নেওয়া এই বটগাছটি প্রায় অর্ধশত বছর পেরিয়ে গেছে। প্রায় ৯৫/১০০ বছর আগে সনাতন সম্প্রদায়ের কোন এক ব্যাক্তি রাস্তার পার্শ্বে একটি শিব মন্দির স্থাপন করেন।
মন্দিরের ভিতর নিখুত ভাবে স্থাপন করেন শিবের প্রতিমূর্তি। মন্দিরের উপরদেশে জন্ম নেয় একটি বট গাছের চারা। ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে সেই চারা। পরে সেটি বিশালাকার বটবৃক্ষে পরিনত হয়। প্রতি বছর এই মন্দিরে বট গাছের নিচে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা ভক্তির সাথে পাঁঠা বলীদান করে। তাদের মধ্যে কারও কোন রোগ ব্যধী হলে এই মন্দিরে অবস্থিত শিবের পাদদেশে বিভিন্ন মান্নত করে বলেও জানা গেছে। এছাড়াও প্রতি বছর জৈষ্ঠ মাসে বটগাছটির চতুর্দিকে লাগে মেলা। আর এ মেলাতে হরেক রকমারী দ্রব্যর সমাহার বসে। পুজার সময় যেন বটগাছটিই হয়ে উঠে ধর্মপ্রান হিন্দুদের দেবতা। প্রতি পুজাতে গ্রামের গৃহ বধুরা বটগাছটির নিচে নতজানু হয়ে প্রর্থনা করে তাদের মনস্কামনা।
সবমিলিয়ে এই বটগাছটি যেন সেই আদিম সনাতন সভ্যতার ইতিহাস ও ঐতিহ্যর সারকথা আজও সবার সামনে তুলে ধরে আছে। ভবিষ্যতেও জাগ্রত দেবতা এই বটবৃক্ষটি ঐতিহ্য বহন করবে এমনটাই প্রত্যাশা এলাকার ধর্মপ্রান হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের।


সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2018. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close