২৪ মে ২০১৯, শুক্রবার ০৭:৪৯:০৯ এএম
সর্বশেষ:

১৫ মে ২০১৯ ০৮:৪৫:২০ পিএম বুধবার     Print this E-mail this

মসজিদে বেতন-ভাতা ছাড়েই তারাবির নামাজ পড়াচ্ছেন ১৩শত হাফেজ

ফেনী প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 মসজিদে বেতন-ভাতা ছাড়েই তারাবির নামাজ পড়াচ্ছেন ১৩শত হাফেজ

রমজান মাস উপলক্ষে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ফেনীর ও আশপাশের ৬ শতাধিক মসজিদে কোনো রকম বেতন-ভাতা ছাড়া ফ্রি খতম তারাবির নামাজ পড়াচ্ছেন ফেনীর জামেয়া রশীদিয়া মাদ্রাসার ১৩শত হাফেজ ছাত্র । শনিবার দুপুরে সরেজমিন পরিদর্শনে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সাথে আলাপে এ তথ্য জানা গেছে।

অত্র মাদ্রাসার শিক্ষক আবদুল হাই জানান, লস্করহাট জামেয়া রশিদীয়া মাদ্রাসা ১৯৯৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে ৭ একর এলাকায় অবস্থিত এ মাদ্রাসাটির মোট ছাত্র ৪,৮১৫ জন। ১১৫ জন শিক্ষক, স্টাফ সংখ্যা ১৬ জন, বাবুর্চি ২১ জন, আবাসিক ছাত্র সংখ্যা ৩,৯০০ জন।
প্রতিষ্ঠাতা মুফত্তি শহীদুল্লাহ দা.বা. নিদের্শে হাফেজ ছাত্ররা তাদের প্রশিক্ষণের অংশ হিসেবে খতম তারাবির নামাজ পড়ান। ফেনী, কুমিল্লা, নোয়াখালীও চাঁদপুরে অবস্থিত প্রায় ৬ শতাধিক মসজিদে প্রতি মসজিদে ২ জন করে প্রায় ১৩ শত জন হাফেজ নামাজ পড়ান নির্ভুলভাবে।

মাদ্রাসার শিক্ষক আবদুল হাই আরো জানান, কেউ অর্থের বিনিময় খতম তারাবির নামাজ পড়ালে তারঁ বিরুদ্ধে মাদ্রাসা কোড অনুযায়ী শাস্তির ব্যবস্থা নেয়া হয়। নামাজে উৎসাহ দেয়ার জন্য এ ফ্রি সার্ভিস দেয়া হয়। এছাড়াও আল্লাহর কোরআন পাঠ শুনিয়ে টাকার নেওয়ার বিধান নেই।

কোম্পানীগঞ্জে সওজের ৪ কোটি টাকা প্রকল্পের সড়ক নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ
হাসান ইমাম কোম্পানীগঞ্জ- নোয়াখালী: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের জেলা মহাসড়ক উন্নয়ন প্রকল্পে বাংলাবাজার থেকে ছোটধলী পর্যন্ত ১৫০০ মিটার রাস্তা পাকাকরণ কাজে নিন্মমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে।

কাজে নানা অনিয়ম চললেও কার্যপ্রদানকারী বিভাগ রয়েছে নির্বাক আবার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা নিয়মিত মনিটরিং না করায় কাজ বাস্তবায়নে নিন্মমানের সামগ্রী ব্যবহারে স্থানীয়রা অভিযোগ করলেও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ বলছে, নিয়ম মেনেই কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

আর সংশ্লিষ্ট দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সাফাই গাইছেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষে।

স্থানীয় এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, রাস্তার সিলকোট হয়েছে নিন্মমানের এবং দিচ্ছে কম থিকনেস,ব্যবহৃত হয়েছে নিন্মমানের বিটুমিন। গত ১৩ মে সোমবার দুপুরে সিলকোটের (পিচের) কাজ করার প্রায় ১ঘন্টা পর পাকা সড়কের বিভিন্ন স্থানে হাত দিয়েই সড়কের পিচ উঠায় স্থানীয় এলাকাবাসী। পরে এলাকাবাসীর অভিযোগের মুখে ঠিকাদারের লোকজন পুনরায় পিচ উঠে যাওয়া স্থানে পিচ ঢালাই করে। তবে নিন্মমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারের কারণে সড়কের স্থায়িত্ব নিয়ে বেজায় শঙ্কা থাকছে। এলাকাবাসীর প্রশ্ন, নতুন সড়কের এখনই যদি এ অবস্থা হয় তাহলে সামনের বর্ষায় কি অবস্থা হবে। এতসব অনিয়মের পরও সড়ক ও জনপথ বিভাগের নীরবতায় এলাকাবাসী চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং নিয়মিত তদারকির মাধ্যমে কাজটি বাস্তবায়নের আশা প্রকাশ করেন।

নোয়াখালী সওজ’র কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে জেলা মহাসড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের ১৫০০ মিটার সড়কের এ কার্যাদেশ পায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান রাজু এন্টার প্রাইজ।

মেসার্স রাজু এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মো. ছিদ্দিক উল্যাহ ভুট্রোর মুঠোফোনে যোগাযোগ করে হলে তিনি জানান, তিনি ৮০ ভাগ মানসম্পন্ন কাজ করেছেন। নিন্মমানের সামগ্রী ব্যবহারের বিষয়টি তিনি নাকচ করে দেন।

এ বিষয়ে নোয়াখালী সড়ক ও জনপত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী বিনয় কুমার পাল’র মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ঠিকাদার সড়ক নির্মাণে নিন্মমানের কাজ করলে ছাড় দেওয়া হবে না। আমরা মানসম্পন্ন কাজ বুঝে নেব।

 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close