১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার ০৯:০২:৩১ এএম
সর্বশেষ:

২০ মে ২০১৯ ১২:১৪:২৮ এএম সোমবার     Print this E-mail this

ব্যবহারিক পরীক্ষায় টাকা না দিলে মার্ক কম পাবার হুমকী

নড়াইল প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 ব্যবহারিক পরীক্ষায় টাকা না দিলে মার্ক কম পাবার হুমকী

 চলতি বছরের এইচ এসসি পরীক্ষায় ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে  ব্যবহারিক পরীক্ষায় অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। এ সব ফি না দিলে ব্যবহারিকে মার্ক কম দেবে এমন ভয়ে ছাত্ররা অতিরিক্ত ফি দিয়ে পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করছে। গত ১৬ মে থেকে শুরু হওয়া এসব ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষ হবে ২০মে।


খোজ নিয়ে জানা গেছে,নড়াইল সরকারী মহিলা কলেজে ব্যবহারিক পরীক্ষায় অংশ নেয়া কয়েক’শ ছাত্র-ছাত্রীর কাছ থেকে প্রতিটি ব্যবহারিক বিষয়ের জন্য ৬০ টাকা এবং আইসিটি ব্যবহারিকের জন্য ৫০ টাকা করে নেয়া হচ্ছে। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৮ টি  বিষয়ের জন্য  ৪’শ ৮০ টাকা এবং আইসিটির জন্য ৫০ টাকা সহ মোট ৫’শ৩০ টাকা অতিরিক্ত দেয়া লাগছে একেকজন ছাত্রকে।

এ বছর নড়াইল ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে বিজ্ঞানে ২৬৭,ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ২৯৮ এবং মানবিক বিভাগে ৩৮৮ সহ মোট ৯’শ ৫৩ জন পরীক্ষার্থী সরকারী মহিলা কলেজ কেন্দ্রে ব্যবহারিক পরীক্ষা দিচ্ছে। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৯টি বিষয়ে,বানিজ্য ও মানবিকে ৩ টি করে বিষয়ে ব্যবহারিক পরীক্ষা  দিচ্ছে শিক্ষার্থীরা। এর মধ্যে বিজ্ঞান-বানিজ্য-মানবিক বিভাগ থেকে  দুই লক্ষাধিক টাকা উত্তোলন হবে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সরকারী ভিক্টোরিয়া কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের একজন শিক্ষক বলেন,ভাই এটা অনেক দিন ধরে চলে আসছে, সারাদেশেই এটা হয়ে থাকে। এটা এখন নিয়মে পরিনত হয়েছে ।

সরকারী  ভিক্টোরিয়া কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের তামিমুল ইসলাম  জানান,আমি গত ৩টি পরীক্ষায় কোন টাকা দেই নি। ১৯ মে জীববিজ্ঞান ব্যবহারিক পরীক্ষার আগে আমার কাছ থেকে ৮ টি বিষয়ের জন্য ৪’শ ৮০ টাকা নিয়ে নিয়েছে,টাকা না দিলে মার্ক কমায়ে দেবে এমন ভয়ও দেখিয়েছে কলেজের কর্মচারীরা।

বানিজ্য বিভাগের ছাত্র আরেক অভিযোগকারী মো.তাসিন আহম্মেদ বলেন,আমাদের দুটি বিষয়ের জন্য একটিতে ৬০ টাকা করে আর আইসিটির জন্য ৫০ টাকা করে নেয়া হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক ছাত্র অভিযোগ করে বলেন, এইচ এসসি ফরম ফিলাপের সময় ব্যবহারিকের জন্য টাকা দিয়েছি এখন আবার অতিরিক্ত এই ফি অন্যায়ভাবে নেয়া হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে এটা হয়ে আসছে বলে আমাদের কলেজের শিক্ষকরা বলেন,এটাই নিয়মে পরিনত হয়েছে।
[
সরকারী মহিলা মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মাহবুবুর রহমান অভিযোগ বিষয়ে বলেন,আমাদের কলেজে অতিরিক্ত কিছু লোক কাজ করে,যাদের বেতন আমরা ঠিকমতো  দিতে পারিনা মুলত তাদের জন্যই এই টাকা ব্যয় করা হয়। এর সাথে শিক্ষকদের কোন সংশ্লিষ্টতা নেই তবে এই টাকা ছাত্ররা স্বেচ্ছায় দিয়ে থাকে।

সরকারী ভিক্টোরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো.রবিউল ইসলাম বলেন,অফিসিয়ালি এ ধরনের ফি নেবার কোন সুযোগ নেই,এটা কর্তৃপক্ষ করে ও না,তবে ব্যবহারিকে যে সকল কর্মচারীরা সহায়তা করে মূলতঃ তাদের কে স্বেচ্ছায় ছাত্ররা সহযোগিতা করে থাকে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close