১৭ জুলাই ২০১৯, বুধবার ১০:২৮:৪৬ এএম
সর্বশেষ:

১১ জুলাই ২০১৯ ১১:০৫:২৯ পিএম বৃহস্পতিবার     Print this E-mail this

টানা বর্ষণে নাকাল গলাচিপা পৌরবাসী

গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 টানা বর্ষণে নাকাল গলাচিপা পৌরবাসী

টানা চারদিনের অতিবর্ষণে নাকাল গলাচিপার পৌরবাসী। অপরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা, বিভিন্ন কাঁচা ড্রেনে বাঁধ দিয়ে মাছ শিকারের ফলে জলাবদ্ধতা প্রতি বছরের তুলনায় এ বছর বেশি বলে মনে করছেন পৌরবাসী। এদিকে পৌর মেয়র আহসানুল হক তুহিন জলাবদ্ধ এলাকা ঘুরে দুর্ভোগ লাঘবের চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন। গলাচিপার পৌর এলাকার বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দুর্ভোঘকবলিত মানুষের কাছ থেকে এসব তথ্য জানাগেছে।

গলাচিপা পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৬টি ওয়ার্ডই বেড়িবাঁধের মধ্যে। আর এসব ওয়ার্ডগুলো জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। টানা চার দিনের বর্ষণে এ দুর্ভোগ যেন সাধারণ মানুষকে অতিষ্ঠ করে তুলেছে। গত প্রায় পাঁচ বছর ধরে মাষ্টার ড্রেন করার কাজ চলমান থাকলেও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও প্রকৌশলীদের অসচেতনার কারণে এমন জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে বলে মনে করছেন পৌরবাসী।

গলাচিপা পৌর এলাকার ৫নং ওয়ার্ডের ভিআইপি রোডের বাসিন্দা ইঞ্জিনিয়ার কাউসার নাইম বলেন, ‘যখন ড্রেন করা হয় তখন কোন দিকে পানি আউট হবে তা সঠিকভাবে দেখা হয় না। অনেক সময় ড্রেনের পানি যেদিকে নামার কথা কিন্তু ঘটে উল্টা। আবার কিছু ড্রেন অসমাপ্ত থাকায় প্রতিনিয়ত এ দুুর্ভোগ বাড়ছে। পরিকল্পিতভাবে ড্রেনেজ ব্যবস্থা করতে পারলে এ দুর্ভোগ পোহাতে হতো না।’

এদিকে চারদিনের ভারি বর্ষণের ফলে গলাচিপা পৌর এলাকার আনন্দপাড়া, সবুজবাগ, ভিআইপি রোড, মসজিদ মহল্লা, টিএন্ডটি রোড এলাকা, বনানী, কর্মকারপট্টিসহ বিভিন্ন এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব এলাকা কার্যত অচল হয়ে পড়েছে। পানিবন্দী মানুষ চেষ্টা করেও কোন উপায় করতে পারছে না। স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীসহ অফিস আদালত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মানুষের যাতায়েত তুলনামূলক কমে গেছে।

পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ডের আনন্দ পাড়া এলাকার হিরণ কুমার শীল বলেন, ‘বর্ষা শুরু হলেই আনন্দ পাড়ায় হাটু পানি হয়ে যায়। গত কয়েক বছর আগে একটি ড্রেন করা হয়েছে কিন্তু উল্টো পানি আসে। আবার আনন্দপাড়ার ভিতর যে ড্রেনটি করা আছে তা দিয়ে পানি সরে না। এতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এ পাড়ার কয়েক হাজার বাসিন্দার।’
 
এ প্রসঙ্গে গলাচিপা পৌরসভার মেয়র আহসানুল হক তুহিন বলেন, ‘গত তিন দিন থেকে পৌরসভার কয়েকটা টিম জলাবদ্ধতার কারণ খুঁতে মাঠে রয়েছে। নার্সারী রোড এলাকার প্রধান একটি ড্রেনের মুখে প্রভাবশালীরা বালির বস্তা, নেট দিয়ে আটকে রেখে মাছ ধরছে। আমারা সে জায়গাটি উন্মুক্ত করে পানি চলাচলের ব্যবস্থা করেছি। এছাড়াও বিভিন্ন ড্রেনগুলো সক্রিয় করার চেষ্টা রয়েছে।’

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close