২৪ আগস্ট ২০১৯, শনিবার ১০:৪৪:০২ এএম
সর্বশেষ:

১০ আগস্ট ২০১৯ ১২:১১:৪৬ এএম শনিবার     Print this E-mail this

মাগুরায় দুর্নীতির আভিযোগে সরকারি বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক গ্রেপ্তার

মাগুরা প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 মাগুরায় দুর্নীতির আভিযোগে সরকারি বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক গ্রেপ্তার

 দুর্নীতির একটি মামলায় আজ শুক্রবার গ্রেপ্তার হয়েছেন মাগুরা সরকারী উচ্চ বালক বিদ্যালয়ের সাবেক ধর্মীয় শিক্ষক মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম।
সকাল ১১টার দিকে মহম্মদপুর থানা পুলিশের উপ পরিদর্শক (এস আই) জাহাঙ্গীর হোসেন মাগুরা শহরের ভায়না মোড় এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। জাহিদুল ইসলাম বর্তমানে রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ শহীদ স্মৃতি সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে কর্মরত। মাগুরা সরকারী উচ্চ বালক বিদ্যালয়ে ধর্মীয় শিক্ষক হিসেবে কর্মরত থাকাকালিন গাছ চুরিসহ নানা অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগে গত বছর এ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জিয়াউল হাসান মাগুরা জুডিসিয়াল আদালতে তার বিরুদ্ধে মামলা করেন। আদালতের নির্দেশে মামলার অভিযোগ তদন্তের দায়িত্ব নেয় দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। তদন্তে আনিত অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে মর্মে দুদক আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন পাঠালে আদালত জাহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।
মামলার বিষয়ে মাগুরা সরকারী উচ্চ বালক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জিয়াউল হাসান জানান, বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই বিদ্যালয় চত্বরে থাকা মেহগনী কাঠের ৩টি লগ, এক কয়েল বৈদ্যুতিক তার ও কম্পিউটার সামগ্রী গোপনে বিক্রি করে সমুদয় অর্থ আত্মসাত করেন। এ বিষয়ে প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় তার বিরুদ্ধে আদালতে এ মামলা দায়েরের সিদ্ধান্ত হয়। মামলার তদন্তভার পড়ে দুদকে। দুদক মামলা তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে আদালতে প্রতিবেদন দিলে তার বিরুদ্ধে সম্প্রতি এই গ্রেপ্তারি পারোয়ানা জারি হয়। এরই মধ্যে তিনি  রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ শহীদ স্মৃতি সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে বদলি হন। পাশাপাশি গ্রেপ্তারি পারোয়ানা জারির খবরে আত্মগোপনে যান তিনি। পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ শুক্রবার মাগুরা শহরের ভায়না এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে।
জিয়াউল হাসান জানান, জাহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্নীতির আরো অভিযোগ রয়েছে। কোন অনুমতি ছাড়াই জাহিদুল ইসলাম মাগুরা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বাসভবনে সপরিবারে প্রায় ৫ বছর অবৈধ ভাবে বসবাস করেছেন। তাকে গত ১২ মার্চ ২০১৮ ইং তারিখের মধ্যে ওই বাসা পরিত্যাগের জন্য বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ লিখিত চিঠি দেয়। পরবর্তিতে বাসা না ছাড়ায় মাগুরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার নেহার নিগার তনু ও জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা জি,এম জিল্লুর রহমান এ বিষয়ে পৃথক দুটি চিঠি উক্ত শিক্ষককে দেন। এছাড়া তাকে বাসা ছাড়তে বাধ্য করার পাশাপাশি গত মার্চ মাস থেকে বাসা ভাড়া কর্তন পুর্বক বেতন বিল দাখিল না করায় তার বেতন ভাতা স্থগিত হয়।
জিয়াউল হাসান আরো অভিযোগ করেন, উক্ত শিক্ষক স্কুলের আম, কাঠাল, পেয়ারা, পুকুরের মাছসহ সকল সুযোগ সুবিধা নিজ মালিকানার মতো দীর্ঘদিন ভোগ করেছেন। প্রায় এক যুগ ধরে পুর্বতন প্রধান শিক্ষকদের ম্যানেজ করে ধর্ম ক্লাসের বদলে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর প্রভাতী শাখায় শ্রেনী শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। পরীক্ষায় ফেল করানোর ভয় দেখিয়ে ছাত্রদেরকে তার কাছে গণিত, বাংলা ও কৃষি শিক্ষা প্রাইভেট পড়তে বাধ্য করেছেন। এ ধরনের নানা অভিযোগে তাকে দু’বার মাগুরার সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে অন্যত্র বদলী করা হয়। পরে রাজনৈতিক তদবির ও বিপুল অর্থ ব্যয় করে একই স্কুলে স্বল্প সময়ের ব্যবধানে ফিরে আসেন তিনি।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close