২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার ০৪:৪৫:৪৬ পিএম
সর্বশেষ:
ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে মাঠে নামছে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন; দ্রুত মোতায়েনের জন্য ১টি প্লাটুনকে নেয়া হয়েছে হেলিকপ্টারে           

২৯ আগস্ট ২০১৯ ০৫:১২:০৭ পিএম বৃহস্পতিবার     Print this E-mail this

দেশের সকল নদী, খাল ও ছোট নদী পুনঃখনন করা হবে-পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

ষ্টাফ করেসপন্ডেন্ট, গোপালগঞ্জ
বাংলার চোখ
 দেশের সকল নদী, খাল ও ছোট নদী পুনঃখনন করা হবে-পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সরকার প্রথম পযার্য়ে ৪৪৮টি নদী, খাল ও ছোট নদীগুলো পুনঃখননের মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এ প্রকল্পের প্রথম ধাপের এসব খাল ও ছোট নদী পুনঃ খনন কাজ চলছে। এসব নদী ও খাল খনন করা না হলে এ বছর যে বন্যা হয়েছে তার আরো বেশি প্লাবিত হত, খাল খননের কারনে প্লাবিত কম হয়েছে। আগামী ২০২০ সালের মধ্যে প্রকল্প শেষ হলে আগামী বন্যার ব্যাপ্তিটা আরো কম হবে। দ্বিতীয় পযার্য়ে আরো ৫’শ খাল খননের প্রকল্প হাতে নেয়া হবে। এতে খালের পাড় উপচে পড়ে পানিতে আর গ্রাম তলিয়ে দেশের মানুষ বন্যা আক্রান্ত হয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হবে না।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার মানিকহার বাজার এলাকার মধুমতি নদী ভাঙ্গন ও প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদেশ দেশ নদীমাতৃক দেশ। সব জায়গায় নদী ভাংগতে থাকে। এজন্য নদী শাসন করা হচ্ছে। এ ভাঙ্গনরোধ করতে হলে সারা বছর নদীগুলো খনন করতে হবে। যা প্রচুর ব্যয় বহুল। তাই আমরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে হাট বাজার ও লোকালয়ের ভাঙ্গনরোধ কাজ করছি।

রোহিঙ্গা সমস্যার বিষয় নিয়ে অপর এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেন, রোহিঙ্গা সমাধানের জন্য সব দিক থেকে কূটনৈতিকভাবে চাপ সৃষ্টি করছে সরকার। রোহিঙ্গাদের বিষয়ে আওয়ামী লীগ সরকার সবসময় সচেতন রয়েছে। একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদেরকে নিজস্ব মাতৃভূমিতে ফিরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এর একটি শান্তিপূর্ন সমাধান অচিরেই হবে।

এ সময় পানি উন্নয়ন বোর্ডে ডিজি মাহফুজুর রহমান, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মন্টু কুমার বিশ্বাস, প্রধান প্রকৌশলী এ কে এম ওয়াহেদ উদ্দীন, পানি উন্নয়ন বোর্ড ফরিদপুর অঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবদুল হেকিম, গোপালগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বিশ্বজিৎ বৈদ্য, মুকসুদপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ কাবির মিয়া, মুকসুদপুর উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা তাসলিমা আলী, গোপালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান খানসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এরআগে, প্রতিমন্ত্রী গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার পশারগাতি ও গোবিন্দপুরের বাওড় এলাকা, কাশিয়ানী উপজেলার ফলসি, সরদার বাড়ি, গোপালগঞ্জ সদরের মধুমতি নদীর জয়বাংলা স্থানের ভাঙ্গন কবলিত স্থান, এমবিআর চ্যানেলের মানিকহার ও হরিদাসপুরের ভাঙ্গন ও এমবিআর প্রকল্পের বোটপাস কাম ভরাট খাল পরিদর্শন করেন।


সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close