২৩ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার ০৪:০৬:৪৬ পিএম
সর্বশেষ:

২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১০:১৩:৩৪ পিএম শুক্রবার     Print this E-mail this

অব্যবস্থাপনার মধ্যে দিয়ে ঝুকি নিয়েই যানবাহন থামানোর গেইটের নিচ দিয়ে পার হচ্ছেন সাইক্লিস্ট

রুপম আচার্য্য মৌলভীবাজার প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 অব্যবস্থাপনার মধ্যে দিয়ে ঝুকি নিয়েই  যানবাহন থামানোর গেইটের নিচ দিয়ে পার হচ্ছেন সাইক্লিস্ট

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে অনুষ্ঠিত  “ডুয়াথলন শ্রীমঙ্গল চ্যালেঞ্জ ২০১৯” প্রতিযোগিতায় প্রচন্ড তাপদাহ, শহরের জানজটপুর্ন রাস্তায়  প্রতিযোগিতা চলাকালিন সময়ে প্রতিযোগীরা অসুস্থ হয়েছেন। এছাড়াও নারী সাইক্লিস্টরা প্রতিযোগিতা  ইভটিজিং এর শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তীব্র তাপদাহের মধ্যে সাইক্লিস্টরা সাইকেল চালিয়েছেন। প্রচন্ড গরমের প্রচুর পানির প্রয়োজন হলেও আয়োজকরা কোন পানির ব্যবস্থা রাখেন নি। প্রতিযোগিতার জন্য ব্যবহৃত শহরের ব্যস্ততম সড়ক বেছে নেয়ার কারনে অন্যান্য যানবাহনের সাথে বাইসাইকেল চালিয়ে নিতে গিয়ে অনেকেই ছোট্ট খাত দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। তাছাড়া শহরের ভানুগাছ সড়কে রেলগেইটে ট্রেন আসায় যানবাহন থামানোর জন্য গেউট বন্ধ করার পরও সাইক্লিস্টরা ঝুকি নিয়েই গেইটের নিচ দিয়ে চলাচল করেছেন।

শ্রীমঙ্গল শহরের ভানুগাছ সড়কের জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামের সামনে থেকে সারাদেশের প্রায় দেড় শতাধিক সাইক্লিস্টরা অংশ নেয়। তারা উপজেলার ভানুগাছ সড়ক,  সিন্দুরখান সড়ক, চকগাও চৌমুহনা, ফুলছড়া চা বাগান, বিটি আর আই হয়ে প্রায় ২০ কিলোমিটার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে  আবার শহরে এসে শেষ করে।

শুক্রবার দুপুরে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে “জালাল উদ্দীন ফাউন্ডেশন”। এতে সারাদেশের ২৩৬ জন সাইক্লিস্ট রেজিষ্ট্রেশন করলেও শেষ মুহুর্তে বৃহস্পতিবার রাতে “ডুয়াথলন শ্রীমঙ্গল চ্যালেঞ্জ ২০১৯” এ নিরাপত্তা ও অন্যান্য বিষয়াদি তুলে ধরে প্রতিযোগিতা বর্জন করে শ্রীমঙ্গল সাইক্লিং কমিউনিটি। ফলে প্রায় দেড় শতাধিক সাইক্লিস্টদের নিয়ে প্রতিযোগিতা হয়।

প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক  এক নারী সাইক্লিস্ট অভিযোগ করেন, রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় চকগাঁও এলাকায়  কিছু ছেলে আমাকে নানান ধরনের কটুক্তি করে এবং বাজে ইংগিত করে কিন্তু সেই সময় ওই স্থানে আয়োজকদের পক্ষ থেকে কোন স্বেচ্ছাসেবককে ডেকেও পাই নি। শুধু আমি নই অন্য নারীরাও এধরণের ইভটিজিং এর শিকার হয়েছেন।

দীপ চক্রবর্তী নামে এক সাইক্লিস্ট বলেন, প্রতিযোগিতায় আয়োজকরা খাবারের পানি ব্যবস্থা রাখেনি। আমিসহ অনেকই পানির জন্য অসুস্থ হয়েছে। অনেকেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ চিকিৎসাও নিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জালাল উদ্দীন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান জুয়েল বলেন, ভলেন্টিয়াররা আমাকে কোন এধরনের  রিপোর্ট দেয় নি। আমি এসব জানিনা।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close