২০ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার ০৩:৩২:৪৫ পিএম
সর্বশেষ:
ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে মাঠে নামছে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন; দ্রুত মোতায়েনের জন্য ১টি প্লাটুনকে নেয়া হয়েছে হেলিকপ্টারে           

০৩ অক্টোবর ২০১৯ ০১:০৭:০৬ এএম বৃহস্পতিবার     Print this E-mail this

সৈয়দপুরে ফাজিল পরীক্ষায় প্রক্সি পরীক্ষার্থীর ১ বছর কারাদন্ড

মিজানুর রহমান মিলন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) থেকে
বাংলার চোখ
 সৈয়দপুরে ফাজিল পরীক্ষায় প্রক্সি পরীক্ষার্থীর ১ বছর কারাদন্ড

আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন অনুষ্ঠিত ফাজিল (পাস) ২য় বর্ষের পরীক্ষায় অন্যের হয়ে প্রক্সি পরীক্ষা দিতে গিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে এক বছরের কারাদন্ড হয়েছে ভূয়া (প্রক্সি) পরীক্ষার্থী মো. রাকিবুল ইসলামের (২৪)। গতকাল বুধবার সকালে সৈয়দপুর উপজেলার সোনাখুলী মুন্সিপাড়া কামিল মাদ্রাসার পরীক্ষা কেন্দ্রে অন্যের হয়ে পরীক্ষা দেয়ার সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিমল কুমার সরকারের হাতে ধরা পড়ে ওই ভূয়া পরীক্ষার্থী। পরে আদালত বসিয়ে প্রক্সি পরীক্ষা দেয়ার অপরাধে ভূয়া পরীক্ষার্থী হিসেবে এক বছরের কারাদন্ড দেয়া হয়। গতকালই তাকে নীলফামারী জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।
আদালত সূত্র জানায়, নীলফামারী জেলা সদরের লক্ষীচাপ ইউনিয়নের ময়মনসিংহ পাড়ার মোফাজ্জল হোসেনের পুত্র মো. রাকিবুল ইসলাম। সে সুমন ইসলাম নামে ফাজিল (পাস) ২য় বর্ষের পরীক্ষা দিয়ে আসছিল। গতকাল ২য় বর্ষের ইংরেজি বিষয়ের পরীক্ষা দিতে আসে সে। এদিন পরীক্ষা চলাকালে সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) পরিমল কুমার সরকার ও উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমানকে নিয়ে কেন্দ্র পরিদর্শনে যান। এ সময় তিনি কেন্দ্রের একটি কক্ষে গেলে ওই ভূয়া পরীক্ষার্থী তাদের দেখে নড়ে চড়ে বসে। এ সময় তার আচরণে সন্দেহ হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) পরিমল কুমার সরকার তার নাম জানতে চাইলে সে জানায়, সুমন ইসলাম। কিন্তু পিতা ও মাতার নাম বলতে বলা হলে সে নিজের পিতা মাতার নাম বলে। আর এতেই ধরা খায় ওই পরীক্ষার্থী। এ ঘটনায় তাকে সাথে সাথে আটক করা হয়। পরে তাৎক্ষণিক বিচারের জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত বসানো হয়। আদালতে সে বন্ধু সুমনের পিতা মাতার পরামর্শে সুমন ইসলামের নামে নিজের ছবি বসিয়ে পরীক্ষা দিয়ে আসছিল বলে স্বীকারোক্তি দেয়। পরে ভূয়া পরীক্ষার্থী হিসেবে পরীক্ষা দেয়ার অপরাধে তাকে এক বছরের কারাদন্ড দেন আদালত।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সোনাখুলী মুন্সিপাড়া কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আ.ব.ম মনসুর আলী বলেন, সে নিজের ছবি বসিয়ে সুমন ইসলাম নামে পরীক্ষা দিয়ে আসছিল। ওই ছবি দিয়ে প্রাইভেট ছাত্র হিসেবে রেজিস্ট্রেশন করে। পরে ওই নামেই প্রবেশপত্র এলে পরীক্ষা দেয় সে। কিন্তু ফাজিল (পাস) ২য় বর্ষ পরীক্ষার শেষ দিনে ধরা খায় সে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close