১২ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার ০২:১৫:৩১ এএম
সর্বশেষ:

২০ অক্টোবর ২০১৯ ০৭:৪৯:২৮ পিএম রবিবার     Print this E-mail this

হাসপাতালে পুলিশের গুলিবর্ষন,আহতদের উপর হামলায় ডাক্তারদের নিন্দা

মোঃ আফজাল হোসেন বিশেষ প্রতিনিধি ভোলা
বাংলার চোখ
 হাসপাতালে পুলিশের গুলিবর্ষন,আহতদের উপর হামলায় ডাক্তারদের নিন্দা

 ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় মুসুল্লিদের সাথে পুলিশের দফায় দফায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে ৪ মুসুল্লি নিহত হয়। নিহতরা হচ্ছে মাহফুজ পাটওয়ারী, মিজানুর রহমান, ােঃ শাহিন, মাহবুব পাটোয়ারী । এছাড়া সাংবাদিক, ২০ পুলিশসহ শতাধিক লোক আহত হয়েছে। আজ বরিবার সকাল সাড়ে ১০টায় বোরহানউদ্দিন পৌর এলাকার ঈদগাহ মাঠে মুসুল্লিদের বিক্ষোভ সমাবেশে এ ঘটনা ঘটে।  পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে বিজিবি র‌্যাব,কোস্টগার্ড ও অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। এ ঘটনায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৩ সদস্যের কমিটি ঘটনা করা হয়েছে। বর্তমানে বোরহানউদ্দিনে পরিস্থিতি থমথমে অবস্থায় রয়েছে। এলাকায় মানুষের মধ্যে চরম আতংক বিরাজ করছে।
 
স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, শুক্রবার বিকেলে বিপ্লব চন্দ্র শুভ’র নিজের নাম ও ছবি সম্বলিত ফেসবুক আইডি থেকে আল্লাহ তায়ালা ও নাবী করিম (সঃ) কে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ গালাগাল করে তার কয়েকজন ফেসবুক বন্ধুর কাছে ম্যাসেজ করে। এক পর্যায় কয়েটি আইডি থেকে ম্যাসেজ গুলোর স্ক্রিন সর্ট নিয়ে ফেসবুকে কয়েকজন প্রতিবাদ জানালে বিষয়টি সকলের নজরে আসে। এমনকি বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে প্রতিাবাদের ঝড় উঠে। এ অবস্থায় সন্ধ্যার পর বিপ্লব চন্দ্র বোরহানউদ্দিন থানায় আইডি হ্যাক হয়েছে মর্মে জিডি করতে আসলে থানা পুলিশ বিষয়টি তদন্ত ও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিপ্লব চন্দ্রকে তাদের হেফাজতে রাখেন।  বিপ্লব চন্দ্র শুভ বোরহানউদ্দিন উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের চন্দ্র মোহন বৈদ্দের ছেলে। সে ডিগ্রি পাশ করেছে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে বোরহানউদ্দিনের কুঞ্জেরহাট বাজারে সর্বস্তরের মুসলিম তাওহীদি জনতার ব্যানারে মানববন্ধন করা হয়েছে এবং থানার সামনে বিক্ষোভ মিছিল করেছে তাওহীদি জনতা। এসময় তারা ঘটনার সত্যতা যাচাই করে বিপ্লব চন্দ্রের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।

বৃস্পতিবার বোরহানউদ্দিন থানার ওসি মো: এনামুল হক বলেন, গত রাতে বিপ্লব চন্দ্র শুভ নিজের ইচ্ছায় ওই যুবক আমাদের কাছে আসছে তার ফেসবুক হ্যাক হয়েছে বলে জিডি করতে। সে জানায় তার কাছ থেকে একটি মোবাইল থেকেও চাঁদা চাইছে। ট্রাকিং করে শরিফ ওরফে শাকিলকে কলাপাড়া থেকে আটক করে বোরহানউদ্দিন এনে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় । তাকে ছাড়াও শাকিল নামে আরো ১ যুবককে আটক করা হয়। কিন্তু বোরহানউদ্দিন উপজেলার তাওহিদি জনতার ব্যানারে মুসুল্লিরা রবিবার সকাল ১১ টায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করে।  সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে তাওহিদি জনতার ব্যানারে মুসুল্লিরা নবী ও আল্লাহকে কটুউক্তিকারী বিপ্লবের ফাসির দাবীতে ঈদঘাহ মাদ্রাসার মাঠে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে। সমাবেশে ভোলা পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কয়সার উপস্তিত ছিলেন।  তিনি তখন ঐ সমাবেশে বক্তব্য দেন।
বেলা পৌনে ১১ টার দিকে হঠাৎ করে সমাবেশ স্থল থেকে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে পুলিশকে ধাওয়া করলে এসপিসহ পুলিশ সদস্যরা মসজিদ মাদ্রাসার একটি কক্ষে আশ্রয় নেয়। এসময় পুলিশ শর্টগানের গুলি ছোড়ে বলে স্থানীয়রা জানান। এতে সংর্ঘষ ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে পুলিশের এসপি যে রুমে আশ্রয় নেয় সেই রুমেও হামলা চালায়। এসময় বিক্ষিপ্ত ভাবে সংর্ঘষ ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ চলে। পুলিশ চার দিকে ব্যাপক গুলি ছুড়তে ছুড়তে বের হয়ে আসে বলে পুলিশ সুপার স্বীকার করেন। পুলিশের গুলিতে মাহফুজ পাটওয়ারী, মিজান, শাহিন, মাহবুব নামে ৪ জন মুসল্লি নিহত হয়। ২০ পুলিশসহ শতাধিক লোক আহত হয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ভোলা চরফ্যাসন সড়ক অবরোধ করা হয়। এতে করে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ভোলা সদরের বিক্ষোভ করা হয়।  খবর সংগ্রহ করতে গেলে বাংলা টিভির সাংবাদিক জুয়েল সাহা ও জিটিভির ক্যামেরাপার্সন জয় দের ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে তাদের ব্যাপক মারধর করা হয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, বোরহানউদ্দিনের ঈদগাহ মাঠের সামনে রাস্তায় সোফ সোফ রক্তের দাগ। সমাবেশ স্থলের মঞ্জ ভাংচুর করা। বোরহানউদ্দিন হাসপাতালে চলছে স্বজনদের আহাজারি। হাসপতালের কক্ষে পড়ে রয়েছে লাশ। অসংখ্য রোগীকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ভোলা সদর হাসপাতাল ও বরিশালে বহু আহত রোগী গুরুতর অবস্থায় পাঠানো হয়েছে।

এদিকে ভোলা  সদর হাসপাতালে নেয়ার পর আহত ২ জনকে ডাক্তার মৃত ঘোষনা করা হয়। বোরহানউদ্দিন হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা: আবুল কালাম আযাদ জানান, নিহত হয়েছে ৪ জন।  

অপরদিকে বোরহানউদ্দিন হসপাতালে পুলিশের গুলিবর্ষন ও ভিতওে ঢুকে আহতদেরকে মারধোর করে নিয়ে আশার ঘঁটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন,এাঁ আমাদের কাছে কাম্য নয়।

এদিকে বরিশাল ডিআইজি শফিকুর ইসলাম রবিবার সন্ধ্যায় বোরহানউদ্দিন থানায় এক প্রেস ব্রিফিং এ বলেন, বহিরাগতরা উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে একটি পক্ষ  ঘটনা ঘটিয়েছে। সমাবেশ শেষ পর্যায়ে হাঠৎ হামলা করা হয়। মসজিদে অবমাননা করা হয়।  পুলিশের এক সদস্যকে গুলি করা হয়। তাকে সিএমএইচ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। তবে কার গুলিতে আহত করা হয়েছে তা নিশ্চিত বলতে পারেননি। তদন্ত করে বলা যাবে। তিনি আরো বলেন,যারাই দোষী তদন্ত করে তাদেরকে বিচাঁর এর আওতায় আনা হবে।

বরিশাল বিভাগী কমিশনার ইয়ামিন চৌধুরী বলেন, এ ঘঁটনায় ডিডিএলজি মোঃ মাহমুদুর রহমানকে প্রধান করে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।  

ভোলা পুলিশ সুপার বলেন, সমাবেশের শেষ দিকে দিকে পুলিশের উপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে হামলা চালায়। এসময় পুলিশ নিরাপত্তার সাথে ফাকা গুলি ছুড়ে। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে পুলিশ আটক করেননি। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close