১৬ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার ০১:১৮:৩২ এএম
সর্বশেষ:

২৩ অক্টোবর ২০১৯ ০১:৪৬:৪৫ এএম বুধবার     Print this E-mail this

২৪ অক্টোবর নুসরাত হত্যা মামলার রায়

মোস্তফা কামাল বুলবুল ফেনী থেকে
বাংলার চোখ
 ২৪ অক্টোবর নুসরাত হত্যা মামলার রায়

কেবল ফেনী নয়, নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনাটি দেশের ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছে। সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাতকে তারই প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষের নির্দেশনায় সহপাঠীদের দেওয়া আগুনে প্রাণ দিতে হয়েছে।

বিশ্বে আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলা এবং তার সহযোগীসহ রাজনৈতিক দলের অনেক ‘রাঘব বোয়ালেরও’ বিচার চলছে। অনেক জল্পনা-কল্পনা শেষে মাত্র ৬১ দিনের মাথায় নিষ্পত্তি হতে চলেছে মামলাটির। জবানবন্দি-যুক্তিতর্কসহ নানা প্রক্রিয়ার পর আগামী ২৪ অক্টোবর মামলার রায়ের তারিখ ধার্য করেছেন ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদের আদালত।

নুসরাতের পরিবারের পক্ষে আদালতে লড়েছেন বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট ও ফেনী জজ কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শাহজাহান সাজু। মামলাটির কার্যক্রম পরিচালনার ব্যাপারে বিশদভাবে বাংলার চোখের সঙ্গে কথা বলেছেন এ আইনজীবী

মামলাটির সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার ব্যাপারে শাহজাহান সাজু বলেন, চলতি বছরের ২৭ মার্চ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার মাধ্যমে যৌন নিপীড়নের ঘটনায় ২৮ মার্চ মামলা করেন নুসরাতের মা। ওই মামলাটির আইনজীবী ছিলাম। এরপর ১০ এপ্রিল থেকে নুসরাত হত্যা মামলার সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছি।

শাহজাহান সাজু বলেন, সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে আসামিদের সর্বোচ্চ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতের জন্য আইনি লড়াইয়ে লড়েছি। এতে পারিশ্রমিক নেওয়ার প্রশ্নই আসে না।

আসামিপক্ষের আইনজীবীদের ব্যাপারে শাহজাহান সাজু বলেন, এ মামলাটি পরিচালনা করতে গিয়ে অনেক অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছে। আসামিপক্ষের আইনীজীবীরা অনেক সময় কোর্টের ভেতরে ও বাইরে বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত করেছেন। কিছু আইনজীবী অশোভন আচরণও করেছেন।

‘প্রথম দিকে ফেনী আইনজীবী সমিতির অনুরোধক্রমে জজকোর্টের সব আইনজীবী বলেছিলেন কোনো আসামির পক্ষে দাঁড়াবেন না। কিন্তু পরবর্তীতে সে কথার ব্যত্যয় ঘটেছে। আসামিদের পক্ষে দাঁড়িয়েছেন কিছু আইনজীবী।’

তিনি বলেন, ওই আইনজীবীরা সমিতির অনুরোধ উপেক্ষা করেছেন, নিজেদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পারেননি। প্রথমাবস্থায় অনেকে নুসরাতের পরিবারের পক্ষে থাকবেন বলে পরে আসামিদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। বিবাদীপক্ষের কিছু আইনজীবী নির্লজ্জ মিথ্যাচারও করেছেন।

সরকারপক্ষের আইনজীবীর ব্যাপারে শাহজাহান সাজু বলেন, সরকারপক্ষের আইনজীবী ফেনী জজকোর্টের পিপি হাফেজ আহম্মদ সর্বোচ্চ ভূমিকা পালন করেছেন। যেন দোষী সব আসামির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়।

শাহজাহান সাজু বলেন, সম্পূর্ণ বিনা পারিশ্রমিকে এ মামলাটি স্বপ্রণোদিত হয়ে লড়েছি, অনেক সময় নিজের পকেট থেকে ব্যয় করেছি। নুসরাতের পরিবারকে এক টাকাও খরচ করতে হয়নি। একটা কাগজও কিনতে হয়নি।

মামলাটি পরিচালনার বিষয়ে ব্যতিক্রম কী? এমন প্রশ্নে জবাবে শাহজাহান সাজু বলেন, মামলাটি আমার আইন পেশার ‘বিরল অভিজ্ঞতা’, মাত্র ৬১ কার্য দিবসে ৮৭ আসামির সাক্ষ্যগ্রহণ এবং যুক্তিতর্ক গ্রহণ। এটি বাংলাদেশের ইতিহাসেও নেই। এত অল্প সময়ের মধ্যে এমন চাঞ্চল্যকর মামলার নিষ্পত্তি একটি বিরল ঘটনা।

রায়ের ব্যাপারে তিনি বলেন, আমরা আশা করি সুবিচার পাবো, আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হবে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close