১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার ০৯:০৪:১১ এএম
সর্বশেষ:

২৩ অক্টোবর ২০১৯ ০৭:৫৫:০০ পিএম বুধবার     Print this E-mail this

পাথরঘাটা কলেজ ছাত্রী সেতু হত্যা মামলার রায় ঘোষণা

খোকন কর্মকার বিশেষ প্রতিনিধি পাথরঘাটা থেকে
বাংলার চোখ
 পাথরঘাটা কলেজ ছাত্রী সেতু হত্যা মামলার রায় ঘোষণা

বরগুনার পাথরঘাটা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী চাঞ্চল্যকর সেতু হত্যা মামলায় প্রধান আসামী পাথরঘাটা উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি জিয়াউল হক ছোট্টকে জাবজ্জীবন ও বিশ হাজার টাকা জরিমানা এবং বাকী তিন আসামী নির্দোশ হওয়ায় তাদেরকে বেকসুর খালাশ দেয়া হয়েছে।

বুধবার (২৩ আক্টোবর) দুপুরে বরগুনা নারী ও নির্যাতন দমন ট্রাইব্যূনালের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান এ রায় প্রদান করেন। মামলার আসামীরা হলো, প্রধান আসামী জিয়াউল হক ছোট্টর স্ত্রী নাহিদ সুলতানা লাকি, আবদুল্লাহ আল মামুন কাজী ও আনিচুর রহমান রেজবি খান। তাদের সকলের বাড়ি পাথরঘাটা পৌর এলাকার বিভিন্ন ওয়ার্ড।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালের ২৯ জুন আসামীরা পাথরঘাটা কলেজের ২০১২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থী কামরুন্নাহার সেতুকে (১৭) নিমর্ম ভাবে নির্যাতন করে মৃতু নিশ্চিত করে বিষ খাইয়ে হত্যা করে আসামীরা। পরদিন ৩০ জুন সেতুর বড় ভাই নজরুল ইসলাম রিপন বাদি হয়ে মামলা করেন। দীর্ঘদিন মামলা চলার পরে চাঞ্চল্যকর সেতু হত্যা রায় দেযা হয়। আসামীর পক্ষের কৌশলী ছিলেন অ্যাড. কমল কান্তি রায় ও সরকার পক্ষে পিপি মোস্তাফিজুর রহমান।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১২ সালের ২৯ জুন শুক্রবার রাত ৯টার দিকে পৌরসভা সংলগ্ন উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি জিয়াউল হক ছোট্টর বাসায় পাথরঘাটা ডিগ্রি কলেজের ২০১২ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী কামরুন্নাহার সেতু (১৭) স্ত্রীর অধিকার পাওয়ার জন্য সেখানে যায়। সেই স্থানে উভয় পক্ষের মধ্যে বাকবিতন্ডার এক পর্যায় জিয়াউল হক ছোট্ট ও তার স্ত্রী নাহিদ সুলতানা লাকীসহ ৪ থেকে ৫ জন মিলে জোর পুর্বক বিষ খাইয়ে দিয়ে ঘর থেকে নামিয়ে দেয়। ওই সময় সেতু তার মা হোসনেয়ারা পাখিকে মোবাইলে বলেছে ছোট্টসহ ৪ থেকে ৫ জনে তাকে  বিষ খাইয়ে দিয়ে  ঘর থেকে বের করে দেয়ার কথা বলে। এ সময় সেতুর কান্নাকাটি শুনে স্থানীয় লোকজন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে রাত দুটার দিকে সেতুর মৃত্যূ হয়। দীর্ঘ ৮নগ বছরের মাথায় এসে চাঞ্চল্যকর সেতু হত্যা মামলার রায় হলো।

খালাশ প্রাপ্ত আসামী আবদুল্লাহ আল মামুন ও রেজবি খান বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে আমাদেরকে অহেতুক মামলায় জড়ানো হয়েছিল। আমরা ন্যায় বিচার পেয়েছি।

আসামীর পক্ষের কৌশলী অ্যাড. কমল কান্তি রায় জানান, ৪ জন আসামীর মধ্যে ৩ জন আদালতে উপস্থিত ছিলেন অন্য আসামী উপস্থিত ছিলো না। আদালতে ধর্ষণের অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় তাকে জাবজ্জীবন কারাদন্ড দেয়া হয়েছে, তবে হত্যার অভিযোগ প্রমানিত হয়নি। আমরা উচ্চ আদালতে ন্যায় বিচারের জন্য যাব।
খোকন কর্মকার

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close