১১ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার ০৬:১৫:০০ পিএম
সর্বশেষ:

১৮ নভেম্বর ২০১৯ ১০:৪০:৪০ পিএম সোমবার     Print this E-mail this

কিছুদিনের মধে্যেই বেগম জিয়ার মুক্তির কঠোর আন্দোলন:মিনু

সোহরাব হোসেন সৌরভ
বাংলার চোখ
 কিছুদিনের মধে্যেই বেগম জিয়ার মুক্তির কঠোর আন্দোলন:মিনু

বিএনপি বাংলাদেশের একটি সর্ববৃহত দল। এই দলের প্রতি শতকরা ৯০ভাগ মানুষের সমর্থন রয়েছে। এই সমর্থনে ভয় পেয়ে বর্তমান অবৈধ সরকার ডে-নাইট নির্বাচন করে ক্ষমতায় এসেছে। এই সরকারের প্রতি দেশের মানুষের কোন সমর্থন নাই। 

সোমবার বেলা ১১টায় নগরীর মালোপাড়াস্থ বিএনপি কার্যালয়ে সামনে মহানগর ও জেলা বিএনপি’র আয়োজনে পেঁয়াজসহ সকল দ্রব্য মূল্যের উর্দ্ধোগতির প্রতিবাদে ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ সকল নেতাকর্মীর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে প্রতিবাদ সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য জননেতা মিজানুর রহমান মিনু প্রধান অতিথির বক্তব্যে এই কথা বলেন।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার জনগণের দুশমনে পরিণত হয়েছে। তারা জনগণকে অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু করে ফেলেছে। নিত্যা প্রয়োজনীয় দ্রব্য পেঁয়াজের দাম কেজি প্রতি ৩০০টাকা হয়েছে। এছাড়াও চালের দাম কেজি প্রতি ৮-১০ টাকা বেড়েছে। এর প্রভাবে সাধারণ জনগণসহ সকল জনগণের নাভিশ্বাস উঠে গেছে।

তিনি আরো বলেন, সরকারের আমলা, নেতাকর্মী, এমপি ও মন্ত্রীদের কারসাজিতে পেঁয়াজের দাম এই রকম হয়েছে। শেখ মুজিবুর রহমানের আমলে লবনের দাম ২৫টাকা কেজি থেকে বেড়ে চল্লিশ টাকা হয়েছিল। তেমনি তাঁর কন্যা বর্তমান অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলেও বাংলাদেশে এই প্রথম পেঁয়াজের দাম ত্রিপল সেঞ্চুরীর নিকট পৌঁছেছে। বাবা এবং মেয়ের উন্নয়নের ধারা একই রকম রয়েছে বলে জানান মিনু।

তিনি বলেন, রাজনীতি একটি কৌশল। বিএনপি এখনো কৌশল অবলম্বন করছে। এর মধ্যে দিয়ে সবাই একত্রিত হচ্ছে। দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এই অবৈধ সরকারের মসনদ ভেঙ্গে চুড়মার করে দেওয়া হবে। আন্দোলনের জন্য সকল নেতাকর্মীদের প্রস্তুত হওয়ার আহবান জানান। সেইসাথে পেঁয়াজের সিন্ডিকেটধারী সরকার দলীয় এমপি, মন্ত্রী, ব্যবসায়ী এবং নেতাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির দাবী জানান মিনু।  

বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির ত্রাণ ও পুনবার্সন বিষয়ক সহ-সম্পাদক এ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপি’র আহবায়ক আবু সাঈদ চাঁদ ও জেলা বিএনপি’র আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব বিশ্বনাথ সরকার। এছাড়াও রাজপাড়া থানা বিএনপি’র সভাপতি শতকত আলী, মহানগর বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম সরকার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক রানা, জেলা বিএনপি আহবায়ক কমিটির সদস্য ও নওহাটা পৌর মেয়র শেখ মকবুল হোসেন, সিরাজুল ইসলাম, শাহ্ মখ্দুম থানা বিএনপি’র সভাপতি মনিরুজ্জামান শরীফ, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন, মতিহার থানা বিএনপি’র সভাপতি আনসার আলী, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক ডিকেন, রাজপাড়া থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন, মহানগর শ্রমিক দলের সভাপতি ইশারুদ্দিন ইশা, জেলা যুবদলের সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন।

মহানগর যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হাসনাইন হিকোল, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জাকির হোসেন রিমন, সাধারণ সম্পাদক আবেদুর রেজা রিপন, মহানগর তাঁতী দলের সভাপতি আরিফুল শেখ বনি, জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি সুলতান আহম্মেদ, মোজাফ্ফর হোসেন মুকুল, মহানগর যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুজ্জামান টিটো ও জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক জুলফিকার আলী ভুট্টো, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আনন্দ কুমার, মহানগর মহিলা দলের  যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডভোকেট রওশন আরা পপি, অধ্যাপিকা সখিনা খাতুন, সামসুন্নাহার, নুরুন্নাহার, মুসলেমা বেলী, রোজি ও জরিনা, জেলা মহিলা দলের সভাপতি এ্যাডভোকেট সামসাদ বেগম মিতালী ও প্রচার সম্পাদক উম্মে হানী।

এছাড়াও মহানগর ছাত্র দলের সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জনি, মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আকবর আলী জ্যাকি ও জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি রবিউল ইসলাম কুসুমসহ মহানগর, থানা, উপজেলা, ইউনিয়ন ও বিভিন্ন ওয়ার্ডের  বিএনপি,  অঙ্গ ও সংগঠনের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।  

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আবু সাঈদ চাঁদ বলেন, আর কোন সমাবেশ, সেমিনার, মানববন্ধন ও বক্তৃতা নয়। এখন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। আর এই আন্দোলন রাজশাহী জেলা বিএনপি শুরু করবে। জেলার ২৩ ইউনিট এখন সক্রিয় ও একতাবদ্ধ। তারা যেকোন সময়ে আন্দোলনের ঝাপিয়ে পড়বে এবং সকল বাধা অতিক্রম করে বেগম জিয়াকে মুক্ত করবে।

তিনি আরো বলেন, এই সরকার ক্ষমতায় থাকার যোগ্যতা হারিয়ে ফেলেছে। এই অবৈধ সরকার তাঁর শাসনামলে দেশকে একটি তলাবিহিন ঝুড়িতে পরিণত করেছে। দেশের সকল প্রকার নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য মূল্যের উর্দ্ধোগতি হয়েছে। সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে বাংলার ইতিহাসে পেঁয়াজের দাম ত্রিপল সেঞ্চুরীতের রুপান্তরিত হয়েছে। যা বিশ্বের কোন দেশে কোন সময়ে হয়েছিলো কিনা সন্দেহ রয়েছে বলে জানান তিনি। তিনিও পেঁয়াজের সিন্ডিকেটধারীদের আইনের আওতায় এনে দ্রুত আইনের বিচার দাবী করেন।

সভাপতির বক্তব্যে মিলন বলেন, পেঁয়াজ এখন রান্না ঘরে নয় মিউজিয়ামে শোভা পাবে। কারণ এর মূল্য এখন কেজিতে ৩০০টাকা হয়েছে। সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে চলে গেছে। এখন পেঁয়াজ কিনতে মানুষ ভয় পায়। সরকারের কয়েকজন মন্ত্রী ও এমপি এবং বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রীর মদদপুষ্ট কয়েকজন নেতা ও ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট করে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি করে হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট করছে। অথচ সরকার কিছুই করতে পারছেনা তাদের বিরুদ্ধে।

এই সরকার বলে ভারত তাদের বন্ধু প্রতিম দেশ। অথচ বাংলাদেশকে পেঁয়াজ না দিয়ে অন্য দেশের নিকট রপ্তানী করছে। কিন্তু এই সরকার ভারতকে কিছুই বলতে পারছেনা। কারণ ভারতের উপর নির্ভর করে ক্ষমতায় টিকে আছে বলে বক্তৃতায় উল্লেখ করেন তিনি। মিলন আরো বলেন, বিদেশ থেকে প্রতিদিন নারী শ্রমিক নির্যাতিত এবং নির্য়াতনে মৃত্যুবরণ করে দেশে ফিরলেও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কোন ভ্রুক্ষেপ নাই।

তিনি এটাকে কিছুই মনে করছেন না। এই ধরনের অপদার্থ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ চান তিনি। সেইসাথে দ্রুত সময়ে কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলে বেগম জিয়াকে মুক্ত করার ঘোষনা দেন। আর এই আন্দোলনে সকলকে রাজপথে জীবন বাজি রেখে আন্দোলন করার আহবান জানান মিলন।      

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মমতাজ বেগম
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2019. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close