২৬ মে ২০২০, মঙ্গলবার ০৬:২৫:২৭ এএম
সর্বশেষ:
পরিচয় নিশ্চিত না হয়ে কাউকে ঘরে ঢুকাবেন না, কোনো সন্দেহ হলে নিকটস্থ থানাকে অবহিত করুন অথবা ৯৯৯ কল করুন: পুলিশ সদর দপ্তর           

০২ এপ্রিল ২০২০ ১১:০১:১৯ এএম বৃহস্পতিবার     Print this E-mail this

করোনাভাইরাস: গরম আবহাওয়ায় কি কোভিড-১৯ বিস্তার লাভ করতে পারে না?

ডেক্স রিপোর্ট
বাংলার চোখ
 করোনাভাইরাস: গরম আবহাওয়ায় কি কোভিড-১৯ বিস্তার লাভ করতে পারে না?

অনেকে আশা করছেন যে, তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে করোনাভাইরাসের বিস্তার কমে যাবে। কিন্তু মৌসুমি রোগের প্রাদুর্ভাবের ক্ষেত্রে যা কাজ করে, মহামারির ক্ষেত্রে অনেক সময় তা প্রযোজ্য হয় না। এ বিষয়ে আরও জানার চেষ্টা করেছে বিবিসি ফিউচার:

অনেক সংক্রমণ রোগের প্রকোপ মৌসুম বা ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে কমে যায়। অনেক ইনফ্লুয়েঞ্জা শীতের মৌসুমে দেখা দেয়, যেগুলো গরম শুরু হলে চলে যায়। আবার টাইফয়েডের মতো অনেক রোগের শীর্ষ সময় গ্রীষ্ম।

সুতরাং অনেক মানুষ এখন জানতে চাইছেন, কোভিড-১৯ বা নতুন ধরণের করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রেও তাই ঘটবে কিনা।

এই ভাইরাসের সংক্রমণ চীনে গতবছরের মধ্য ডিসেম্বর নাগাদ শুরু হয়েছিল, যখন সেখানে শীত চলছিল। তখন অনেকেই আশা করতে শুরু করেছিলেন যে, গ্রীষ্মকাল শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে করোনাভাইরাসের প্রকোপও কমে যাবে।

কিন্তু এখন অনেক বিশেষজ্ঞ এ ধরণের মতামতের বিরুদ্ধে সতর্কবাণী জানাচ্ছেন।

তাদের এ ধরণের সতর্কবাণীর পেছনে যুক্তিও রয়েছে।

কোভিড-১৯ রোগ সৃষ্টিকারী ভাইরাস, যার আনুষ্ঠানিক নামকরণ করা হয়েছে সার্ক-কোভ-২, একেবারেই নতুন ধরণের একটি ভাইরাস যেটি সম্পর্কে খুব কম তথ্য-উপাত্ত রয়েছে। এটা ঋতুর সঙ্গে কতটা বদলাতে পারে, শুধুমাত্র তাপমাত্রা নয়, মানুষের আচরণ, তাদের মেলামেশা, একটি স্থানে কতো মানুষ অবস্থান করছে, এরকম আরো কিছু বিষয়ের ওপর ভাইরাসে বিস্তার নির্ভর করে।

২০০৩ সালে ছড়িয়ে পড়া সার্স ভাইরাস খুব তাড়াতাড়ি ঠেকিয়ে দেয়া সম্ভব হয়েছিল, ফলে আবহাওয়ার পরিবর্তন সেটার ওপর কতটা প্রভাব ফেলে, সেই তথ্য জানা সম্ভব হয়নি।

তবে আবহাওয়া পরিবর্তনের ফলে কোভিড-১৯ পরিবর্তিত হয় কিনা, সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে মানব শরীরে সংক্রমিত হওয়া অন্য করোনাভাইরাসগুলোর মধ্যে বেশ কিছু সূত্র রয়েছে।

ইউনিভার্সিটি অফ এডিনবরার সেন্টার ফর ইনফেকশাস ডিজিজেস এর পক্ষে কেট টেম্পলটনের চালানো একটি গবেষণায় দেখা গেছে ফুসফুসে সংক্রমিত হয়, এমন তিনটি করোনাভাইরাস বিশেষভাবে শীতকালেই সংক্রমিত হয়েছে। এসব ভাইরাসের ডিসেম্বর থেকে এপ্রিল মাসের মধ্যেই বিস্তার দেখা গেছে।

আরেকটি ভাইরাসের ক্ষেত্রে কিছুটা বিক্ষিপ্ত প্রবণতা দেখা গেছে।

কোভিড-১৯ এর ক্ষেত্রে আগে ধারণা করা হচ্ছিল এটাও হয়তো ঋতু ভিত্তিক একটি ভাইরাস। যেভাবে নতুন ভাইরাসটি বিশ্বব্যাপী বিস্তৃত হয়েছে, তাতে এটা ঠাণ্ডা এবং শুষ্ক আবহাওয়া পছন্দ করে বলেই ধারণা করা যায়। যদিও উষ্ণ কয়েকটি দেশেও এর বিস্তার দেখা গেছে।

বিভিন্ন আবহাওয়ার বিশ্বের ৫০০ স্থান নিয়ে অপ্রকাশিত একটি বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে, কোভিড-১৯ বিস্তারের ক্ষেত্রে ভাইরাস ও তাপমাত্রা, বায়ুপ্রবাহ এবং আর্দ্রতার সম্পর্ক রয়েছে। আরেকটি অপ্রকাশিত গবেষণায় দেখা গেছে, উচ্চ তাপমাত্রা কোভিড-১৯ রোগের বিস্তার কমাতে পারে।

তবে শুধুমাত্র তাপমাত্রা এই রোগের বিস্তারের ওপর প্রভাব ফেলে না।

আরেকটি অপ্রকাশিত গবেষণায় পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে যে, নাতিশীতোষ্ণ উষ্ণ এবং ঠাণ্ডা জলবায়ু করোনাভাইরাসের জন্য বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। বিশ্বের ক্রান্তীয় অংশ এতে কম আক্রান্ত হতে পারে।

কিন্তু এসব গবেষণার ক্ষেত্রে কয়েক ঋতু পর্যবেক্ষণ করে বাস্তব তথ্যের বদলে কম্পিউটার মডেলিংয়ের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে গবেষকদের।

সমস্যা হলো, অনেক ক্ষেত্রে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া রোগগুলো অন্যান্য ঋতু ভিত্তিক রোগের মতো আচরণ করে না।

উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, এর আগে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা যাওয়া মহামারি স্প্যানিশ ফ্লু গ্রীষ্মকালে সবচেয়ে বেশি বিস্তার হয়েছিল।

ক্যারোলিনস্কা ইন্সটিটিউট অফ স্টকহোমের ইনফেকশাস ডিজিজ কন্ট্রোলের অধ্যাপক জ্যান আলবার্ট বলেছেন, ``এখন সবচেয়ে বড় প্রশ্ন হলো, ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে এই ভাইরাসটির ওপর তার প্রভাব পড়ে কিনা। আমরা নিশ্চিতভাবে সেটা জানি না, কিন্তু আমাদের মনে হচ্ছে যে, এটা হতে পারে।``

কেন সেটা আশা করছেন বিজ্ঞানীরা?

করোনাভাইরাস এমন একটি গোত্রের সদস্য যাদের বলা হয় `এনভেলপড ভাইরাস`। এর মানে হলো, এই ভাইরাসের চারপাশে প্রোটিনের তৈরি একটা তৈলাক্ত আস্তরণ থাকে, যাকে বলা হয় লিপিড বাইলেয়ার।

এ ধরণের অন্য ভাইরাসগুলোর ক্ষেত্রে দেখা গেছে যে, এরকম আবরণ থাকায় শরীরের বাইরে, মুক্ত পরিবেশে থাকা থাকা অবস্থায় উষ্ণ বা উচ্চ তাপমাত্রার আবহাওয়ায় ভাইরাস দুর্বল হয়ে যায়।

অন্যদিকে ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় সেটি আরও টেকসই হয়ে ওঠে। রান্না করা মাংস ঠাণ্ডা করা হলে যেমন চর্বির একটা আস্তর তৈরি হয়, অনেকটা তেমন।

এ কারণেই তাপমাত্রা যত বাড়ে, মুক্ত পরিবেশে করোনাভাইরাসের বিস্তার ততো কমতে থাকে।

গবেষণায় দেখা গেছে, সার্স-কোভ-২ ভাইরাস প্লাস্টিকের মতো শক্ত আবরণের ওপর ২১-২৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় এবং ৪০ শতাংশ আর্দ্রতায় ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত টিকে থাকতে পারে।

অন্যান্য তাপমাত্রায় কোভিড-১৯ ঠিক কতক্ষণ টিকে থাকতে পারে এবং কী ধরণের আচরণ করে, তা নিয়ে এখনো পরীক্ষা নিরীক্ষা চলছে।

তবে অন্যান্য করোনাভাইরাসের ওপর চালানো পরীক্ষা থেকে জানা যাচ্ছে, কম তাপমাত্রায়, অর্থাৎ চার ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় মুক্ত পরিবেশে এগুলো ২৮ দিন পর্যন্ত টিকে থাকতে পারে।

২০০৩ সালে সার্স ভাইরাসের ওপর চালানো একটি পরীক্ষায় দেখা গেছে, ঠাণ্ডা, শুষ্ক তাপমাত্রায় এটি ভালোভাবে টিকে থাকতে পারে। যেমন শক্ত আবরণের ওপর ২২ থেকে ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওই ভাইরাস পাঁচদিন পর্যন্ত টিকে থাকতে দেখা গেছে।

তাপমাত্রা ও আর্দ্রতা যত বেড়েছে, মুক্ত পরিবেশে ভাইরাসের আয়ুষ্কাল ততো কমেছে।

স্পেনের ন্যাশনাল মিউজিয়াম অফ ন্যাচারাল সায়েন্স ইন মাদ্রিদের গবেষক মিগুয়েল আরাজো বলছেন, ``মানব শরীরের বাইরে ভাইরাসের ক্ষেত্রে জলবায়ু একটা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। যতক্ষণ ভাইরাস মুক্ত আবহাওয়ায় টিকে থাকতে পারবে, ততক্ষণ সেটা অন্যদের সংক্রমিত করতে পারবে এবং মহামারি হয়ে উঠতে পারবে।``

তিনি বলছেন, করোনাভাইরাসের বিশ্বব্যাপী বিস্তার পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে, প্রধানত ঠাণ্ডা এবং শুষ্ক আবহাওয়ায় সেটির বিস্তার বেশি হয়েছে।

তিনি বিশ্বাস করেন, তাপমাত্রা ও আর্দ্রতার সঙ্গে যদি আগের করোনাভাইরাসগুলোর মতো কোভিড-১৯ একই আচরণ করে, তাহলে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের আবহাওয়ার সঙ্গে তাল রেখে তার বিস্তারের পার্থক্য হবে। তবে এ ক্ষেত্রে মানুষের আচরণও অনেক ক্ষেত্রে ভুমিকা রাখবে।

``তবে সবক্ষেত্রে একই রকম দেখা যাবে না। কারণ একজনের শরীর থেকে আরেকজনের শরীরে এই ভাইরাস ছড়িয়ে থাকে। ফলে যেসব স্থানে বেশি মানুষ থাকবে, তারা যত বেশি মেলামেশা করবে, সেখানে সংক্রমণের হারও বেশি হবে। ``

যদিও ঠাণ্ডা আবহাওয়ার দেশগুলোয় ভাইরাসের বিস্তার বেশি দেখা গেছে, কিন্তু গ্রীষ্মপ্রধান দেশগুলোতেও ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে।

তবে এশিয়ায় ভাইরাসের বিস্তার নিয়ে হার্ভাড মেডিকেল স্কুলের গবেষণায় দেখা গেছে, যতটা ভাবা হয়েছিল, ভাইরাসের ওপর আবহাওয়ার প্রভাব তার চেয়ে কম।

তারা বলছেন, চীনের জিলিন ও হেইলংজিয়াঙ্গ এর মতো ঠাণ্ডা এলাকায় যেমন ভাইরাসের বিস্তার দেখা গেছে, তেমনি গুয়াংজি এবং সিঙ্গাপুরের মতো গ্রীষ্মপ্রধান এলাকাতেও সেরকম বিস্তার দেখা গেছে। সুতরাং বসন্ত বা গ্রীষ্মের মতো আবহাওয়া এই কোভিড-১৯ রোগ সংক্রমণ ঠেকাতে ততটা কার্যকরী নয়।

ফলে তারা জনস্বাস্থ্য সতর্কতার বিষয়গুলো কার্যকরের ওপর বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন।

কারণ হিসাবে বলছেন, ভাইরাসটি পরিবেশে কতক্ষণ টিকে থাকতে পারে, শুধু তার ওপর ভাইরাসের বিস্তার নির্ভর করে না। কোভিড-১৯ ভাইরাস যেমন মানুষ থেকে মানুষে ছড়িয়ে পড়ছে। সুতরাং মানুষের আচরণের ওপর ভাইরাসের বিস্তারের বিষয়টি অনেকাংশে নির্ভর করছে।

সুত্র- বিবিসি বাংলা

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2020. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close