২৬ মে ২০২০, মঙ্গলবার ১০:৪৫:৫৩ পিএম
সর্বশেষ:
পরিচয় নিশ্চিত না হয়ে কাউকে ঘরে ঢুকাবেন না, কোনো সন্দেহ হলে নিকটস্থ থানাকে অবহিত করুন অথবা ৯৯৯ কল করুন: পুলিশ সদর দপ্তর           

০৮ মে ২০২০ ১১:৫০:৩৬ পিএম শুক্রবার     Print this E-mail this

ইফতারের মাহাত্ম্য

আলহাজ্ব মুফতী মুহাম্মদ খোরশেদ আলম
বাংলার চোখ
 ইফতারের মাহাত্ম্য

পবিত্র মাহে রমজান ইবাদতের মাস। এ মাসে রোজা ও তারাবীহ নামাজ ছাড়া আরও অনেক আমল আছে যার মাধ্যমে বান্দা আল্লাহর নৈকট্য হাসিল করতে পারে এবং আল্লাহর কাছ থেকে পেতে পারে অনাবিল রহমত ও আনন্দ। যেহেতু রোজা আল্লাহর জন্যই রাখা হয়, তাই এর পুরস্কারও আল্লাহ তায়ালাই দেন। রোজাদারের জন্য অনেক পুরস্কার রাখা হয়েছে। তন্মধ্যে কিছু পুরস্কার পরকালে দেওয়া হবে, আর কিছু পুরস্কার দেওয়া হবে ইহকালে। সারাদিন রোজা রাখার পর বান্দা সন্ধ্যার সময় যে ইফতার করে সেটাও আল্লাহর পক্ষ থেকে বিশাল এক পুরস্কার ও আনন্দ। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, রোজাদার ব্যক্তির জন্য দুটি আনন্দ রয়েছে। একটি আনন্দ ইফতারের সময়, অপরটি আল্লাহর সাথে মোলাকাতের সময়। এখানে ইফতারের সময়কে আনন্দ বলতে বান্দা যখন ইফতার করে তা বুঝানো হয়েছে। কেননা সারাদিন রোজা রেখে ক্ষুধার্ত শরীর আর তৃষ্ণার্ত বুক নিয়ে যখন খাবার সামনে নিয়ে বসে থাকার পর নির্ধারিত সময়ে এক চুমুক পানি পান করা হয় তখন সত্যিই বান্দা অপার এক আনন্দ উপভোগ করেন।
সময় হওয়ার সাথে সাথে তাড়াতাড়ি ইফতার করতে হয়। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, মানুষ ততদিন কল্যাণের উপর থাকবে, যতদিন পর্যন্ত তারা তাড়াতাড়ি ইফতার করবে। (বুখারী, মুসলিম)
হযরত আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, নিশ্চয়ই আমার বান্দাদের মধ্যে তারাই আমার কাছে বেশি প্রিয়, যারা তাড়াতাড়ি ইফতার করে। (তিরমিজী)
হযরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত অপর এক হাদীসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ইসলাম ততদিন পর্যন্ত বিজয়ী থাকবে যতদিন মুসলমানগণ তাড়াতাড়ি ইফতার করবে। কেননা ইহুদী ও নাসারাগণ ইফতার পিছিয়ে দেয়। (আবু দাউদ)
ইফতারের জন্য মাগরিবের নামাজ পরে পড়তে হয়। এক্ষেত্রে ইফতারের গুরুত্ব অপরিসীম। হযরত আনাস ইবনে মালেক রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে ইফতার না করে মাগরিবের নামাজ আদায় করতে দেখিনি। সামান্য পানি দিয়ে হলেও তিনি আগে ইফতার করে নিতেন।
ইফতারের জন্য আহামরি আয়োজনের কোন প্রয়োজন নেই। খেজুর বা পানি পরিমাণে অল্প হলেও ইফতার হিসেবে তা অত্যন্ত বরকতের বস্তু। হযরত সালমান ইবনে আমের দাব্বী রা.-এর সূত্রে নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, তোমাদের কেউ যখন ইফতার করে, তখন যেন খেজুর দিয়ে ইফতার করে। কেননা এটি বরকতের বস্তু। আর যদি খেজুর না পায়, তবে যেন পানি দিয়ে ইফতার করে নেয়। কেননা এটি পবিত্রকারী। (আবু দাউদ)
রোজাদার ব্যক্তিকে ইফতার করানোতেও ফজীলত রয়েছে। যেমন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি রমজান মাসে কোন রোজাদারকে ইফতার করাবে তার যাবতীয় গুনাহ মাফ হয়ে যাবে এবং দোজখের আগুন থেকে সে নাজাত পাবে। আর সে ঐ রোজাদারের সমান সওয়াব পাবে। অথচ এতে ঐ রোজাদারের সওয়াব মোটেও কমবে না। সাহাবারা আরজ করলেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ! আমাদের মধ্যে সকলের তো রোজাদারকে ইফতার করাবার সামর্থ্য নেই। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জবাবে বললেন, যে ব্যক্তি কোনও রোজাদারকে এক ঢোক দুধ কিংবা একটি খেজুর অথবা একটু পানিও পান করাবে আল্লাহ তায়ালা তাকে উক্ত রূপ সওয়াব দান করবেন। আর যে ব্যক্তি কোন রোজাদারকে তৃপ্তির সাথে আহার করাবে আল্লাহ তায়ালা তাকে আমার হাউজে কাওসারের এমন পানি পান করাবেন যে, বেহেশতে প্রবেশ পর্যন্ত সে আর পিপাসা অনুভব করবে না।
অন্যকে ইফতার করানোর রীতি এবং ইফতার মাহফিল এ হাদীসকে কেন্দ্র করেই চালু হয়েছে। তবে দুঃখের বিষয় অধিকাংশ ক্ষেত্রে ইফতার মাহফিল আজ নিছক সংস্কৃতিতে পরিণত হয়েছে। সেখানে ইবাদত অর্থাৎ একজন রোজাদারকে খাওয়ানো হচ্ছে এমন ভাবের লেশমাত্র থাকে না। এটা মোটেই কাম্য নয়। আল্লাহ আমাদের সকলকে সুমতি দান করুন।
লেখক : সিনিয়র শিক্ষক, দারুল উলুম কাকরাইল, রমনা, ঢাকা

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2020. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close