২৪ অক্টোবর ২০২০, শনিবার ০৯:২৭:৩২ পিএম
সর্বশেষ:

০৫ অক্টোবর ২০২০ ০৫:১৫:৪১ পিএম সোমবার     Print this E-mail this

ঘরে-বাইরে, বর্ডার থেকে বেডরুম সর্বত্র নিরাপত্তা নিশ্চিত কর:নারী সংহতি

প্রেস ডেক্স
বাংলার চোখ
 ঘরে-বাইরে, বর্ডার থেকে বেডরুম সর্বত্র নিরাপত্তা নিশ্চিত কর:নারী সংহতি

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার এখলাশপুরে নারী নির্যাতকদের বিচার ও শাস্তি চাই
নির্যাতিত নারী ও তার পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত কর
ধর্ষণের প্রশ্রয়দানকারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ করতে হবে
গত সেপ্টেম্বর মাসে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার এখলাশপুর ইউনিয়নে এক নারীকে বিবস্ত্র করে নির্মমভাবে নির্যাতন করেছে কয়েকজন স্থানীয় সন্ত্রাসী। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা, ঘৃণা ও ক্ষোভ জানিয়েছে নারী সংহতি।

নারী সংহতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তাসলিমা আখ্্তার ও সাধারণ সম্পাদক অপরাজিতা চন্দ এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, নোয়াখালীতে নারী নির্যাতনের এ ঘটনা অতীতের সব যৌন সন্ত্রাস ও নির্মমতাকে ছাপিয়ে গেছে। এক নারীকে বিবস্ত্র করে সন্ত্রাসীরা এর ভিডিও করেছে এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। সম্প্রতি এই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ায় তা জানতে পারে দেশবাসী। নির্যাতিত নারী মামলা করলেও তারা প্রভাবশালীদের ভয়ে নিজ এলাকায় বসবাস করতে পারছে না।

নারী সংহতির নেতারা বলেন, পত্রিকার খবর অনুযায়ী, গত নয় মাসে এক হাজারের বেশি নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। ভোটবিহীন নির্বাচনের পর পরই সুবর্ণচরে নারীকে ধর্ষণ করা হয়। গত মাসেই সিলেটের এমসি কলেজে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা এক নারীকে ধর্ষণ করেছে। আর খাগড়াছড়িতে প্রভাবশালীরা ধর্ষণ করেছে এক প্রতিবন্ধী নারীকে। ২০১৬ সালে কুমিল্লা সেনানিবাসে সোহাগী জাহান তনু ধর্ষণ-হত্যার ঘটনায় অপরাধীদের এখনো চিহ্নিত করেনি সরকার। ২০১৮ সালে রাঙামাটির বিলাইছড়ির ওড়াছড়ি গ্রামে মারমা দুই বোনকে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতন করে। ধারাবাহিকভাবে নারীর ওপর নিপীড়ন-ধর্ষণ চলছে। কোনো ঘটনারই বিচার হয়নি।

নেতৃবৃন্দ বলেন, এই সরকারের কোনো বৈধতাই নেই। ভোটবিহীন সরকারের কাছে নারী-পুরুষ-শ্রমিক-শিশু কেউই নিরাপদ নয়। এই রাষ্ট্র নারীর নিরাপত্তা দিতে যেমন ব্যর্থ তেমনি নাগরিক অধিকারও এখানে নেই। প্রশাসন ও পুলিশের সহায়তায় ক্ষমতাসীন দল নিজেদের দলীয় ক্ষমতাকে ব্যবহার করছে। নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছে সরকার। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পরোক্ষভাবে ধর্ষকদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। জনগণের করের টাকায় পালিত রাষ্ট্রীয় বাহিনী জনগণকে নিরাপত্তা তো দিচ্ছেই না, বরং সমতলে-পাহাড়ে ধর্ষণ-যৌন সন্ত্রাস চালাচ্ছে। নিপীড়িত ও তাদের সহায়তাদানকারীদের ওপর হামলা ও সে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। এখানে সন্ত্রাসীদের বিচার ও শাস্তি হয় না। এ নিষ্ঠুর বাস্তবতায় নোয়াখালীতে নারীকে বিবস্ত্র করে নৃশংসভাবে নিপীড়ন মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশের জন্য একটি অপমানের বিষয়। একইসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের বিপরীতে হাঁটা বিদ্যমান রাষ্ট্রের পুরুষতান্ত্রিক নিপীড়নমূলক ক্ষমতা কাঠামো ও বিচারহীনতার অশালীন বহিঃপ্রকাশ।

বিবৃতিতে নারী সংহতির নেতারা নোয়াখালীতে নারী নির্যাতনে যুক্ত অপরাধীদের সবাইকে আটক করে উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানান। একইসঙ্গে পাড়ায় মহল্লায় নারী নির্যাতন প্রতিরোধে কমিটি গঠন করার আহ্বান জানান।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2020. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close