১৯ নভেম্বর ২০১৭, রবিবার ০১:২৫:০৭ এএম
সর্বশেষ:

০৯ নভেম্বর ২০১৭ ০৯:২০:০৩ পিএম বৃহস্পতিবার     Print this E-mail this

লক্ষ্মীপুর-২ আসনে ছাড় দিবেনা আঃলীগ

বিশেষ প্রতিনিধি, বাংলার চোখ
বাংলার চোখ
 লক্ষ্মীপুর-২ আসনে ছাড় দিবেনা আঃলীগ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ আগাম ভোটের হিসেব-নিকেশ কষতে শুরু করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় লক্ষ্মীপুর -২ (রায়পুর) সংসদীয় আসন চষে বেড়াচ্ছেন দশম জাতীয় সংসদের আঃলীগ থেকে মনোনীত প্রার্থী এসেনসিয়াল ড্রাগ এর এমডি প্রফেসর ডাঃ এহসানুল কবির জগলুল। পাল্টাপাল্টি শোডাউনে ব্যস্ত রেখেছে আরেক প্রবাসী প্রার্থী পাপুলও। সম্প্রতি আওয়ামীলীগর ১৫১টি আসনের দলীয় প্রার্থী প্রাথমিকভাবে চূড়ান্ত করলেও এরমধ্যে লক্ষ্মীপুরের একটি আসনের প্রার্থীর নামও নেই আঃলীগের। ২০১৩ সালের ৫ জানুয়ারির দশম নির্বাচনে আওয়ামীলীগ জোট লক্ষ্মীপুরের চারটি আসনে  বিজয়ী হয়। এর মধ্যে লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর ও সদরের একাংশ) জাতীয় পার্টি ও লক্ষ্মীপুর-৩(সদর) আসনের বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় এমপি নির্বাচিত হন। আওয়ামীলীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটগত কারনে রামগঞ্জ আসনের তরিকত ফেডারেশনের মহা-সচিব লায়ন এম এ আওয়াল ও রায়পুর আসনে জাতীয় পার্টির মোহাম্মদ নোমানকে মনোনয়ন দেওয়া হয়।

স্থানীয় সূত্রগুলোর ভাষ্যমতে, আওয়ামীলীগ প্রাথমিকভাবে প্রার্থী নির্বাচন করলেও লক্ষ্মীপুরের বিষয়ে একক কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি। তবে দলের হাইকমান্ড বলছে জোটগত ভাবে নির্বাচন করতে হলে লক্ষ্মীপুর ১ এবং ২ শরীকদের ছাড় দিতেই হবে। সেক্ষেত্রে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আঃলীগের মনোনীত প্রার্থী ডাঃ  এহসানুল কবির জগলুল ও নবাগত প্রার্থী  কুয়েতি ধনকুব পাপুলের কপাল পুড়তে পারে। এদিকে মহাজোটের এমপি মোহাম্মদ নোমান নিজ এলাকায় নৌ -বন্দর, হাইওয়ে সড়ক সম্প্রসারণ প্রকল্প, রেল লাইন প্রকল্পে জোরালো ভূমিকা, বিদ্যুৎ এর সাব - স্টেশন নির্মান, বেড়ীবাঁধ প্রকল্প সহ অনেক প্রকল্পে অনুমোদন করায় এবং জনগনের কাছে উন্নয়ন এর চিত্র পৌছে দেয়ায় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর সহ মনোনয়ন বোর্ড পর্যন্ত আলোচিত মুখ হয়ে উঠেন এমপি নোমান।

লক্ষ্মীপুর-৩(সদর)আসনের সংসদ সদস্য একেএম শাহাজান কামাল ও লক্ষ্মীপুর-৪(রামগতি-কমলনগর) আসনে মো. আব্দুল্লাহ(আব্দুল্লাহ আল মামুন) আগামি সংসদ নির্বাচনের দলের মনোনয়ন পেতে ‘গুডলিষ্ট’ এ নাম এখনো নাম উঠাতে পারেননি।সূত্রগুলো বলছে, সরকার লক্ষ্মীপুরসহ দেশব্যাপি ব্যাপক উন্নয়ন করলেও এসব এমপিরা তৃনমূল পর্যায়ে জনগনের কাছে তা যথাযথভাবে তুলে ধরলে পারেননি।এতে সংসদীয় এলাকার জনগণ ও দলের উচ্চ পর্যায়ে দু’এমপি আস্থাহীনতা রয়েছেন।
গত ২৭ অক্টোবর দৈনিক আমাদের পত্রিকায় এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ১৫১ আসনে দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্ত করেছে আওয়ামী লীগ। সরকারি-বেসরকারি একাধিক জরিপের মাধ্যমে নামগুলো বাছাই করা হয়েছে। একাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা

করার জন্য এ ১৫১ প্রার্থী প্রস্তুতি নিচ্ছেন। চূড়ান্ত তালিকায় যারা রয়েছেন তাদের অনেককেই ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড থেকে মনোনয়নের বিষয়টি জানিয়ে নির্বাচনী এলাকায় জনসংযোগ করতে বলা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র খবরটি নিশ্চিত করেছে।

আমাদের সময়ের সাথে আলাপকালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের একাধিক সদস্যের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আগামী নির্বাচনে আসনভিত্তিক একাধিক জরিপ করা হয়। সরকারের বিভিন্ন সংস্থা, জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, বেসরকারি গবেষণা সংস্থা, দলীয় বিভিন্ন শাখার মাধ্যমে জরিপগুলো চালানো হয়েছে। সব জরিপের ফল একসঙ্গে বিশ্লেষণ করে কিছু আসনের প্রার্থী প্রাথমিকভাবে চূড়ান্ত করা হয়েছে। যেসব আসনে মনোনয়ন পরিবর্তন হতে পারে এখন ওই আসনগুলো নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ চলছে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
কার্যালয়
চৌধুরী কমপ্লেক্স, ৫০/এফ, ইনার সার্কুলার (ভিআইপি) রোড, নয়াপল্টন, ঢাকা-১০০০।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-৭১২৬৩৬৯
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2017. All rights reserved by Banglar Chokh
Developed by eMythMakers.com
Close