১৯ নভেম্বর ২০১৭, রবিবার ০১:১৬:১৭ এএম
সর্বশেষ:

১১ নভেম্বর ২০১৭ ০৭:৪৭:৫৩ পিএম শনিবার     Print this E-mail this

সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুলে কোচিং না করায় ফরম ফিলাপ করতে দিচ্ছে না

সিদ্ধিরগঞ্জ অফিস
বাংলার চোখ
 সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুলে কোচিং না করায়  ফরম ফিলাপ করতে দিচ্ছে না

 নাসিক ১০’নং ওয়ার্ড গোদনাইল লক্ষীনারায়ণ কটনস মিলস উচ্চ বিদ্যালয়ের শতাধিক এস.এস.সি পরীক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ ধ্বংসের পথে। স্কুলে কোচিং না করায় এসব শিক্ষার্থীদের টেস্ট পরীক্ষায় একাধিক সাবজেক্টে অকৃতকার্য দেখিয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ তাদের এস.এস.সি পরীক্ষার ফরম ফিলাপ করতে দিচ্ছে না। যেসব শিক্ষার্থী স্কুলে কোচিং করেছে তারা চার সাবজেক্টে অকৃতকার্য হওয়ার পরও সাবজেক্ট প্রতি ৫’শ টাকা করে জরিমানা নিয়ে ফরম ফিলাপ করার অনুমতি প্রদান করা হচ্ছে। এতে অন্য শিক্ষার্থী ও তাদের অভিবাবকদের মাঝে দেখা দিয়েছে চরম ক্ষোভ। এ নিয়ে গতকাল শনিবার শতাধিক শিক্ষার্থী ও তাদের অভিবাকরা স্কুলে গিয়ে হট্টগোল করে।
জানা গেছে, লক্ষীনারায়ণ কটনস মিলস উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর মোট ৪শ’ ২’জন শিক্ষার্থী টেস্ট পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে। পরীক্ষায় মাত্র ৬৮’জন শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়। আর বাকী ৩শ’ ৩৪’জন শিক্ষার্থী টেস্ট পরীক্ষায় একাধিক বিষয়ে ফেল করে।
অভিযোগ জানা গেছে, ফেল করা ৩শ’ ৩৪’জন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে অর্থবাণিজ্য করার মিশন শুরু করে স্কুলের প্রধান শিক্ষক বিকাশ চন্দ্র দাস ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা। তারা সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন, ফেল করা প্রতি বিষয়ের জন্য ৫’শ টাকা করে জরিমানা আদায় করে এস.এস.সি পরীক্ষার ফরম ফিলাপ করার সুযোগ প্রদান করা হবে। সুযোগ প্রদান করা নিয়েও শুরু হয় স্বজনপ্রিতি। যারা স্কুলে কোচিং করেছে তারা ৪’বিষয়ে ফেল করলেও নির্ধারিত আড়াইহাজার টাকার সাথে আরো ২’হাজার টাকা করে অতিরিক্ত আদায় করে ফরম ফিলাপের সুযোগ দিচ্ছে। কিন্তু যারা স্কুলে কোচিং করে নাই তারা জরিমানা দিতে রাজি হলেও স্কুল কর্তৃপক্ষ তাদেরকে ফরম ফিলাপ করার সুযোগ দিচ্ছেন না। এতে ঐ স্কুলের ১শ’ ২’জন শিক্ষার্থী এস.এস.সি পরীক্ষার ফরম ফিলাপ করার সুযোগ পাচ্ছে না। ফলে তাদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তার মধ্যে পরেছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০’টায় ফরম ফিলাপ করার সুযোগ না পাওয়া শতাধিক শিক্ষার্থী ও তাদের অভিবাকরা স্কুলে গিয়ে হট্টগোল শুরু করে। খবর পেয়ে স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীরা স্কুলে ছুটে গেলে শিক্ষার্থীরা স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ উত্থাপন করে।
এ বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক বিকাশ চন্দ্র দাস এর সাথে কথা হলে তিনি গণমাধ্যম কর্মীদের জানান, টেস্ট পরীক্ষায় ৪শ’ ২’জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৬৮’জন কৃতকার্য হয়। ফেল করা বাকী ৩শ’ ৩৪’জন শিক্ষার্থীদের বিষয়ে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও অভিবাবক প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে যারা ৪’বিষয় পর্যন্ত ফেল করেছে তাদেরকে ফরম ফিলাপ করা সুযোগ প্রদান করা হবে। চার বিষয়ের অধিক বিষয়ে অকৃতকার্য শিক্ষার্থীদের ফরম ফিলাপ করা হবে না। ফেল করা সাবজেক্ট প্রতি ৫’শ টাকা করে আদায় করার সত্যতা স্বীকার করে প্রধান শিক্ষক বলেন, ঐ টাকা স্কুলের তহবিলে জমা করা হবে। এসময় ম্যানেজিং কমিটির অভিবাবক প্রতিনিধি মোঃ সালাউদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান শিক্ষকের দেওয়া হিসেব মতে ফেল করা ৩শ’ ৩৪’জনের মধ্যে ২শ’ ৩২’জনের কাছ থেকে প্রায় অতিরিক্ত আদায় করা হচ্ছে সাড়ে ৪’লাখ টাকা। চারের অধিক বিষয়ে ফেল করা শিক্ষার্থীরা ক্ষোভের সাথে প্রশ্ন তুলেছে, টাকার বিনিময়ে অন্যরা ফরম ফিলাপ করার সুযোগ পেলে আমরা কেন পাবনা ?।


সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
কার্যালয়
চৌধুরী কমপ্লেক্স, ৫০/এফ, ইনার সার্কুলার (ভিআইপি) রোড, নয়াপল্টন, ঢাকা-১০০০।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-৭১২৬৩৬৯
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2017. All rights reserved by Banglar Chokh
Developed by eMythMakers.com
Close