banglarchokh Logo

স্কটল্যান্ডকে ১৩ রানে হারিয়ে সেমিতে বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেক্স
বাংলার চোখ
 স্কটল্যান্ডকে ১৩ রানে হারিয়ে সেমিতে বাংলাদেশ

টানা তিন জয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাইয়ের সেমিফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ। আরেকটি বিশ্বকাপের মঞ্চে খেলার দিকে ভালোভাবেই এগিয়ে যাচ্ছে টিম টাইগ্রেস। মঙ্গলবার স্কটল্যান্ডকে বৃষ্টি আইনে ১৩ রানে হারিয়েছে লাল-সবুজের মেয়েরা।

গ্রুপ এ-তে তিন জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বাংলাদেশ। দুইয়ে পাপুয়া নিউগিনি ৪ পয়েন্টে। গ্রুপ বি-তে ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাইল্যান্ড। আর ৪ পয়েন্টে দুইয়ে আয়ারল্যান্ড। এই গ্রুপের রানার্সআপ আইরিশ মেয়েরাই সেমিতে প্রতিপক্ষ হচ্ছে বাংলাদেশের। যেখানে জিতলেই টানা চতুর্থবার বিশ্বকাপের মঞ্চে যাবে লাল-সবুজের মেয়েরা।
গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে শুরুতে ব্যাট করে বাংলাদেশ। বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে ১৭ ওভারে নেমে আসা ইনিংসে ৪ উইকেটে ১০৪ রান তোলে টিম টাইগ্রেস। বৃষ্টি আইনে স্কটিশ মেয়েদের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৮ ওভারে ৬৩। তারা ৬ উইকেটে ৪৯ রান পর্যন্ত যেতে পেরেছে শেষঅবধি।

স্কটল্যান্ডের ডান্ডিতে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। শুরুটা ভালো হয়নি সালমা খাতুনের দলের। ১৬ রানে প্রথম আউট হন সানজিদা ইসলাম (৪)।


দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ৩১ তুলে অবশ্য পরিস্থিতি সামাল দেন মুর্শিদা খাতুন ও নিগার সুলতানা। ২৬ রান করে মুর্শিদা ফেরার পর দ্রুত ফেরেন ঋতু মনি (৪)।

পরে নিগারের সঙ্গে ৩৯ রানের জুটি গড়ে বাংলাদেশের স্কোর সেঞ্চুরিতে পৌঁছে দেন ফারজানা হক (২৩)।

ফারজানা ফেরার পর ফাহিমা খাতুনকে নিয়ে নিগার যখন নতুন একটি জুটি গড়ার দিকে ছুটছেন, তখনই শুরু হয় বৃষ্টি। তখন ১৭ ওভারে ৪ উইকেটে বাংলাদেশ ১০৪ রানে। বিরতির পর খেলা শুরু হলেও সালমাদের ইনিংস সেখানেই থামে।

জবাব দিতে নেমে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়েছে স্কটল্যান্ড। তাদের আউট হওয়া ছয় ব্যাটারের কেবল একজন দুঅঙ্ক ছুঁতে পেরেছেন। অধিনায়ক ক্যাথরিন ব্রেসির ব্যাটে এসেছে ২১ রান।

বাংলাদেশের হয়ে একটি করে উইকেট নিয়েছেন নাহিদা, রিতু ও খাদিজাতুল কুবরা। বাকি তিন উইকেট এসেছে রানআউটে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কপিরাইট © 2019 বাংলারচোখ.কম কর্তৃক সর্ব স্বত্ব ® সংরক্ষিত। Developed by eMythMakers.com