banglarchokh Logo

টেকনাফে এবার বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত

আমান উল্লাহ কবির , টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 টেকনাফে এবার বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এবার রোহিঙ্গা স্বামী স্ত্রী নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন,  লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সি ব্লকের মৃত কাদের হোছাইনের ছেলে দিল মোহাম্মদ (৩২)  তার স্ত্রী জাহেদা বেগম (২৭)।   ঘটনাস্থল থেকে থেকে দুইটি এলজি, একটি থ্রি কোয়ার্টার, আটটি তাজা কার্তূজ ও ১২ রাউন্ড কার্তূজের খোসা উদ্ধার করা হয়।
২২ সেপ্টেম্বর রাত ১ টার দিকে হ্নীলা ইউনিয়নের  লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ী এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়েছে বলে দাবি পুলিশের। এরা হলেন, এসআই নিজাম, কনস্টেবল শাহাদত ও সুদর্শন।    
টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রদীপ কুমার দাস  জানান,গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার রাত ৯ টার দিকে লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সি ব্লকে যৌথ বাহিনী অভিযান পরিচালনা করে একটি থ্রি কোয়ার্টারসহ ওই দম্পতিকে  আটক করা হয়। ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তারা নিজেদের কাছে আরো অস্ত্র ও অপর সহযোগি ডাকাত শফিউল্লাহ শফির কাছে অস্ত্র মজুদ থাকার কথা জানায়।  পরে ১ টার দিকে তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ওই ক্যাম্পের সি ব্লকে বাড়ীর পার্শ্বে গোপন স্থানে লুকিয়ে রাখা অস্ত্র উদ্ধারে পুলিশের একটি টিম  অভিযানে যায়।  পুলিশের  উপস্থিতি টের পেয়ে তাদের সহযোগীরা আসামিদের ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে। এসময় পুলিশের তিন সদস্য আহত হন। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুঁড়লে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে দুইজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা হাসপাতাল নিয়ে গেলে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কর্তব্যরত চিকিৎসক জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরে মরদেহগুলো হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়।
ঘটনাস্থল থেকে দুটি এলজি, ৮ রাউন্ড তাজা কার্তুজ,১২ রাউন্ড কার্তুজের খালি খোসা উদ্ধার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে  বলেও  জানান ওসি।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কপিরাইট © 2019 বাংলারচোখ.কম কর্তৃক সর্ব স্বত্ব ® সংরক্ষিত। Developed by eMythMakers.com