Banglar Chokh | বাংলার চোখ

তাহিরপুরে অফিস সহায়ককে হুমকি, সচেতন মহলের ক্ষোভ

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ২১:৪৮, ৪ ডিসেম্বর ২০২২

তাহিরপুরে অফিস সহায়ককে হুমকি, সচেতন মহলের ক্ষোভ

.

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা হিসাব রক্ষন অফিসে মাসব্যাপী পাঠক হিসেবে সমকাল পত্রিকা না রাখায় অফিস সহায়ককে জড়িয়ে হিসাব রক্ষন অফিসের বিরুদ্ধে মিথ্যা বানোয়াট ও মনগড়া সংবাদ তৈরী করে অপপ্রচার চালানোর অভিযোগ উঠেছে।  এতে করে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা ও সচেতন মহলের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

সম্প্রতি একটি স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় উপজেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা অফিসের লোহার গ্রিল বিক্রি করা হয়েছে বলে উদ্দেশ্য প্রনোদিত একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলা হিসাব রক্ষন অফিসে একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকা নিয়মিত না রাখাকে কেন্দ্র করে একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয় । যা সম্পূর্ণ মিথ্যা,বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত বলে  জানান হিসাব রক্ষন অফিসের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাগন।

তাহিরপুর উপজেলা হিসাব রক্ষন অফিসের অফিস সহায়ক ইয়াহিয়া জানান, অফিসে দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকা রাখা হয় প্রথম আলো পত্রিকা বাদ দিয়ে স্থানীয় সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম সমকাল পত্রিকা রাখার জন্য বলেন। এছাড়াও অনৈতিক ভাবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের তথ্য দিতে ও তাকে অনৈতিক সুবিধা দিতে আমিনুল দাবী করে। এতে অফিস সহায়ক ইয়াহিয়া রাজি না হওয়ায় তার বিরুদ্ধে ও  প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মিথ্যা বানোয়াট ও আক্রোশ মুলক সংবাদ প্রকাশ করছে। 

উপজেলা হিসাব রক্ষন অফিসের অফিস সহায়ক মোঃ ইয়াহিয়া আরো জানান,গত দু বছর ধরে অফিস ষ্টোর রুমে রাখা ছিল। আর অফিসে নতুন দু,জন অফিসার আসায় রুম বড় করার জন্য অফিসের গ্রিল কেটে ছোট করা হয়। এ কাজটি করা হয়েছে গত বৃহস্পতিবার কিন্তু আমাকে ও প্রতিষ্ঠানকে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য ও বিতর্কিত করার জন্য মঙ্গলবার উল্লেখ করে মিথ্যা বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করেছে দৈনিক সমকাল পত্রিকার তাহিরপুর উপজেলা প্রতিনিধি আমিনুল ইসলাম ও তার সহযোগিরা।সংবাদের ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী সাজু নাম উল্লেখ করা হলেও এই নামে কোন ব্যবসায়ী নেই। তা প্রমান করতে পারবে না। এছাড়াও আমিনুল ইসলাম আমাকে এই অফিসে কিভাবে চাকরী করি তা দেখে নেবার হুমকি দেয়। আমি আইনের আশ্রয় নিব। ইতিপূর্বেও  প্রশাসনকে বির্তকিত করে সংবাদ প্রকাশ করছে সে।

গ্রিল কাটার  রেনু মিয়া জানান,আমি বৃহস্পতিবার গ্রিল কেটে ছোট করার কাজটি করে অফিসের ভিতরেই সেগুলো রাখি। পরের দিন শুনি এই ঘটনাকে নাটকীয় ভাবে গ্রিল বিক্রি করা হয়েছে বলে সংবাদ প্রকাশ করা হয়। 

এ বিষয়ে উপজেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা শাহ আলম জানান,গ্রিল বিক্রির কোনো ঘটনাই ঘটে নি। অফিসেই আছে তবে বড় থাকায় কেটে ছোট করেই অফিসেই রাখা হয়েছে।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুপ্রভাত চাকমা জানান,এই বিষয়ে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়