Banglar Chokh | বাংলার চোখ

বকুল হত্যায় দোষীদের শাস্তির দাবী

চরফ্যাশন (ভোলা) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২১:৫৯, ৫ ডিসেম্বর ২০২২

বকুল হত্যায় দোষীদের শাস্তির দাবী

.

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার দুলারহাট থানার মুজিব নগর ইউনিয়নে সিকদারের চর ৯ নং ওয়ার্ডে ২৯ নভেম্বর গভীর রাতে এক  গৃহিণীকে কুপিয়ে হত্যার ৩ দিন পর এলাকার চৌকিদার বাদী হয়ে অজ্ঞাত নামা বিবাদী করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।দূলারহাট থানা ওসি অভিযোগটি এজাহার হিসেবে গণ্য করেছেন।
এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় বাচ্চু মেলকার ইউপি সদস্য মালেক গংদের সাথে শাহজাহান সর্দার ও স্বপনদের দীর্ঘ বছরের বিরোধকে পুজিঁ করে একটি চক্র শাহজাহান সর্দারের ছেলে জুয়েল, সোহেল, মিঠু, আসমান ও ছিদ্দিক হাওলাদেরর সম্পৃক্ততার কথা অপপ্রচার করে ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত চেষ্টা করে।        
এ ঘটনায় শাহজাহান সর্দারের ছেলে আল মাহমুদুল হাসান (মামুন) প্রধানমন্ত্রী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী,  ভোলা-৪ আসনের সংসদ সদস্য,  জেলা প্রশাসক ভোলা,  জেলা পুলিশ সুপার  ভোলার নিকট  বকুল হত্যা ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবী করে প্রকৃত অপরাধীদের  গ্্েরপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির সোমবার  লিখিত দাবী জানিয়েছেন।  লিখিত দাবীতে তিনি উল্লেখ করেন, হত্যাকান্ডকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে আমাদেরকে মিথ্যা হয়রাণীর চেষ্টা।  
আমাদের পুর্ব পুরূষ গন এ জমি ভোগ দখল করতেন। নদীতে বিলীন হয়ে আবার ৫০/৬০বছর পুর্বে  চর জাগলে  সিকদারের চর নামকরণ করা হয়। তখন আমাদের দলিল ও আদালতে মামলাল রায় অনুয়ায়ী আমরা ভোগ দখল করতে থাকি।
আমাদের ভোগদখলীয় জমি জোর পুর্বক কিছু অংশ বাচ্চু, আলম,মন্নান,কবির,সাত্তার,সেলিম, সিরাজ,কাঞ্চন,আলী আহম্মদ, রফিক গংরা দখল করে এ্যাসিড ও ঘর পোড়া  মামলার নাটক সাজায়। মামলা গুলো মিথ্যা প্রমাণিত হয়।     ৬৬২টি  খতিয়ান সৃজন করে  ৮ ও ১২ বই আকারে বাধাই করে অফিসে রাখে। বিষয়টি জানাজানি হলে শাহজাহান সর্দার বাদী হয়ে ০৩.০৬.২০১৮খ্রিঃ তারিখে ৬৮৯নং স্মারকে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করলে  সহকারী কমিশনার ( ভুমি) আবি আবদুল্লাহ খান  ৪৯১নং স্মারকে জেলা প্রশাসক ভোলাকে ৬৬২ খতিয়ান রেজিষ্টিরী ছাড়াই খতিয়ান ও নম্বর  ব্যবহার করার  বিষয়ে অবহিত করেন।  বিভাগীয় কমিশনার রাজস্ব ২০ মার্চ ২২ জেলা প্রশাসক রাজস্ব ভোলাকে ৬৬২টি খতিয়ান বাতিলের নির্দেশ দেন।  জাল জালিয়াতি করে খতিয়ান ও ৮/১২ বই তৈরি করার অপরাধে তাদের বিরুদ্ধে ৭১০/২২ (চর) মামলা চলমান রয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় আমাদেরকে পরিকল্পিত ভাবে হয়রাণীর উদ্দেশ্যে বকুলকে হত্যা করে।  
দুলারহাট থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, ২ ডিসেম্বর  রাত  ৯.৩০ ঘটিকার সময় সিকদারের চর  ৯নং ওয়ার্ডের চৌকিদার অলি অজ্ঞাত নামা অভিযোগ দাখিল করলে আমি তা এজাহার হিসেবে গন্য করে রেকর্ড করেছি। যার নং ১ তারিখ ২ ডিসেম্বর ২২।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়