Banglar Chokh | বাংলার চোখ

৬ ডিসেম্বর ফেনী মুক্ত দিবস 

মোস্তফা কামাল বুলবুল,ফেনী থেকে

প্রকাশিত: ১৮:১৯, ৬ ডিসেম্বর ২০২২

৬ ডিসেম্বর ফেনী মুক্ত দিবস 

ফাইল ফটো

ফেনী মুক্ত দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন উপলক্ষ্যে ফেনী জেলা প্রশাসন দিনব্যাপী বর্নাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ। মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ থেকে ফেনী জেলা শিল্পকলা একাডেমী পর্যন্ত বর্ণাঢ্য র‍্যালি। এরপরে সকাল ১১টায় ফেনী জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে মুক্তিযোদ্ধাদের অংশগ্রহণে আলোচনা সভা ও সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় ফেনী কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার প্রাঙ্গনে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী। সভাপতিত্ব করবেন ফেনী জেলা প্রশাসক আবু সেলিম মাহমুদ-উল হাসান।

এ ছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ, শহীদ মিনার ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় আলোকসজ্জা করা হয়েছে।

অন্যদিকে ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার এনায়েত নগর গ্রামের প্রতিষ্ঠিত তরুণ সংঘের উদ্যোগে ৪৫ কিলোমিটার পদযাত্রার আয়োজন করা হয়েছে। নতুন প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে তুলে ধরা ও ফেনী মুক্ত দিবসকে প্রতিষ্ঠিত করতে এই প্রয়াস। এই বছর পদযাত্রা শুরু হবে পরশুরাম থেকে নোয়াখালীর দাগনভূঞা পর্যন্ত ৪৫ কিলোমিটার।

এ ব্যাপারে তরুণ সংঘের সভাপতি মোহাম্মদ ইয়াকুব রকি জানান, ১৯৭১ সালে বীর মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধে অংশগ্রহণ ও প্রশিক্ষণের জন্য মাইলের পর মাইল পায়ে হেঁটে চলাকে হৃদয়ের অনুভূতিতে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন তরুণ সংঘ। বিগত বছরের মতো এবারও ফেনী মুক্ত দিবসে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় তারুণ্যের পদযাত্রার আয়োজন করেছে।

ফেনী জেলা প্রশাসক আবু সেলিম মাহমুদ-উল হাসান বলেন, ৬ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে একটি তাৎপর্যপূর্ণ দিন। এদিন বীর মুক্তিযোদ্ধারা ফেনীকে পাক হানাদার মুক্ত করেছিল। দিনটিকে আমরা নানা উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালন করে থাকি। এ বছরও দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে আছে পুষ্পস্তবক অর্পণ, র‍্যালি, আলোচনা সভা ও পদযাত্রা। সেদিন ফেনীর বীর মুক্তিযোদ্ধারা যে অসামান্য বীরত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিলেন সেটিকে আমরা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করব।

এদিকে ফেনী মুক্ত দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন উপলক্ষ্যে ফেনী জেলা প্রশাসন দিনব্যাপী বর্নাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ। মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ থেকে ফেনী জেলা শিল্পকলা একাডেমী পর্যন্ত বর্ণাঢ্য র‍্যালি। এরপরে সকাল ১১টায় ফেনী জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে মুক্তিযোদ্ধাদের অংশগ্রহণে আলোচনা সভা ও সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় ফেনী কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার প্রাঙ্গনে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী। সভাপতিত্ব করবেন ফেনী জেলা প্রশাসক আবু সেলিম মাহমুদ-উল হাসান।

এ ছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ, শহীদ মিনার ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় আলোকসজ্জা করা হয়েছে।

অন্যদিকে ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার এনায়েত নগর গ্রামের প্রতিষ্ঠিত তরুণ সংঘের উদ্যোগে ৪৫ কিলোমিটার পদযাত্রার আয়োজন করা হয়েছে। নতুন প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে তুলে ধরা ও ফেনী মুক্ত দিবসকে প্রতিষ্ঠিত করতে এই প্রয়াস। এই বছর পদযাত্রা শুরু হবে পরশুরাম থেকে নোয়াখালীর দাগনভূঞা পর্যন্ত ৪৫ কিলোমিটার।

এ ব্যাপারে তরুণ সংঘের সভাপতি মোহাম্মদ ইয়াকুব রকি জানান, ১৯৭১ সালে বীর মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধে অংশগ্রহণ ও প্রশিক্ষণের জন্য মাইলের পর মাইল পায়ে হেঁটে চলাকে হৃদয়ের অনুভূতিতে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন তরুণ সংঘ। বিগত বছরের মতো এবারও ফেনী মুক্ত দিবসে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় তারুণ্যের পদযাত্রার আয়োজন করেছে।

ফেনী জেলা প্রশাসক আবু সেলিম মাহমুদ-উল হাসান বলেন, ৬ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে একটি তাৎপর্যপূর্ণ দিন। এদিন বীর মুক্তিযোদ্ধারা ফেনীকে পাক হানাদার মুক্ত করেছিল। দিনটিকে আমরা নানা উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালন করে থাকি। এ বছরও দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে আছে পুষ্পস্তবক অর্পণ, র‍্যালি, আলোচনা সভা ও পদযাত্রা। সেদিন ফেনীর বীর মুক্তিযোদ্ধারা যে অসামান্য বীরত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিলেন সেটিকে আমরা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করব।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়