Banglar Chokh | বাংলার চোখ

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় রাতের আধারে অবৈধ ভাবে সরকারি গাছ কাটায় অভিযোগ দায়ের!

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২৩:২৫, ৮ ডিসেম্বর ২০২২

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় রাতের আধারে অবৈধ ভাবে সরকারি গাছ কাটায় অভিযোগ দায়ের!

নিজস্ব ছবি

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় সরকারি জমিতে থাকা প্রায় ৩০০ এর অধীক ফলজ গাছ রাতের আধারে কাটার অভিযোগ উঠেছে জহিরুল ইসলাম জুয়েল নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। 

বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) বিকেলে তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ দায়ের করেন তিনি। এর আগে বুধবার (৮ ডিসেম্বর) দিনগত রাতে তেঁতুলিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া এলাকার হ্যালিপ্যাড নামক স্থানে ঘটে।

অভিযুক্ত জহিরুল ইসলাম জুয়েল আজিজনগর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে।

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, দীর্ঘদিন যাবৎ স্থানীয় গরিব মানুষেরা হ্যালিপ্যাড এলাকায় সরকারি জমিতে ফলজ, বনজ খাড়া গাছসহ বিভিন্ন গাছ রোপন করে। এবং দীর্ঘদিন যাবৎ সেসব ফলজ গাছের ফল খেয়ে আসতেন। এর মাঝে বুধবার দিনগত রাতে জুয়েল ওই স্থানের সরকারি জাইগার ২ একর ৫০ শতক জমির ৩০০টি ফলজ গাছ ও ১৬টি বনজ গাছ সহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কেটে নিয়ে যায়। পরে সকালে স্থানীয়রা গাছগুলো দেখতে না পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। পরে জানতে পারে জুয়েল গাছগুলো কেটে বিক্রি করে। 

জানা যায়, তৎকালিন উপজেলা সহকারী কমিশনারের অনুমতিতে গত ৫ বছর আগে একই স্থানে থাকা একটি মৃত গাছ সরানোর দায়ে আকবর আলীসহ তিন ব্যক্তিকে সাত দিনের জেল ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। তবে অনুমতি ছাড়া ৩০০ এর অধীক গাছ জুয়েল কাটার পরেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। আমরা এ ঘটনার বিচার চাই।

স্থানীয় আফজাল হোসেন বলেন, সকালে গাছগুলো কাটা দেখতে পেয়ে জুয়েলের কাছে বিষয়টি জানতে চাই। সে আমাকে জানায় ৯৯ বছরের জন্য জমিটি সে সরকারের কাছ থেকে লিজ নিয়েছে। অনুমতি নেওয়ার পরেও কেন রাতের আধারে গাছগুলো কাটলো সে।

এ বিষয়ে তেঁতুলিয়া সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুদ করিম সিদ্দিকি বলেন, যেহেতু জুয়েল গাছগুলো কেটে অপরাধ করেছে তাই গাছগুলো অকশনে দেয়ার ব্যবস্থা করার জন্য ইউএনও স্যারের সাথে কথা বলেছে।

তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর আমরা বিষয়টি প্রাথমিক ভাবে ইউপি চেয়ারম্যানকে ও তহশিলদারকে দেখার জন্য নির্দেশ দিয়েছি। সরকারি জমির গাছ কাটা একটি বড় ধরণের অপরাধ। যদি তদন্তে বেড়িয়ে আসে গাছ কাটার বিষয়টি সত্য তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
 

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়