১৮ মে ২০২১, মঙ্গলবার ১০:৪০:০২ এএম
সর্বশেষ:

১৯ এপ্রিল ২০২১ ১২:২৬:৪০ এএম সোমবার     Print this E-mail this

হেফাজতের যেসব শীর্ষ নেতা গ্রেপ্তার হলেন

ডেস্ক রিপোর্ট
বাংলার চোখ
 হেফাজতের যেসব শীর্ষ নেতা গ্রেপ্তার হলেন

তিন সপ্তাহের বেশি সময় ধরে বাংলাদেশের রাজনীতিসহ সব মহলে সবচেয়ে আলোচিত হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ও দলটির নেতা কর্মীরা। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে নতুন করে আলোচনায় আসে দলটি। সারাদেশে ভাংচুর, আগুন দেওয়াসহ ব্যাপক তাণ্ডব চালায় হেফাজতকর্মীরা। এর মধ্যেই ‘দ্বিতীয় স্ত্রী’ দাবি করা এক নারীসহ নারায়গঞ্জের রিসোর্টে অবরুদ্ধ হন দলের অন্যতম নেতা মাওলানা মামুনুল হক। সেখানেও নানা তাণ্ডব চালায় তার অনুসারীরা। সেই ঘটনায় মামলা হয়। মামলা হয়েছে অন্যান্য ঘটনায়ও। সেসব মামলায় একে একে গ্রেপ্তার হচ্ছেন হেফাজতের নেতারা। সবশেষ রোববার (১৮ এপ্রিল) গ্রেপ্তার হন দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হক।

২০১৩ সালে মতিঝিলের শাপলা চত্ত্বর ঘেরাওয়ের দীর্ঘদিন পর আবারো আলোচনায় হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। গত মাসে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমন উপলক্ষে দেশব্যাপি জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলন শুরু করে হেফাজত। যার নেতৃত্বে ছিলেন দলটির যুগ্মমহাসচিব মামুনুল হক।

পরে গত ২৬ মার্চ রাজধানীর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম প্রাঙ্গণে সহিংসতার ঘটনায় হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকসহ ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা হিসেবে আরও ২ হাজার ব্যক্তিকে আসামি করে গত ৫ এপ্রিল পল্টন থানায় মামলা করা হয়।

এরপর থেকেই সহিংসতাকারী হেফাজতের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ৭ এপ্রিল সকালে নেত্রকোনার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয় ‘শিশুবক্তা’ খ্যাত রফিকুল ইসলাম মাদানীকে। পরে রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দেখিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয় র‌্যাব।

হেফাজতে ইসলামের সাবেক আমির আহমেদ শফিকে হত্যার প্ররোচনা মামলায় সংগঠনটির আমির আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী, যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক ও সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদীসহ ৪৩ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

দেশের বিভিন্ন স্থানে তাণ্ডবের প্রতিবাদ ও হেফাজতে ইসলামের নেতৃত্বের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে ১৩ এপ্রিল দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে হেফাজত থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন দলের নায়েবে আমির ও বাংলাদেশ ফরায়েজী আন্দোলনের সভাপতি মাওলানা আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান।

১৪ এপ্রিল সন্ধ্যায় হেফাজতে ইসলামের সহকারী মহাসচিব মুফতি শাখাওয়াত হোসাইন রাজীকে তার লালবাগের নিজ বাসার সামনে থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম গণমাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

১৩ এপ্রিল সন্ধ্যায় যাত্রাবাড়ীর মীর হাজিরবাগ এলাকা থেকে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-প্রচার সম্পাদক মুফতি শরীফউল্লাহকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ- ডিবি। মুফতি শরীফউল্লাহ হেফাজতের মহানগর কমিটিরও সাংগঠনিক সম্পাদক।

গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ওয়ারী) আজাহারুল ইসলাম মুকুল বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, শরীফউল্লাহকে ২০১৩ সালের ৬ মে যাত্রাবাড়ী থানায় দায়ের হওয়া বিশেষ ক্ষমতা আইনের একটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। ওই মামলায় (নং ২০) তিনি এজাহারনামীয় আসামি।

১৬ এপ্রিল বিকেলে লালবাগের বাসা থেকে হেফাজত ইসলামের ঢাকা মহানগর সহ-সভাপতি মাওলানা জুবায়ের আহমেদকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। মাওলানা জুবায়ের হেফাজতে ইসলামের ঢাকা মহানগরের নায়েবে আমির।

ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, তার বিরুদ্ধে ২০১৩ সালের নাশকতা ও সম্প্রতি সহিংস ঘটনার অভিযোগ রয়েছে। তিনি মামলারও আসামি। আসামি হিসেবে তাকে শুক্রবার বিকেলে লালবাগের বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

১৬ এপ্রিল শনিবার রাজধানীর বারিধারা থেকে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সভাপতি জুনায়েদ আল হাবিবকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে ২০১৩ সালে হেফাজতের সহিংসতার ঘটনায় একাধিক মামলা রয়েছে।

১৭ এপ্রিল দুপুরে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বাসা থেকে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব ও বাংলাদেশে খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা জালাল উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, মাওলানা জালাল উদ্দিনকে ডিবির একটি টিম গ্রেপ্তার করেছে। তার বিরুদ্ধে ২০১৩ সালের একাধিক মামলা রয়েছে। এছাড়া সম্প্রতি সহিংসতার সঙ্গেও তার সম্পৃক্ততা রয়েছে।

সবশেষ ১৮ এপ্রিল দুপুরে মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা থেকে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগ।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2021. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close