২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার ০৩:০৩:৩১ পিএম
সর্বশেষ:

৩১ জুলাই ২০২১ ০৮:০০:২৪ পিএম শনিবার     Print this E-mail this

মরদেহ সৎকার করলো টিম লাইফ সাপোর্ট

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, গোপালগঞ্জ
বাংলার চোখ
 মরদেহ সৎকার করলো টিম লাইফ সাপোর্ট

 কোটালীপাড়া উপজেলার কলাবাড়ী ইউনিয়নের বুরুয়া গ্রামের শিপ্রা রানী বৈদ্য। তার মরহেদ পড়ে ছিল বাড়ির আঙ্গিনায়। তার বাড়ীতে নেই আত্মীয় স্বজন বা পাড়া-প্রতিবেশীদের ভীড়। একদিকে স্বজন হারানোর বেদনা অন্যদিকে কেউ এগিয়ে না আসায় মৃত শিপ্রার পরিবারের সদস্যরা হয়ে পড়ে বাকরুদ্ধ। মরদেহ সতকারে এগিয়ে এলো না প্রতিবেশী ও আত্মীয়-স্বজনেরা।

ঠিক তখনি এগিয়ে আসে টিম লাইফ সাপোর্টের সদস্যেরা। মধ্যরাতে করলো মরদেহের সৎকার। শুধু করোনায় মৃত্যুকরণকারীদের দাফন বা সৎকার নয় শ্বাসকষ্ট ও করোনা এবং উপসর্গ রোগীদের অক্সিজেন সেবা এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিনামূল্যে বিতরন করছে টিম লাইফ সাপোর্ট।

মৃত শিপ্রা রানী বৈদ্যের স্বামী অসিম বৈদ্য জানান,, সপ্তাহখানেক ধরে শরীরে জ্বর আর কাশি দেখা দেয়। ২৭ জুলাই ভর্তি করা হয় কোটালীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। ওইদিনই তার নমুনা পরীক্ষা করা হলে করোনা নেগেটিভ আসে। ২৮ জুলাই সকালে অবস্থার আরো অবনতি ঘটলে স্ত্রীর উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডেকেলে নিয়ে যাওয়া হয়।

কিন্তু করোনা সার্টিফিকেট না থাকায় সেখানে ভর্তি না করলে নেওয়া হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ে সেখান থেকেও ফিরিয়ে দেওয়া হয়। মিটফোর্ট হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে অনেক আকুতি মিনতির পর ভর্তি করলেও অবস্থার অবনতি ঘটলে ঢাকা মেডিকেলে সেখানে গেলে বলা হয় রোগী অক্সিজেন পাবে না এই শর্তে ভর্তি করা হয়। পরে ঢাকা থেকে নিয়ে এসে ভর্তি করা হয় গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা হাসপাতালে। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

পরে রাত ৮ টায় বাড়িতে নিয়ে আসলে করোনা সন্দেহে কেউ এগিয়ে আসেনি। গ্রামের মানুষের কাছে গেলে করোনা উপসর্গ থাকায় পরিবারের সদস্যেদেরই সৎকারের ব্যবস্থা করতে বলেন।

ঠিক তখনি এগিয়ে আসে টিম লাইফ সাপোর্ট। টিমের অপর এক সদস্যকে নিয়ে লাইফ সাপোর্টের কলাবাড়ী ইউনিয়ন টিম লিডার সুশান্ত বর্ণিক মরদেহের সৎকারের যাবতীয় ব্যবস্থা করেন।

এব্যাপারে প্রভাবশালী ক্ষিতিশ দত্ত বরেণ, অসিম বৈদ্যের স্ত্রী হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে যেখানে করোনা রোগীরারা ছিলো তাই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য তাদেরকে পারিবারিকভাবে সৎকারের নির্দেশনা দেই। তাছাড়া এলাকাবাসীও কেউ ওই বাড়িতে যেতে রাজি হচ্ছিল না।

ইউপি সদস্য মনোরঞ্জন বালা বলেন, আমি অসুস্থ থাকায় যেতে পারিনি। তবে শুনেছি টিম লাইফ সাপোর্টের সদস্য সুশান্ত বর্ণিক ও নকুল বালা সৎকারের ব্যবস্থা করেছে।

টিম লাইফ সাপোর্টের কলাবাড়ী ইউনিয়ন টিম লিডার সুশান্ত বর্ণিক জানান, রাত সাড়ে ১১ টার সময় জানতে পারি বুরুয়া গ্রামের শিপ্রা বৈদ্য নামের এক মহিলা গোপালগঞ্জ হাসপাতালে সন্ধ্যায় মারা যায়। গ্রামের লোকেরা করোনা সন্দেহে কেউ মৃতের বাড়িতে আসছে না। ফোন পেয়ে সুরক্ষা সামগ্রী পরে ও নকুল বালা নামের এক ব্যক্তিকে তাৎক্ষনিক টিমের সদস্য বানিয়ে সুরক্ষা সামগ্রী পড়িয়ে ছুটে যাই মৃতের বাড়িতে। গিয়ে দেখি লাশ বাড়ির উঠানে পড়ে আছে। পরে প্রয়োজনীয় উপকরণ সংগ্রহ করে সৎকারের ব্যবস্থা করি পরিবারের সদস্যেদের নিয়ে।

তিনি আরো বলেন, আমরা শুধু মৃতদের দাফন বা সতকার করেই বসে নেই। শ্বাসকষ্ট বা যানা অক্সিজেনের অভাবে সেবা নিতে পারছেন না তাদেরকে অক্সিজেন বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছি। সেই সাথে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করছি।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2021. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close