২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, বুধবার ১২:২৩:৫৯ এএম
সর্বশেষ:

৩১ জুলাই ২০২১ ০৮:১৯:২০ পিএম শনিবার     Print this E-mail this

রাঙামাটিতে নির্মাণাধীন আইসোলেশন ভবনের দেয়াল ভেঙ্গে পড়লো বসত ঘরে

আলমগীর মানিক,রাঙামাটি থেকে
বাংলার চোখ
 রাঙামাটিতে নির্মাণাধীন আইসোলেশন ভবনের দেয়াল ভেঙ্গে পড়লো বসত ঘরে

রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতাল এলাকায় বসতঘরের উপর আকস্মিকভাবে সীমানা দেয়াল ভেঙ্গে পড়েছে। কোনো প্রকার প্রতিরোধক ব্যবস্থা নানিয়ে রাঙামাটি জেলা পরিষদের অর্থায়নে নির্মিতব্য ৫০ শয্যার কোভিট আইসোলেশন ইউনিট ভবন তৈরির কারনে এই দূর্ঘটনা ঘটেছে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছে। ক্ষতিগ্রস্থ বসতবাড়ির মালিক বিনা চৌধূরী জানিয়েছেন, শুক্রবার দিবাগত রাত আটটার সময় আকস্মিকভাবে তাদের বসত ঘরের উপর হাসপাতালের সীমানা দেয়ালটি ভেঙ্গে পড়ে। এসময় আতঙ্কিত হয়ে ঘরের ভাড়াটিয়ারাসহ সকলে মিলে রাস্তায় গিয়ে আশ্রয় নেন তারা। তিনি অভিযোগ করেন, এই আইসোলেশন ভবনটির নির্মাণ কাজ শুরুর সময় ঝূকিঁপূর্ণ দেয়ালটির ব্যাপারে একাধিকবার অভিযোগ দেয়ার পরেও জেলাপরিষদ কর্তৃপক্ষ আমাদের কথা শুনেনি। যে দেয়ালটি দেখতে বাঁকা হয়ে গেছে এবং যেকোনো সময় ভেঙ্গে পড়ার আশঙ্কা থাকা সত্বেও এই দেয়ালের ধারক মাটি কেটে পাকা ভবন তৈরি করছে। যার ফলে টানা গুড়িগুড়ি বৃষ্টিতে দেয়ালটি ধ্বসে পড়ে। ভগবানের আশির্^বাদে আমরা প্রাণে বেঁেচ যাই। বিনা চৌধুরী জানান,ঋণ নিয়ে বাসাটি নির্মাণ করেছি কিন্তু দেয়াল ভেঙ্গে আমার বাসাটি ক্ষতিগ্রস্ত হলো।

এদিকে এই ভবন নির্মাণের শুরুতে লে আউট দেওয়ার সময় ঝূকিপূর্ন দেয়ালটি রক্ষা প্রতিরোধক ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি কেন? এই দূর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনা ঘটলে দ্বায় কে নিতো?
প্রতিবেদকের এমন প্রশ্নের জবাবে সংশ্লিষ্ট্য ঠিকাদার রতœাংকুর চাকমা জানিয়েছেন, আমি বিষয়টি নিয়ে কাজের শুরুতেই জেলা পরিষদের ইঞ্জিনিয়ারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলাম। তারা বিষয়টি নিয়ে ভাবেননি। আমার কি করার আছে। আমাকে যেভাবে কাজ করতে বলা হয়েছে আমি সেই ভাবে কাজ করেছি।
এদিকে বিষয়টি নিয়ে যোগাযোগ করলে রাঙামাটি জেলা পরিষদের নির্বাহী প্রকৌশলী বিরল বড়–য়া প্রতিবেদককে বলেন, উক্ত দেয়ালটি গর্ণপূর্ত বিভাগের। আপনি তাদের সাথে যোগাযোগ করেন। এমন একটি ঝূকিপূর্ন দেয়ালের পাশে ভবন নির্মাণের আগে বিষয়টি নিয়ে প্রতিরোধক ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, ওয়াল থেকে অনেকটা দূরে আমরা ভবনটি তৈরি করছি। আর আমি ওয়াল প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিতে গেলে বরাদ্দের টাকা পুরোটাই সেখানে খরছ হয়ে যেত। আর এটা ইতিমধ্যেই গর্ণপূর্ত বিভাগের লোকজন এসে দেখে গেছে। তারা এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে। কম বরাদ্দ বলেই প্রানহানির মতো দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকা সত্বেও সেখানে ভবন নির্মাণ কাজ কেন শুরু করলেন এমন প্রশ্নের জবাবে নির্বাহী প্রকৌশলী বিরল বড়–য়া জানান, আমাদের ভবন তৈরির জন্য যে দূর্ঘটা ঘটেছে এমন তথ্য সঠিক নয়।
এই ধরনের ঝূকিঁপূর্ন ওয়াল যারা করে তাদের সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, এরকম হলেতো আমি বিল্ডিংই করতে পারবোনা।
বিষয়টি নিয়ে রাঙামাটির গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী অনিন্দ্য কৌশল জানিয়েছেন, আমাকে সিভিল সার্জন মহোদয় বিষয়টি জানিয়েছেন। আমার প্রকৌশলীসেখানে গিয়ে বিষয়টি সরেজমিনে গিয়ে দেখে এসেছেন। সিভিল সার্জনের অনুরোধে উক্ত ভেঙ্গে পড়া ওয়ালটি অপসারণ করে নিবো।
এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ঠিকাদার ও প্রকৌশলী জানিয়েছেন, এটা খুবই কাচা কাজ করেছে জেলা পরিষদ। তারা বলছেন ৩৫/৪০ বছর আগের একটি সীমানা দেয়াল বর্তমানে ঝূকিপূর্ন এটা দৃশ্যমান দেখা সত্বেও এই ওয়ালের ধারক ব্যবস্থা না করে ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করার সময় মাটি কাটতে হয়েছে সেই কারনেই এটি ঝূকিপূর্ন হয়ে পড়ে। বিষয়টি দেখেও না দেখার ভান করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে ভবন নির্মাণ কাজটি করানো হয়েছে। অলৌকিকভাবেই ঘরের মানুষগুলো বেচেঁ গেছে নইলে এতোক্ষণে সেখানে বড় ধরনের প্রাণহানির মতো দূর্ঘটনা ঘটতো।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2021. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close