২২ অক্টোবর ২০২১, শুক্রবার ০৬:৪৮:০৩ এএম
সর্বশেষ:

০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১০:৪৫:০২ পিএম বৃহস্পতিবার     Print this E-mail this

আফগান হাত ছাড়া হওয়ার পর ন্যাটো,মার্কিনযুক্তরাষ্ট্র ও হিন্দুস্তানের দৃষ্টি বাংলাদেশের দিকে ?

মোহাম্মদ সাখাওয়াৎ হোসেন ইবনে মঈন চৌধুরী
বাংলার চোখ
 আফগান হাত ছাড়া হওয়ার পর ন্যাটো,মার্কিনযুক্তরাষ্ট্র ও হিন্দুস্তানের দৃষ্টি বাংলাদেশের দিকে ?

দক্ষিণ এশিয়াতে মার্কিনযুক্তরাষ্ট্র তার জুলুমনিপীড়ন, নির্যাতন,চালানো একমাত্র সহযোগী সাম্প্রদায়িকহিন্দুস্তান। কিন্তু হিন্দুস্তানের জুলুম আধিপত্য থেকে নেপাল ও ভুটানের জনগণ নাগরিক অধিকার ফিরে পেতে তথাকথিত বাম বা নাস্তিকদের হাত থেকে মুক্তি পেতে নানা কৌশল ও কঠোরতার অবলম্বন করে মুক্ত হয়। উগ্র সম্প্রদায়িক হিন্দুস্তান ১৯৪৭ সাল থেকে একসময়ের পূর্ববাংলা পরে পূর্ব পাকিস্তান আজকের বাংলাদেশের উপর শুকুনের মত দৃষ্টি অব্যাহত রাখে। আর যে কারণে স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রোষ্টা,রুপকার, স্হপতি, প্রবাসী সরকারের উপদেষ্টা মন্ডলীর সভাপতি মজলুম জননেতা মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীকে লড়াই চলাকালীন হিন্দুস্তানে গৃহবন্দী রাখে ২২জানুয়ারী১৯৭২ পর্যন্ত। তিনি সদ্য স্বাধীন দেশে ফিরেই মন্তব্য করে ছিলেন,রক্ত দিয়ে পাকিস্তান থেকে আলাদা হয়েছি,দিল্লির গোলামীর জন্যে নয়?কিন্তু আজ সেই দিল্লি রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গুলো অদৃশ্য থেকে কার্যকর করারো জনশ্রুতি আছে। গত ৫০ বছরে বাংলাদেশকে কখনই শান্তিতে থাকতে তারা দেয় নাই। বিশ্বের ১৮০কোটি মুসলমান বসবাস করে। এর মধ্যে অধিকাংশ শাসক মোশরেকদের অনুসারী হওয়ায় শাসকরা মোনাফেক এর চরিত্র পালন করে।লিবিয়া, ইরাক,ইয়েমেন,সিরিয়ার উপর মুসলিম লেবাসে মুশরেকদের খুশি করতে হামলা করে।পরগাছা নাস্তিকরা এই হামলার পরিবেশ সৃষ্টিতে নানা কুৎসা লটায়।এক সময় আফগানস্হান একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র ছিলো। রাশিয়া এটা উপর দখলদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করে মাত্র ৩-৬মাসের মধ্যে দেশপ্রেমিকদের কাছে পরাজিত হয়।তারপর তাদের আরেক ভাই মার্কিনযুক্তরাষ্ট্র ও তার সহযোগী ন্যাটো আর হিন্দুস্তানের নিয়ন্ত্রণে রাখতে গত ২০ বছরের অধিক সময় সব ধরনের চেষ্টা চালায়, অবশেষে আফগানিস্তান ত্যাগ করতে বাধ্য হয়।এটা তারা আগেই বুঝতে পারে আফগানিস্তান দখলদারদের ছাড়তেই হবে?তাই তারা দক্ষিণ এশিয়ার অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ বাংলাদেশে বিষ ফোঁড়া তৈরি করতে মিয়ানমারে বৌদ্ধদের মুসলমানদের বিরুদ্ধে লেলিয়ে জুলুম,নির্যাতন, নিপিড়ন, ধর্ষণ, অগ্নি সংযোগ হেনো জুলুম নাই,যা মুসলমানদের উপর করে নাই?জাতিসংঘ সহ বিশ্বের বিভিন্ন সংস্হা বা বেসরকারি সংস্থা তাদের সাহায্যের নামে পরগাছা করে রাখার চক্রান্তে ব্যাস্ত,কিন্তু নিজ দেশ বার্মা বা মিয়ানমার পাঠানোর মত কোন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করে নাই!কখনো দেশে ফেরানোর ব্যাপারে আইওয়াশ ভোটের ব্যাবস্হা করলেও চীন বা হিন্দুস্তান কেউ নিরব থেকেছে কেউ বা বিপক্ষে ভোট দিয়েছে! অর্থাৎত্ব তাদের প্রতিপক্ষ মুসলমান সুকৌশলে বুঝিয়ে দিয়েছে!কিন্তু আফগানিস্তান দখলদার মুক্ত হওয়ার পর জাতিসংঘ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ন্যাটো ও হিন্দুস্তানের মাথা খারাপ। কাশ্মীরের মুসলমানদের উপর জুলুম নিপিড়ন নির্যাতন বন্ধে কখন হুমকি আসে এটা,যেমন মাথা ব্যথা,তেমনি নতুন প্রজেক্ট বাংলাদেশ কখন আবার হাত ছাড়া হয়ে যায়, সেটাও মাথা ব্যাথা হয়ে, গেছে!তবে ইতিমধ্যে তারা নিরপত্তা বিভাগ ও প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ জায়গা গুলোতে তাদের বিশ্বস্হদের অবস্থান করে দিতে সক্ষম হয়েছে,পরগাছা নাস্তিক গুলোকে দেশপ্রেমিকদের নাজেহাল করানোর কার্যক্রম খুব সাবধানে হাত দিচ্ছে। পর্যবেক্ষক মহলের ধারণা পদ্মাসেতুতে ফেরির ধাক্কা, সেখান থেকে অবৈধ প্রবেশকারী হিন্দুস্হানের নাগরিক আটক,সেতুর একজন বিদেশী প্রকৌশলীকে হিন্দুস্তানের"র"আটক আর ঘটনা প্রকাশ না করায় নানা গুন্জন শুনা যায়।অপরদিকে এনজিও বা বেসরকারী স্বেচ্ছাসেবক সংগঠন দিয়ে রোহিঙ্গা মুসলমানদের সেবার নামে ভুলপথে চলার প্রশিক্ষণ দিচ্ছে বলেও ধারণা করে বিজ্ঞমহল!জনশ্রুতি আছে হিন্দুস্তানের গোয়েন্দা সংস্হা রোহিঙ্গা মুসলমানদের ভীতরে কাজ করছে!উদ্দেশ্য সময় মত বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করানো,ন্যাটো,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও হিন্দু স্হানের প্রবেশের পথ করতে।তারা রোহিঙ্গা মুসলমানদের কাছে অস্ত্র দেবে আবার নিয়ন্ত্রণের নাম করে বাংলাদেশ নিয়ন্ত্রণ করবে। সেই পরিস্থিতি তৈরী করতে প্রথম নাস্তিকদের লম্ফঝম্প করিয়ে দেশপ্রেমিক সৎ নাগরিকদের শাহাদাত বরণ নিশ্চিত করে।এর পর দেশের সবচাইতে জনপ্রিয় পরিবার স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়া উর রহমান এর পরিবার একঘোরে করার লক্ষ মাথায় নিয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রী চারদলীয়জোট নেত্রী দেশনেত্রী বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে প্রহসনের মাধ্যমে কারাগারে আটক করে।তারপর ধীরগতিতে নাস্তিকদের দিয়ে আলেম-ওলামা -ইসলামের দাওয়াত প্রদানকারীদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করিয়ে আটক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারণা। এদিকে নতুন একটা প্রচরণা শুনা যাচ্ছে পরগাছা বা নাস্তিকরা দেশপ্রেমিকদের তালেবান বা জঙ্গি হিসাবে অপপ্রচার চালাবে।আর সেই অনুযায়ী সম্প্রদায়িক গোষ্ঠী তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্হা নিবে।বাংলাদেশ স্বাধীনতার পর থেকে হিন্দুস্তান  বন্ধুতের দাবী করলেও বন্ধু এমন নজির রাখতে ব্যর্থ হয়েছে।স্বাধীনতার পর ফারাক্কা সহ অসংখ্য নদীতে বাধ দিয়ে শুস্ক মৌসুমে বাংলাদেশে পানি সংকর করে! সীমান্ত এলাকার নাগরিকদের জীবনের জন্যে হুমকি হয়ে দাঁড়ায়। জনশ্রুতি আছে জাতিয় ঐক্য বিনিষ্ট ও সিরিজ বোমা হামলা সহ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে।ইতিমধ্যে ইসকন সহ বিভিন্ন সংগঠন সংঘটিত করে পরগাছা নাস্তিকদের দিয়ে মিথ্যাচার শুরু করেছে।দেশের নাগরিকদের ভোটের অধিকার ক্ষুন্ন,অধিকাংশ মসজিদ কমিটি দখলকরে,সেখানে সুদখোর, ঘুষখোর এবং ইসলাম বিদ্বেষীদের স্হান করে দিয়েছে। পর্যবেক্ষক মহলের ভাষায় জনগণকে কবজায় আনতে জঙ্গি নাটক মঞ্চস্থ করার প্রক্রিয়া। অন্য দিকে গণচীন ইসলাম বিদ্বেষী  হলেও তাদের কৌশলগত কারণে এখন সাহায্যকারী হিসাবে আছে। এদিকে অপশক্তিরা রোহিঙ্গাদের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে চীনকে চাপে রাখতে, বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ ঘটাতে চায়। ১৮০ কোটি মুসলমানকে মানবিক অধিকার নিয়ে বাঁচতে হলে, জাতিসংঘে ভেটো দেওয়ার অধিকার আদায় করতে হবে।তা না হলে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এর প্রস্তাব অনুযায়ী পৃথক জাতিসংঘ, পৃথক মুসলিম রাষ্ট্রের জন্যে বিশ্বব্যাংক,শান্তি মিশন,মুসলিম গণমাধ্যম, গঠন করা প্রয়োজন বলে শান্তির জন্যে কাজ করে এমন বিশেষজ্ঞদের মতামত। আর সকল মুসলিম রাষ্ট্র একই পরিবারে সদস্য হতে পারলেই আবার বিশ্বে মানবতা প্রতিষ্ঠা লাভ করবে।বাংলাদেশ সহ কোন মুসলিম দেশে দখলদারত্বের আশংকা থাকবে না।এখন সময় এসেছে বিশ্বের মুসলিম দেশগুলোর বিচার বিভাগ, গোয়েন্দা সংস্হা,নিরাপত্তা বাহিনী, ব্যাংক সেক্টরে আল্লাহ ওয়ালা দেশপ্রেমিক ব্যাক্তিদের দায়িত্ব দিলে সংকট মোকাবেলা করে দেবেন মহান আল্লাহ।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2021. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close