০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার ০৮:১১:৫৭ পিএম
সর্বশেষ:

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১১:৩৩:০১ পিএম বৃহস্পতিবার     Print this E-mail this

বাল্লা স্থলবন্দর অর্থনৈতিক সম্ভাবনার নতুন দুয়ার

এম এস জিলানী আখনজী :: চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 বাল্লা স্থলবন্দর অর্থনৈতিক সম্ভাবনার নতুন দুয়ার

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার ভারত সীমান্তবর্তী এলাকা কেদেরাকোট ও কাটানীপারে বহুপ্রতিক্ষিত বাংলাদেশের ২৩ তম স্থলবন্দর, বাল্লা স্থলবন্দর উন্নয়নের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। আর এই স্থলবন্দরের উন্নয়নে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চলমান ২৫ কোটি টাকার আবাসিক প্রকল্পের বাউন্ডারি নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলায় এ অঞ্চলের মানুষগুলোর মনে অর্থনৈতিক মুক্তির প্রত্যাশা জাগছে স্বাভাবিক ভাবেই। সমাজের খেঁটে খাওয়া মানুষ থেকে শুরু করে উচ্চ ও মধ্যবিত্ত সব শ্রেণি-পেশার মানুষের আশা বাল্লা স্থলবন্দরকে কেন্দ্র করে, এই অঞ্চলের বাসিন্দাদের অর্থনৈতিক মুক্তির পাশাপাশি সর্বত্র কর্মচাঞ্চল্য সৃষ্টি হবে, বৈদেশিক বানিজ্যে এগিয়ে যাবে দেশ, সফল কানেক্টিভিটির মাধ্যমে যুক্ত হবে সমৃদ্ধির এক নতুন অধ্যায়।
আমরা জানি, দেশের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় এ অঞ্চলের মানুষদের কর্মসংস্থানের সুযোগ কম। বড় কিংবা ছোট কোন ধরনেরই মিল ফ্যাক্টরি কল কারখানা না থাকায় এ অঞ্চলের বিপুল সংখ্যক মানুষ অত্যন্ত কায়ক্লেশে বেকার জীবন-যাপন করছেন। তাই এলাকাবাসীর প্রত্যাশা এই বাল্লা স্থলবন্দর নির্মানসহ সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হলে দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা-বানিজ্য ও পর্যটন এর প্রসার এবং মানুষে-মানুষে সম্পর্কোন্নয়নে গোটা অঞ্চলের উপকার হবে। যে কারণে নতুন আশায় উজ্জীবিত এ সব প্রান্তিক জনগোষ্ঠীসহ বিনিয়োগকারী-ব্যবসায়ীরা। যদিও রাজনৈতিক ও নানা আমলা তান্ত্রিক জটিলতায় এ প্রক্রিয়া দীর্ঘদিন থমকে ছিল। বহু চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে বর্তমান সরকারের আন্তরিক উদ্যোগে, চলতি বছরের সেপ্টম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে চলমান নির্মাণ কাজের মধ্যে দিয়ে বাস্তবে রুপ নিতে যাচ্ছে বহুকাঙ্খিত বাল্লা স্থলবন্দরের দৃশ্যমান অবকাঠামো।
বিশ্লেষকদের মতে, এ স্থলবন্দরের চলমান নির্মান কাজ শেষ হলে বিপুল সংখ্যক বেকার মানুষেরা কাজে লাগবে এই কর্মযজ্ঞে। ওই সময় চাকরি-বাকরি, ব্যবসা-বানিজ্যে সবার সামনেই খুলে যাবে নতুন এক স্বর্ণালী সময়, যেন বহুবছরের প্রত্যাশিত চাওয়া। বাংলাদেশের ব্যবসা-বানিজ্য সম্প্রসারিত হওয়ার পাশাপাশি কর্মসংস্থান বাড়বে। আর এ বন্দর চালু হলে দু’দেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে নতুন দিগন্ত উম্মোচন হবে। অর্থনৈতিকভাবে এ অঞ্চল হবে সমৃদ্ধ।”
চলতি মাসের ৭ই সেপ্টম্বর উপস্থিত লোকজনের মাঝে মিষ্টি বিতরণের মধ্যে দিয়ে ২৫ কোটি টাকার স্থলবন্দরের আবাসিক প্রকল্পের বাউন্ডারি নির্মাণসহ উন্নয়নের কাজ শুরু করা হয়। চুনারুঘাট দক্ষিণাঞ্চলের প্রানের দাবি ছিল বাল্লা স্থলবন্দর। ২০১৬ সালে বাংলাদেশ সরকারের নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহ জাহান খাঁন বাল্লা সীমান্তবর্তী এলাকা গাজীপুর ইউনিয়নের কাটানীপার গ্রামে সরেজমিন পরিদর্শন করেন এবং বাংলাদেশের ২৩ তম স্থলবন্দর হিসাবে বাল্লা স্থলবন্দরকে ঘোষণা করেন। এরই ধারাবাহিকতায় হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলার ১নং গাজীপুর ইউনিয়নের কাটানীপার মৌজার মোঃ আতাউর রহমান খানের ১০০শত শতক (এক একর) জমি অধিগ্রহনের মাধ্যমে উক্ত জমিতে আবাসিক প্রকল্পের জন্য নির্ধারণ করা হয়। ২৫ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ এখন চলমান। ২জন প্রকৌশলীর সার্বক্ষণিক দেখবালে পুরোদমে চলছে উন্নয়ন কাজ।
সামপ্রতিক সময়ে স্থলবন্দর এলাকার নির্মাণাধীন কাজের অগ্রগতি ও পন্যের গুনগত মান যাচাই-বাচাই করতে সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ সহকারী প্রকৌশলী মো: রুহুল আমিন ও মো: মেহেদী হাসান জোয়ারদার। এসময় তাদের সাথে ছিলেন সনিক্স ইন্টারন্যাশনাল প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার মেজবাহ উদ্দিন ও কন্ট্রাক্টর আব্দুর রাজ্জাক। সহকারী প্রকৌশলী রুহুল আমিন বলেন, কাজের গুনগত মান ভালো করতে ইঞ্জিনিয়ারিং ফর্মূলা যত ধরনের রয়েছে সেটা আমরা শতভাগ প্রয়োগ করার চেষ্টা করব। বাল্লা স্থলবন্দরের আবাসিক প্রকল্পের কাজে খুবই ভালো মানের সিমেন্ট ব্যবহার করা হচ্ছে এবং পাথরের গুনগতমানও খুবই ভালো। তিনি আরোও বলেন, তারপরও আমরা কিছু পাথর পরীক্ষা করে দেখার জন্য বুয়েটে নিয়ে যাচ্ছি।
বাল্লা স্থলবন্দরের আমদানি ও রপ্তানিকারক কল্যাণ সমিতির সভাপতি মোঃ জালাল উদ্দিন খান এ প্রতিবেদককে জানান, ২৫ কোটি টাকার স্থলবন্দরের আবাসিক প্রকল্পের বাউন্ডারি নির্মাণসহ উন্নয়নের কাজ চলমান। বর্তমানে কাজ চলছে দ্রুত গতিতে। ২৫ কোটি টাকার আবাসিক প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত হলে ধারাবাহিকভাবে শুরু হবে বন্দরের অবশিষ্ট কাজ। বন্দরের সকল কাজ সমাপ্ত হলে কোটি-কোটি টাকার ব্যবসা হবে এখানে। স্থলবন্দরের নির্মানাধীণ কাজ আমরা তদারকি করছি সব সময়, এখানে সুষ্ঠ ও সুন্দরভাবে কাজ চলছে। এতে কোনো প্রকারের অনিয়ম চোখে পড়ছে না। তিনি আরোও বলেন, কিছু কুচক্রি মহলের লোকজন এ স্থলবন্দরের চলমান কাজে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্ঠা চালিয়েছ। চুনারুঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল কাদির লস্কর বলেন, হবিগঞ্জের উন্নয়নে বাল্লা স্থলবন্দর একটি মাইলফলক হিসাবে কাজ করবে। ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ও ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে।
স্থানীয় ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসীরা বলেন, অনেক বাধা বিপত্তি পেরিয়ে বাল্লা স্থলবন্দর অবশেষে আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে অবশ্যই তা একটি ইতিবাচক খবর। একটা সময় ধরেই নেওয়া হয়েছিল যে এটা বোধহয় আর হচ্ছে না। কিন্তু ভারতীয় কর্তৃপক্ষের আগ্রহ এবং আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশ বিমান প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট মাহবুব আলী, এমপিসহ সংশ্লিষ্টদের আন্তরিকতায় সফলতার দিকে এগুচ্ছে বাল্লা স্থলবন্দরের অগ্রযাত্রা। সে জন্য আমরা স্থলবন্দর এলাকার বাসিন্দাসহ চুনারুঘাটবাসীর পক্ষ হতে আপনাদের সকলকেই জানই আন্তরিকতার সাথে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।
সরেজমিন এই প্রতিবেদক বাল্লা স্থলবন্দরের আবাসিক প্রকল্পের বাউন্ডারি নির্মাণসহ উন্নয়নের চলমান কাজ স্বচক্ষেই দেখে এসেছেন।
উল্লেখ্য, ১৯৫১ সালে চুনারুঘাট উপজেলার সীমান্তবর্তী বাল্লা নামক স্থানে ৪ দশমিক ৩৭ একর জায়গা নিয়ে প্রতিষ্ঠিত বাল্লা স্থল শুল্কবন্দর চালু করা হয়। সেই স্থল শুল্কবন্দরটি দিয়ে সিমেন্টসহ বিভিন্ন পণ্য রফতানি হয়ে থাকে। দুই দেশের সীমান্ত দিয়ে বয়ে চলছে খোয়াই নদী। বর্ষায় নৌকা আর শুকনো মৌসুমে শ্রমিকরা মাথা ও কাঁধে করে পণ্য আনা-নেয়া করে থাকেন। ফলে একদিকে ঝুঁকি, অন্যদিকে আমদানি-রফতানিকারকদের অর্থ ব্যয় হয় বেশি। এ সমস্যা দূর করতে ২০১২ সালের ১১ জুন ভারত ও বাংলাদেশ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যৌথ প্রতিনিধি দল কেদারাকোট এলাকাটি পরিদর্শন শেষে উভয়পক্ষই শুল্কস্টেশনের দেড় কিলোমিটার দক্ষিণে কেদারাকোটে স্থলবন্দর করার ব্যাপারে একমত হয়। ২০১৭ সালের ৮ জুলাই স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষর চেয়ারম্যান তপন কুমার চক্রবর্তী বন্দর পরিদর্শনে এসে জানান, একনেক সভায় স্থলবন্দর প্রতিষ্ঠার অনুমোদন পেয়েছে এবং এটি দেশের ২৩তম স্থলবন্দর। অবকাঠামো তৈরির জন্য অর্থও বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এরপর স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ ২০১৮ সালের জুলাইয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে ২১ একর জমি অধিগ্রহণের প্রস্তাব পাঠায়। প্রস্তাবিত জমিতে বসতবাড়ি থাকায় আপত্তি জানান স্থানীয়রা। এ অবস্থায় থমকে যায় পুরো প্রক্রিয়াটি। তবে ২০১৯ সালের ৩০ জানুয়ারি প্রশাসন ও বন্দর কর্তৃপক্ষের সমন্বয়ে স্থলবন্দরের জন্য ১৩ একর ভূমি অধিগ্রহণে ভূমি জরিপ সম্পন্ন করা হয়। ২০১৬ সালের ৩০ মার্চ উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের কেদারাকোর্ট নামক স্থানে বাল্লা স্থলবন্দরকে দেশের ২৩তম স্থলবন্দর ঘোষণা করেন তৎকালীন নৌপরিবহন মন্ত্রী মো. শাজাহান খান।
চলতি বছর জেলা প্রশাসন জমি অধিগ্রহণ করতে গেলে দেখা দেয় নতুন সমস্যা। জমির মূল্য নির্ধারণ নিয়ে স্থানীয়দের সাথে প্রশাসনের দ্বিমত দেখা দেয়। স্থানীয়রা এ জমির মূল্য বেশি বলে দাবি করেন। কিন্তু প্রশাসন সরকার র্নিধারিত মূল্যে জমির অধিগ্রহণ মূল্য র্নিধারণ করে দেয়। এরই মধ্যে স্থানীয় কিছু ব্যবসায়ী এ জমির মূল্য আরও বেশি দেখিয়ে বেশ কিছু দলিল সম্পন্ন করে। এ নিয়ে টানাপোড়েনের পর গত বছরের ১৪ই ডিসেম্বর স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ দখল বুঝে নেয় তাদের অধিগ্রহণকৃত ১৩ একর জমি। এতে জটিলতা দূর হল এবং চুনারুঘাটবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি বাস্তবায়নে আর কোনো বাধা নেই। ইতোমধ্যেই বন্দরের অবকাঠামোসহ সব স্থাপনা নির্মাণের এসেসমেন্ট সম্পন্ন হওয়ার পর চলতি মাসের ৭ই সেপ্টেম্বর থেকে ২৫ কোটি টাকার স্থলবন্দরের আবাসিক প্রকল্পের বাউন্ডারি নির্মাণসহ উন্নয়নের কাজ শুরু হয়েছে।

 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2021. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close