০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার ০৭:১৯:৩১ পিএম
সর্বশেষ:

০১ অক্টোবর ২০২১ ০২:২৪:২৬ পিএম শুক্রবার     Print this E-mail this

মুহিবুল্লাহকে হত্যার ঘটনা দেশবিরোধী চক্রান্ত কিনা!

সাখাওয়াৎ হোসেন
বাংলার চোখ
 মুহিবুল্লাহকে হত্যার ঘটনা দেশবিরোধী চক্রান্ত কিনা!

মুহিবুল্লাহকে হত্যার ঘটনা দেশবিরোধী চক্রান্তের অংশ মনে করে জনশ্রুতি আছে ইন্ডিয়া আর মিয়ানমারের উপর অবিলম্বে জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রকে নিষেধাজ্ঞা দিতে হবে,নিন্দা মানে চক্রান্তকারীদের প্রশ্রয় দেওয়া মনে করছেG
গতবুধবার ঢাকায় যখন ইসলামী বক্তা মুফতি কাজী ইব্রাহিমকে আটকের কৌশল গ্রহণ আর অপর দিকে রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহকে কক্সবাজারের উখিয়ার, বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় কুতুপালংয়ে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে বলে এলাকায় জনশ্রুতি আছে।আর এলাকার মানুষ মনে করে মিয়ানমার ও ইন্ডিয়ার উপর জাতিসংঘ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, পশ্চিমা দেশগুলো এখনই নিষেধাজ্ঞা আরোপ না করলে এখানকার মানুষের শান্তি বিঘ্নের আশা করছে। পর্যবেক্ষক মহল মনে করে এই হত্যাকান্ড আর ওয়ান ইলেভেনের পর থেকে আলেম-ওলামাদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার,জুলুম,আইনের অপপ্রয়োগ, রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর জুলুম পৃথক কোন ঘটনা নয়!কিছু মানুষ এটাও বলছে কিছু দিন পূর্ব ইন্ডিয়ান বংশোদ্ভূত বিশ্বব্যাংকে কর্মরতরা রোহিঙ্গা মুসলমানদের বাংলাদেশে পূর্নবাসনের প্রস্তাবটা এই হত্যাকান্ডের৷ কারণ কিনা তদন্তকালীন এটাও মাথায় রাখার কথা উঠেছে।কারণ বিশ্বব্যাংকের শরণার্থীদের বিষয়ে মাথা ঘামানোর কথা নয়! এটি জাতি সংঘের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের দেখার বিষয়। অন্য একটি সূত্র মনে করে ইন্ডিয়া ও মিয়ানমার বাংলাদেশের অভ্যান্তরে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অংশ মনে করেছে।এই তদন্ত বাংলাদেশের সকল গোয়েন্দা সংস্হাকে সার্বভৌমত্বের স্বার্থে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া উচিৎ। তবে ইন্ডিয়া এবং বার্মার বিরুদ্ধে জাতিসংঘ সহ সকলেই জরুরী নিষেধাজ্ঞার উপর গুরুত্ব দিয়েছে। বিভিন্ন সূত্র মতে এই হত্যাকান্ড বাংলাদেশের অভ্যান্তরে সাম্রাজ্যেবাদ,আধিপত্যবাদ,সম্প্রসারণবাদ ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তির প্রতিপক্ষদের উপর আইনের, যে অপপ্রয়োগ তারই এটা অংশ বলে মনে করছে! রোহিঙ্গা শরণার্থী নেতা মুহিবুল্লাহকে হত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে এ ঘটনায় তদন্ত করতে বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাতে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।
২০১৭ সালে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর গণহত্যা, ধর্ষণ ও অগ্নিকাণ্ড থেকে বাঁচতে ৭ লাখ ৩০ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। তাদের বড় একটি গোষ্ঠীর নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন মুহিবুল্লাহ।
বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) নিউিইয়র্কে এক সংবাদ সম্মেলনে জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টেফানি ট্রেম্বলে বলেন, এ হত্যাকাণ্ডের তদন্ত করে দায়ীদের জবাবদিহিতার আওতায় নিয়ে আসতে বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।
এদিকে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিংকিন বলেন, মুহিবুল্লাহকে হত্যার ঘটনায় তিনি দুঃখভারাক্রান্ত ও বিভ্রান্তি বোধ করছেন। বিশ্বজুড়ে রোহিঙ্গা মুসলমানদের অধিকার আদায়ে তাকে সাহসী ও তুখোড় সমর্থক হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন মুহিবুল্লাহকে।
তিনি বলেন, তার হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় স্বচ্ছা ও পূর্ণ তদন্তের আহ্বান জানাচ্ছি, যাতে এতে জড়িত ঘৃণ্য অপরাধীদের শাস্তির মুখোমুখি করা যায়।
মুহিবুল্লাহকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে দ্রুত তদন্ত করে দোষীদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনগুলোও খুনিদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে। সূত্র: রয়টার্স

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2021. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close