০২ ডিসেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার ০১:৪৫:৫৬ পিএম
সর্বশেষ:

০৬ অক্টোবর ২০২১ ০৬:১৯:১৫ পিএম বুধবার     Print this E-mail this

স্বামী হারা অর্থহারা নারী সীমা বেগমের এখন শেষ ভরসা আদালত

মালিকুজ্জামান কাকা, যশোর
বাংলার চোখ
 স্বামী হারা অর্থহারা নারী সীমা বেগমের এখন শেষ ভরসা আদালত

যশোর শহরের সিটি কলেজ পূর্ব বারান্দী মোল্যাপাড়ার এক নারী স্বামীর প্রতারনার শিকার হয়ে এখন ঘরহীন স্বামীহারা হয়ে এখন পথে পথে ঘুরছেন। আদালতে বিচার প্রার্থনা করছেন সীমা বেগম। তার কাছে থাকা শেষ সম্বল টুকুও ঐ নরপিশাচ স্বামী হাতিয়ে নিয়েছে। স্ত্রীর কাছ থেকে নানা ছলে সে তিন লাখ টাকা নগদ নিয়ে নিয়েছে। এখন সীমার শেষ সম্বল মাঠের ১২ শতক জমি যার মূল্য ১৮ লাখ টাকা তা বিক্রি করে স্বামীকে দিতে বলছে। না দেওয়ায় সীমাকে পিতার বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছে।
ঘটনার বিবরনে জানা যায়, মাগুরা জেলার শালিখা থানার হরিশ পুর গ্রামের আকবর আলী মোল্যার পুত্র টিপু সুলতান (৪১) এর সাথে সিটি কলেজ পাড়ার আলতাফ হোসেন আলতুর কন্যা সীমা বেগম (৩০) এর বিবাহ হয় ১১/০৩/২০২০ তারিখে। কাবিন নামায় ৫০,০০০ টাকা দেনমোহর উল্লেখ আছে। কিন্ত এখানেও টিপু সুলতান ও তার অভিভাবকদের প্রতারনা রয়েছে। দেন মোহর নির্র্ধারিত ছিল এক লাখ টাকা। পাশাপাশি পুত্র কে তার অবিবাহিত দাবি করে বিবাহ দেন। কিন্ত পরে স্বামীর বাড়ি যেয়ে সীমা বেগম দেখে টিপু সুলতানের আরো দুটি স্ত্রী রয়েছে। বড় স্ত্রী শালিখা থানার সজনী গ্রামের সর্দার পাড়ার রুবি বিবি। আর দ্বিতীয় স্ত্রী সীমাখালির পিয়ারপুরের সাহেব আলীর কন্যা মরিয়ম বেগম। বিবাহের সাত মাস পরে বড় স্ত্রী রুবি তার বিবাহের কাগজ পত্র সীমাকে দেখালে ঘটনাটি প্রকাশ পায়। বিষয়টি জানতে পারায় টিপু সুলতান তার ৩য় স্ত্রী সীমা বেগমের উপর অত্যাচার শুরু করে। স্বামীর অত্যাচার থেকে বাঁচতে সীমা বেগম বার বার টাকা দিতে বাধ্য হয়। এর মধ্যে নর পিশাচ টিপু সুলতান সীমা বেগমের কাছ থেকে এক লাখ টাকা যৌতুক নিয়ে ২য় স্ত্রী মরিয়ম কে তালাক দেয়। এরপর কয়েকবার সীমার কাছ থেকে মোট নগদ তিন লাখ টাকা যৌতুক নেয়। তবে সীমার মা গোলে বেগম জানান প্রকৃত পক্ষে সীমার স্বামী টিপু সুলতান কে প্রায় পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক দেওয়া হয়েছে।
এদিকে টিপু সুলতানের অপকর্ম এতটাই যে তা প্রথমে বুঝতে পারেননি সীমা বেগম। তাকে ফুসলিয়ে কৌশলে ঢাকায় নিয়ে অন্য পুরুষের হাতে তুলে দেয়। তবে যাওয়ার আগে টিপু সীমাকে এই বলে সতর্ক করে যে সে ঢাকায় যাচ্ছে এই তথ্যটি যেন তার পিতার বাড়ির কেউ না জানে। সীমা ভাবে স্বামীর সাথে রাজধানিতে যাচ্ছি এটি গোপন করলে কি আর এমন ক্ষতি। কিন্ত স্বামীর মনে যে দুরভিসন্ধি রয়েছে তা সে ঘুর্নাক্ষরেও টের পায়নি। ঢাকায় পা দিয়েই দুই দিন মোহাম্মদপুর ঢাকা উদ্যানের ব্লক ডি এর ১টি বাড়ি এক সাথে থাকার পর টিপু সুলতান সীমার কাছে থাকা নগদ ৮০,০০০ টাকা ও স্বর্নের দেড় ভরি ওজনের একটি চেইন হাতিয়ে নেয় সালমান শাহ নামের এক বন্ধুর সহযোগিতায়। পরে জানা যায় ঐ সালমান শাহের কাছে বিক্রি করেছে টিপু সুলতান। তবে টাকার অংক বা সালমান শাহের প্রকৃত নাম জানা যায়নি। গত ১৯/০৯/২০২১ তারিখ এই ঘটনাটি ঘটে। সেদিন টাকা ও স্বর্নের চেইন নিয়ে চলে যায়। বাড়ির অন্যান্য ভাড়াটিয়ারা বিষয়টি দেখে। স্থানীয়রা সীমা কে উদ্ধার করে তিন দিন পর ঢাকা মেট্রো এলাকার মোহাম্মদপুর থানায় পৌছে দেয়। ২৪/০৯/২০২১ তারিখ থানায় সীমা বেগম বাদি হয়ে একটি জিডি করে। জিডি নং- ২০৫৮, তারিখ ঃ ২৪/০৯/২০২১ ইং। এ সময় পুলিশ টিপু সুলতানের মোবাইল ফোনে ফোন দিলে তা বন্ধ পায়। পরে নিজের পিত্রালয়ে মোবাইল ফোন করে সীমা। বাড়ি থেকে পাঠানো টাকায় সীমা বেগম বাসে করে বাড়ি চলে আসে। ৩০/০৯/২০১০ তারিখে ফোন খুলে সে সীমাকে বলে তোকে যেখানে বিক্রি করেছি সেখানে থাক আমার সাথে আর যোগাযোগের প্রয়োজন নেই। তবে ০৪/১০/২০২১ তারিখে সে লোকজন নিয়ে আবারো সীমাকে অপহরন করতে আসে। এসময় টিপু সুলতানের সাথে ছিল চাচাতো ভাই শাহীন (পিং আমীর মোল্যা)। এসময় টিপু সুলতান বলে তিন লাখ টাকা নগদ দিলে সে আবারো সংসার করবে সীমা কে নিয়ে। আর টাকা পেলে অতীতের কোন কথা না ধরে সংসার করবো। তবে তার সামনেও আর যৌতুকের কথা তোলা যাবেনা। পরে মধ্যস্থতাকারিদের আশ্বাসে সীমা বেগম, টিপু সুলতানের শিশু কন্যা তানিয়া (৭), সীমার মাতা ও বিবাহের উকিল আসমা বেগম টিপু সুলতানের বাড়ি যায়। এসময় টিপু সুলতান বাড়ি থেকে তার বড় স্ত্রীকে নিয়ে ভাগ্নী ফাতেমাদের বাড়ি চলে যায়। আর বাড়ির লোকজন টিপু সুলতানের চাচাতো ভাই শাহীন, শাহীনের মা, সীমার জা শারমীন (স্বামী সেলিম), শশুর আকবর মোল্যা, শাশুড়ী সখিনা বেগম এলোপাথাড়ি মারধোর করে সীমার শ্লীলতাহানী করে। শাহীনের মা দম্ভোক্তি করে যে, আমার স্বামী ১১টি বিয়ে করেছে। তাদের কাউকেই এক টাকা কাবিনের দেনমোহর দেওয়া লাগেনি। সবাইকে মেরে তাড়িয়েছি। উপস্থিত অনেকেই কথা গুলো শোনে এবং বিষয়টি প্রত্যক্ষ করে। এসময় শশুরবাড়ির লোকজন সীমাকে ঘরে আটকিয়ে মাদকদ্রব্য দিয়ে পুলিশে সোর্পদ করার ষড়যন্ত্র করে। গ্রামের সমাজসেবী লিয়াকত এসে সীমাকে উদ্ধার করে নিজের হেফাজতে রাখে। এসময় বলে তোর বাড়ির লোকজনকে খবর দে তারা আসুক। ফোনে খবর পেয়ে সীমার বাড়ি থেকে তার ভাই জনি ও মাহফুজ বোনের শশুরবাড়ি যায়। শালিখা পৌরসভায় বিষয়টি নিয়ে মীমাংসার চেষ্টা করা হয়। সেখানে জসিম মেম্বরও উপস্থিত ছিল। কিন্ত টিপু সুলতানের বাড়ির লোকজন কোন মীমাংসায় যেতে নারাজ হলে স্থানীয় মাতুব্বররা ব্যর্থ হয়ে সীমাকে তার ভাইদের হাতে তুলে দেয়। বাড়ি এসে পরে সীমার বাড়ির লোকজন আবারো টিপু সুলতান কে মোবাইল ফোনে ফোন দিলেও প্রতিবার তা বন্ধ পাওয়া গেছে। এমনকি তার বড় স্ত্রী রুবিও সীমাার বাড়ির সকলের নাম্বার ব্লাক লিস্টে রেখেছে। জানা গেছে, নরপিশাচ স্ত্রী বিক্রেতা টিপু সুলতান বর্তমানে ঐ বড় স্ত্রী রুবির হেফাজতে তার সাথে সংসার করছে।
সীমা বেগমের পরিবারের লোকজন জানান, সীমার নামে যে ১২ শতক মাঠান জমি রয়েছে সেই দিকে নজর পড়েছে টিপু সুলতানের পরিবারের। ওরা ঐ জমিটি বিক্রি করে টিপু সুলতান কে দিলে সংসার করার কথা ভাববে বলে জানিয়েছে। এর আগেও সীমাকে টিপু সুলতান ও তার বাড়ির লোকজন কয়েক বার হত্যা করে লাশ গুম করার অপচেষ্টা করেছে তাদের বোনকে। পুলিশ ও স্থানীয় মাতুব্বররা কয়েক বার তাকে উদ্ধার করেছে। সীমার ঘটনাটি শালিখা থানা পুলিশসহ অনেকেই জানে। তাছাড়া সীমা বেগমের ভাই মাহফুজ আড়াই লাখ টাকা টিপু সুলতানকে যৌতুক দিয়েছে। এছাড়া অনেক সমিতি থেকে ঋন নিয়েও তাকে নগদ যৌতুকের টাকা দেওয়া হয়েছে।
এদিকে স্বামী হারা, ঘর হারা অর্থ হারা সীমা বেগম বর্তমানে মিথ্যা ও হয়রানি মূূলক মামলায় জড়িয়ে যাওয়ার আতঙ্কে রয়েছেন। স্বামীর বাড়ির লোকজন প্রকাশ্যেই সীমাকে মাদক ব্যবসায়ি হিসেবে প্রচার করে পুলিশের হাতে ফাঁসিয়ে দেওয়ার কথা বলছে।
সীমা বেগম স্বামী টিপু সুলতানসহ শশুরবাড়ির চার সদস্যকে অভিযুক্ত করে বুধবার যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ করেছেন। এই নিয়ে ভয়ঙ্কর প্রতারক নরপিশাচ টিপু সুলতানের নামে একাধিক অভিযোগ করা হয়েছে। এতেও দমছেনা এই নরপিশাচ।

 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
সম্পাদক
শরীফ মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক
নাঈম পারভেজ অপু
আইটি উপদেষ্টা
সোহেল আসলাম
উপদেষ্টামন্ডলী
মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরী
কার্যালয়
১০৫, এয়ারপোর্ট রোড, আওলাদ হোসেন মার্কেট (৩য় তলা)
তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫।
ফোন ও ফ্যাক্স :+৮৮০-০২-৯১০২২০২
সেল : ০১৭১১২৬১৭৫৫, ০১৯১২০২৩৫৪৬
E-Mail: banglarchokh@yahoo.com, banglarchokh.photo1@gmail.com
© 2005-2021. All rights reserved by Banglar Chokh Media Limited
Developed by eMythMakers.com
Close