Banglar Chokh | বাংলার চোখ

সিংড়ায় কাউন্সিলর

নাম ছাড়া কিছুই লিখতে পারেন না, তবুও এসএসসি পরীক্ষায় পাশ!

মোস্তফা কামাল বুলবুল,ফেনী থেকে

প্রকাশিত: ২১:১৮, ৩০ নভেম্বর ২০২২

নাম ছাড়া কিছুই লিখতে পারেন না, তবুও এসএসসি পরীক্ষায় পাশ!

ফাইল ফটো

জয়তন বেগম নিজের নাম ছাড়া কিছুই লিখতে পারেন না। তবে তিনি এবার এসএসসি পাস করেছেন এনিয়ে আলোড়ন চলছে সিংড়ায়। আলোচিত ওই নারী সিংড়া পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও পৌর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। জয়তন এ বছর সিংড়া পৌরসভা ভবন সংলগ্ন কারিগরি মহিলা মহাবিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৪.৬১ পেয়েছেন। তিনি ভোকেশনাল শাখার সিভিল। কন্সট্রাকশন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা বিষয়গুলোর নাম বলতে না পারলেও তার। উত্তীর্ণ ফলাফলে বাংলা, অংক, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, পদার্থ, কম্পিউটার এপ্লিকেশন, ইঞ্জিনিয়ারিং ড্রয়িং, শারীরিক শিক্ষা স্বাস্থ্য বিজ্ঞান ত খেলাধূলা, ইন্ডাস্ট্রিয়াল এট্যাসমেন্ট ট্রেনিং, সিভিল কনস্ট্রাকশন। পাঠ-১ ও পাঠ-২ বিষয়ে এ প্লাস পেয়েছেন। এছাড়া ইংরেজি ও ৬ রসায়নে এ আত্ম কর্মসংস্থান ও ব্যবসায় উদ্যোগ বিষয়ে এ মাইনাস এবং ইসলাম ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষায় বি পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন। জয়তন বেগম মুঠোফোনে বলেন, সব পরীক্ষায় তিনি অংশ নিয়েছেন। লিখতে পারেন কিনা বা কাটি বিষয়ে পরীক্ষা দিয়েছেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বাংলা, গণিত, অংক ও ইংরেজি বিষয়ে পরীক্ষা দিয়েছেন। আর অন্য বিষয়গুলো না দেখে বলতে পারবেন না জানিয়ে ফোন কেটে দেন। পরে আবার ফোন করা হলে তিনি বলেন, আমি

১৪টি বিষয়ে পরীক্ষা দিয়ে পাশ করেছি। বিয়েতে আছি, বলে ফোন কেটে দেন। কারিগরি মহিলা মহাবিদ্যালয়ে সরজমিনে গেলে বানানও জানেন না তিনি। তবুও তিনি এবার এসএসসি পাশ । প্রতিষ্ঠানের অফিস সহকারী শরিফুল ইসলাম জানান, জয়তন বেগম ২০১৯ সালে জন শ্রেণিতে ভর্তি হন। পরবর্তীতে করোনার কারণে অটো পাশ করেন। আর এবারের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৪.৬১ পেয়ে পাশ করেছেন। তার জন্ম তারিখ: ১৭ অক্টোবর-১৯৮০ এবং এসএসসির রোল নম্বরঃ ১৮৮৫২৬। তবে করোনার কারণে প্রতিষ্ঠানের কোনো পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হয়নি এবং তার লেখা কোন খাতা প্রতিষ্ঠানে নেই। বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ আব্দুস সবুর মুঠোফোনে বলেন, এই নারী কাউন্সিলর লিখতে পারেন। তিনি সব পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন এবং পরীক্ষায় কোন অসৎ পন্থা অবলম্বন করেননি। সিংড়া পৌরসভার একাধিক কর্মকর্তা ও কর্মচারী বলেন, এটা তো জলন্ত সত্য কথা যে ওই কাউন্সিলর লিখতে পারেন না। পৌরসভার একাধিক কাউন্সিলর বলেন, সে নির্বাচিত হওয়ার পর কোন রকম তার নাম। স্বাক্ষর করা শিখেছেন। তবে কিভাবে সে পরীক্ষায় পাশ করল তাদের জানা নেই। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমিনুর রহমান বলেন, তার পরীক্ষায় অংশগ্রহণের বিষয়টি জানা নেই। সিংড়া পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত নেয়র সঞ্জয় কুমার সাহা বলেন, এনিয়ে এলাকায় বেশ আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়