Banglar Chokh | বাংলার চোখ

পাবনা জেলা পরিষদ নির্বাচন 

দলীয় প্রার্থীর সমর্থনে সরে দাঁড়ালেন কামিল

পাবনা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২২:১৪, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

দলীয় প্রার্থীর সমর্থনে সরে দাঁড়ালেন কামিল

নিজস্ব ছবি

সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে চেয়ারম্যান পদে দল মনোনীত প্রার্থীকে সমর্থন জানিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে জেলা পরিষদ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক কামিল হোসেন।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা আ স ম আব্দুর রহিম পাকনকে সমর্থন জানিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ও  প্রার্থীতা থেকে সরে দাঁড়ানোর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন তিনি।

জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল রহিম লাল, সাধারণ সম্পাদক ও সদর আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স, প্রার্থী আব্দুর রহিম পাকন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ মোশারফ হোসেন সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষদিনে চেয়ারম্যান পদে নিজের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন কামিল হোসেন। তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা, না করা নিয়ে গত দুইদিনে নানা জল্পনা কল্পনা চলে।

সংবাদ সম্মেলন শেষে আব্দুর রহিম পাকন ও কামিল হোসেন পরস্পর কোলাকুলি করে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় আব্দুর রহিম পাকন আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। পরে রেজাউল রহিম লাল দু’জনকে মিষ্টি মুখ করান। এর মাধ্যমে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন আব্দুর রহিম পাকন।

সংবাদ সম্মেলনে গোলাম ফারুক প্রিন্স বলেন, পাবনা জেলা পরিষদের নির্বাচনে আব্দুর রহিম পাকন শেখ হাসিনা মনোনীত প্রার্থী। একইসাথে কামিল হোসেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ইচ্ছাপোষণ করেছিলেন। তবে, শেখ হাসিনার নির্দেশের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে তিনি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন।

রেজাউল রহিম লাল বলেন, যেকোনো নির্বাচন নিয়েই দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা যায়। অনেকেই দলের কাছে মনোনয়ন চান। তারই ধারাবাহিকতায় জেলা পরিষদ নির্বাচনেও আমাদের দু’জন নেতা মনোনয়ন চেয়েছিলেন। কামিল হোসেন আওয়ামীলীগের প্রশ্নে অটুট। দলের দুর্দিনে কামিল হোসেনের অনেক অবদান রয়েছে। তার সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাই।

আব্দুর রহিম পাকন বলেন, আমরা দু’জনই মনোনয়ন চেয়েছিলাম। দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে। কামিল আমার ছোট ভাই। আমার বয়স হয়েছে। এখন আমার যাবার সময় হয়ে গেছে। শেষ বয়সে এসে সম্মান নিয়ে দেশের মানুষের জন্য কিছু কাজ করে যেতে চাই। কামিল আমাকে যথেষ্ট শ্রদ্ধা করেন ভালবাসেন। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করায় তাকে ধন্যবাদ জানাই।

কামিল হোসেন বলেন, যেহেতু আমরা একটি পরিবার। কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নির্দেশনায় এবং শেখ হাসিনার প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আজকে এই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ আমাকে বলেছেন, নির্বাচনে দল মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবার জন্য। আগামীতে অনেক সুযোগ রয়েছে। মাননীয় নেত্রী আগামীতে যেকোনো নির্বাচনে সুযোগ করে দিবেন। জেলা আওয়ামীলীগের ঐকবদ্ধ অবস্থান অক্ষুন্ন রাখার স্বার্থে আমি নির্বাচনী মাঠ থেকে সরে দাঁড়িয়েছি। পাশাপাশি মনোনীত প্রার্থী আব্দুর রহিম পাকন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। তার প্রতি সম্মান রেখে আমি মনোনয়ন প্রত্যাহার করেছি। 

এদিকে, সোমবার বিকেলে পাবনা জেলা পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল হোসেন চেয়ারম্যান পদে আর কোনো প্রার্থী না থাকায় আব্দুর রহিম পাকনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত ঘোষণা করে গণবিজ্ঞপ্তি জারী করেন।
 

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়