Banglar Chokh | বাংলার চোখ

জেলা পরিষদ নির্বাচন, নোয়াখালীতে দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৬

প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৯:০৩, ২৮ নভেম্বর ২০২২

জেলা পরিষদ নির্বাচন, নোয়াখালীতে দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৬

.

নোয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচনে ফলাফল ঘোষণার পর দুই সাধারণ সদস্যের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১৬ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ৫ জনকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
 সোমবার (২৮ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে জেলা শহর মাইজদীর হরিনারায়ণপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে মাঈন উদ্দিন সাজু (৩৮), তাজুল হক (৩০), স্বপন (৫০), মিজান (৩৪) ও  কামাল হোসেনকে (৩৬) জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা সবাই বিজয়ী প্রার্থী আরমান চৌধুরীর সমর্থক। অপর আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, জেলা পরিষদ নির্বাচনে সোমবার সকাল ৯টা থেকে সদরের হরিনারায়ণপুর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হয়। দুপুর ২টায় ভোট গ্রহণ শেষে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। সদস্যপদে ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে ৮৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন শওকত রেজা চৌধুরী আরমান, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী অটোরিকশা প্রতীকের প্রার্থী কামাল উদ্দিন পেয়েছেন ৮৪ ভোট। বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কেন্দ্রের সামনে জয়োল্লাস করার সময় পরাজিত প্রার্থীর লোকজনের সঙ্গে জয়ী প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হন। আহতদের মধ্যে বেশির ভাগই মাথায় আঘাত পেয়েছেন।
 
বিজয়ী প্রার্থী শওকত রেজা চৌধুরী আরমান অভিযোগ করে বলেন, ‘ফল ঘোষণার পর হেরে গিয়ে কামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে তার লোকজন অস্ত্র নিয়ে আমার সমর্থকদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আমার অনেক নেতাকর্মী আহত হয়। এ ছাড়া সোনাপুর জিরো পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে পুনরায় গাড়ি থেকে নামিয়ে কামাল আমার ভোটারদের মারধর করেছে। এ বিষয়ে দলের ঊর্ধ্বতন লোকজনকে অবগত করা হয়েছে।’

এ বিষয়ে জানতে পরাজিত প্রার্থী কামাল উদ্দিনের ব্যবহৃত মোবাইলে নম্বরে একাধিকবার চেষ্টা করলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, উভয় পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনায় কেউ এখনও থানায় অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়