Banglar Chokh | বাংলার চোখ

মরগ্যান ফ্রিম্যান কি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন! 

 বিনোদন ডেস্ক 

প্রকাশিত: ০২:৪১, ২৪ নভেম্বর ২০২২

মরগ্যান ফ্রিম্যান কি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন! 

ছবি-সংগৃহীত

কাতারে এখন চলছে ফিফা বিশ্বকাপ। এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হাজির থেকে মঞ্চ মাতিয়েছেন হলিউড অভিনেতা মরগ্যান ফ্রিম্যান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার পর থেকেই লাইমলাইটে রয়েছেন মরগ্যান। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে, অনুষ্ঠানের আয়োজক দেশ মুসলিম হওয়ায় সমালোচনা হচ্ছে বেশি।

যা শুরু হয় মরগ্যান ফ্রিম্যান উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিতে কাতার যাওয়ার পর থেকেই। অনুষ্ঠান চলাকালীন, হলিউড অভিনেতা ২২ বছর বয়সী কাতারের প্রতিবন্ধী কর্মী এবং প্রেরণাদায়ক বক্তা ঘানিম আল মুফতাহসহ মঞ্চে ওঠেন। তখন থেকেই জল্পনা চলছে যে মরগ্যান ফ্রিম্যান ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। যদিও বাস্তবতা সম্পূর্ণ বিপরীত। খবর ডেইলি টাইমস।

বিভিন্ন ধর্মের প্রতি মরগানের আগ্রহ নতুন কিছু না। তিনি বিভিন্ন দেশে একাধিক অনুষ্ঠান করেছেন। সেসব দেশ সম্পর্কে জানার এবং বোঝার চেষ্টা করেছেন। ইসলাম ধর্মও তাদের মধ্যে একটি।

কাতারে যাওয়া দিয়ে কিছুতে প্রমাণ হয় না যে মরগ্যান ইসলাম ধর্ম বেছে নিয়েছেন এবং তার বাকি জীবন অনুসরণ করবেন।

এই গুণী শিল্পী ইসলাম গ্রহণ করেছেন এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ে নানা মাধ্যমে। যদিও এর পক্ষে কোনো তথ্য কেউ সরবরাহ করেনি।

যা হোক, বিশ্বজুড়ে কোটি কোটি মুসলমানের আশা এবং ইচ্ছা অবশ্যই ভেঙে যায় যখন মিসবার, একটি স্বাধীন আরবি ফ্যাক্ট-চেক প্ল্যাটফর্ম, ফ্রিম্যানের ইসলামে ধর্মান্তরিত হওয়ার বিষয়ে অভিযোগটি তদন্ত করে এবং এটি জাল বলে প্রমাণিত হয়।

প্ল্যাটফর্মটি উদ্ধৃত করেছে, ‘অভিনেতা ইসলামে ধর্মান্তরিত হওয়ার ঘোষণা দেননি এবং কোনো নির্ভরযোগ্য সংবাদমাধ্যমও খবরটি জানায়নি’।

এ ছাড়া ২০১৫ সালে যখন ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক শো ‘দা স্টোরি অফ গড উইথ মরগ্যান ফ্রিম্যান’ প্রকাশিত হয়েছিল, তখন তিনি তার ধর্মীয় বিশ্বাস সম্পর্কিত এমন ভুয়া খবরের শিকার হন।

এ ছাড়া দা গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, কাতারে গত এক দশকে ৬৫০০ অভিবাসী কর্মী মারা গেছে। যাদের অনেকে বিশ্বকাপ আয়োজনের প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণের ঝুঁকিপূর্ণ কাজে যুক্ত ছিল। কাতারে সমকামী সম্পর্ক অবৈধ এবং জনসম্মুখে সমকামিতা প্রদর্শন নিষেধ করা হয়েছে।

ফোর্বস জানায়, ডুয়া লিপা, শাকিরা এবং রড স্টুয়ার্টের মতো বেশ কয়েজন তারকা এ বিতর্কের বিষয়ে স্পষ্টবাদী ছিলেন। কাতারের মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রতিবাদে এ বছরের বিশ্বকাপে পারফর্ম করতে সরাসরি অস্বীকার করেছিলেন তারা। ফ্রিম্যান অবশ্য এ ধরনের উদ্বেগ প্রকাশ করেননি। যা নিয়েও রয়েছে বিতর্ক।

সূত্র:ডেইলি টাইমস

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়