Banglar Chokh | বাংলার চোখ

রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সাম্প্রদায়িক বিষবাক্য ছড়ানো হয়: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

শাহরিয়ার মিল্টন,শেরপুর নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২১:২১, ৫ ডিসেম্বর ২০২২

রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সাম্প্রদায়িক বিষবাক্য ছড়ানো হয়: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব ছবি

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান দুলাল বলেছেন, দেশে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সাম্প্রদায়িক বিষবাক্য ছড়ানো হয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য ৩০ লাখ মানুষ রক্ত দিয়েছেন এক সাথে মিলে মিশে থাকার জন্য। পবিত্র কুরআন ও মহানবী (সা.) এর জীবনী তথা মদিনা সনদ, মক্কা বিজয়ের ঘটনা এবং বিভিন্ন হাদিস থেকে আমরা অসাম্প্রদায়িক সমাজ ব্যবস্থার কথা জানতে পারি। বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক সমাজ রক্ষায় আমাদেরকে মহানবীর জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। সোমবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ১১টা জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত ‘ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সচেতনতামূলক আন্ত:ধর্মীয় সংলাপে’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
জেলা প্রশাসক সাহেলা আক্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথির  বক্তব্য রাখেন, জাতীয় সংসদের হুইপ বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিউর রহমান আতিক এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো. কামরুজ্জামান বিপিএম। বক্তব্য রাখেন বিভিন্ন ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, প্রশাসনিক কর্মকর্তারা ।
সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে হুইপ আতিক বলেন, কোনো অশুভ শক্তি যেন রাজনৈতিক হীনস্বার্থ চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে এদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পরিবেশ বিনষ্ট করতে না পারে এবং দেশের মধ্যে দাঙ্গা-হাঙ্গামা সৃষ্টি করতে না পারে এ বিষয়ে সকল ধর্মীয় নেতৃবৃন্দকে তাদের নিজ নিজ অবস্থান হতে দায়িত্ব পালন করতে হবে। বিশেষ করে মসজিদের খতিব ও ইমামগণ জুমার বয়ানে নিয়মিত ভাবে তুলে ধরতে পারেন।
সংলাপে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, নির্বাহী অফিসারবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা, বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, সাংবাদিক প্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সংস্কৃতি কর্মীসহ জেলার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার প্রতিনিধিগণ অংশ গ্রহণ করেন।
 

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়