Banglar Chokh | বাংলার চোখ

চরফ্যাশনে সন্ত্রাসী হামলায় ছাত্রদল নেতা ও যুবদল নেতাকে কুপিয়ে জখম 

প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৬:৫৯, ৪ নভেম্বর ২০২২

আপডেট: ১৭:০৯, ৪ নভেম্বর ২০২২

চরফ্যাশনে সন্ত্রাসী হামলায় ছাত্রদল নেতা ও যুবদল নেতাকে কুপিয়ে জখম 

নিজস্ব ছবি

সন্ত্রাসী হামলায় চরফ্যাশন সরকারী কলেজ ছাত্রদল নেতা ও যুবদলের সহ-সভাপতি আহত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল বুধবার রাত ৯টায় চরফ্যাশন থানারোড ব্রিজের (বেইলী ব্রিজ)  উপর চরফ্যাশন সরকারী কলেজ ছাত্রদল নেতার উপর হামলার ঘটনা ঘটে বলে আহত ছাত্রদল নেতা ইয়াস মিয়াজি অভিযোগ করেন। তিনি বলেন,বুধবার রাতে থানারোড থেকে কাজ শেষ করে যাওয়ার পথে তরিক,তুহিন ও সাকিব'সহ অন্তত ১৫-২০জন সন্ত্রাসী একত্রিত হয়ে লোহার রড,কাঠ এবং আখ, লাঠিসোঁটা নিয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় আমার উপরে হামলা করে রক্তাক্ত ও নীল ফোলা জখম করে। তারা স্থানীয় ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে তিনি দাবী করেন।  এদিকে উপজেলার মাদ্রাজ ইউনিয়নের একটি ওয়ার্ড যুবদল নেতাকে হত্যার উদ্দেশ্যে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, মো. ইদ্রিস মাঝি (৪৫) নামের এক যুবদল নেতাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে একদল সন্ত্রাসী। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এসময় তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে বলে ভুক্তভোগীর পরিবার অভিযোগ করেন।
গত বুধবার (২ নভেম্বর) দুপুরে মাদ্রাজ ইউনিয়নের চর আফজাল গ্রামের খাস পুকুর পাড়ের চৌমাথা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 
আহত মো. ইদ্রিস মাঝি উপজেলার চরমাদ্রাজ ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের চর আফজাল গ্রামের মৃত ওয়াজউদ্দিন মাঝির ছেলে।
গুরুতর আহত ইদ্রিস মাঝির স্বজনেরা জানান, গত মঙ্গলবার বিকেলে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা রাকিব মোল্লার সাথে বিএনপি-আ’লীগ নিয়ে ব্যবসায়ী যুবদল নেতা বেল্লাল ও ইদ্রিস মাঝির সাথে কথার কাটাকাাটি হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাকিব বেল্লাল ও ইদ্রিস মাঝিকে মারতে উত্তেজিত হলে এলাকাবাসী রাকিবকে বুঝিয়ে পাঠিয়ে দেন। কিছুক্ষণ পরেই ঘটনাস্থলে রাকিব মাদ্রাজ ইউনিয়নের উপজেলা শ্রমিকলীগের সহ-সভাপতি সাবেক ইউপি সদস্য আবদুর রহমান সর্দারকে (রহমান মেম্বার) নিয়ে আসেন। তিনি এসে ব্যবসায়ী বেল্লাল ও যুবদল নেতা ইদ্রিস মাঝিকে হুমকি-ধমকি দিয়ে বুধবার থেকে দোকান খুলতে নিষেধ করে দেন।
বুধবার সকালে তারা দোকান খুলে বেচাঁকেনা করছিলেন হঠাৎ সাড়ে ১১ টার দিকে স্থানীয় শ্রমিকলীগ নেতা আব্দুর রহমান সর্দারের নেতৃত্বে তার ছেলে ফিরোজ ও সহযোগী রাকিব মোল্লাসহ ৮/১০ জন একত্রিত হয়ে বেল্লাল ও ইদ্রিস মাঝির দোকানে সন্ত্রাসী কায়দায় হামলা চালিয়ে ব্যবসায়ী ইদ্রিস মাঝিকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করেন। এবং তার দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করে টাকা পয়সা নিয়ে যান।
স্থানীয় এলাকাবাসী ও তার স্বজনেরা তাকে উদ্ধার করে চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার আহতের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।
দুর্বৃত্তের সন্ত্রাসী হামলায় একই ইউনিয়নে মো.ফিরোজ নামের এক স্বেচ্ছাসেবক দল নেতাকেও বরিশাল মহা সমাবেসের পোস্টার লাগানোকে কেন্দ্র করে পিটিয়ে হাত ভেঙে দেয়ার অভিযোগ করেন আহত স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা। 
এ বিষয়ে অভিযুক্ত উপজেলা শ্রমিকলীগের সহ-সভাপতি ও চরমাদ্রাজ ১ নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য আবদুর রহমান সর্দার বলেন, মঙ্গলবার রাতে টিভিতে আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদকের বক্তব্য নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা রাকিবের সাথে যুবদল নেতা বেল্লাল ও ইদ্রিস মাঝির সাথে কথার কাটাকাটির এক পর্যায় রাকিবের উপর হামলার উদ্দেশ্যে তাকে দৌড়ে নিয়ে বাড়িতে উঠান। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার সকালে চরফ্যাশন থেকে ছাত্রলীগের পোলাপান এসেছে, পরে কি হয়েছে আমার জানা নাই।
এঘটনায় চরফ্যাশন থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোরাদ হোসেন বলেন, লোকমুখে ঘটনা শুনেছি। আমরাও খোঁজ খবর নিচ্ছি। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ করা হয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়