banglarchokh Logo

ভৈরবে নৌকার ইফতেখার হোসেন বেনু মেয়র নির্বাচিত

এম.আর রুবেল, ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) উপজেলা প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 ভৈরবে নৌকার ইফতেখার হোসেন বেনু মেয়র নির্বাচিত

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে পৌরসভা নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে মেয়র পদে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ইফতেখার হোসেন বেনু। তিনি পৌরসভার ৩৫টি কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকে সর্বমোট ভোট পেয়েছেন ৩৭ হাজার ৯’শ ৪৯ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হাজী মো: শাহিন ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৯ হাজার ৬শ’ ৪৯ ভোট। এছাড়াও সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আলহাজ্ব আব্দুল্লাহ আল মামুন পেয়েছেন ৪হাজার, ৮’শ ৮০ ভোট।

পৌরসভার ৩৫টি কেন্দ্রে রবিবার সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা চলে ভোট গ্রহণ। সাধারণ ভোটারগণ উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ইলেক্ট্রনিকস ভোটিং সিস্টেমে তাদেও ভোট প্রদান করেন। কেন্দ্র গুলোতে সকালে ভোটারদের উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। নারী ভোটারদের উপস্থিতিও ছিলো অনেক বেশি।
তবে কিছু কিছু কেন্দ্রে নিয়ম ভেঙ্গে পোলিং এজেন্ট ও অফিসারগণও সাধারণ ভোটারদের ভোট প্রদানে সহযোগিতার নামে নিদিষ্ট প্রতীকে ভোট প্রদান ও ভোটে বাধাগ্রস্থ করার অভিযোগ উঠে। সরেজমিনে বিভিন্ন কেন্দ্রে পর্যবেক্ষণে গিয়ে দেখা যায়, কিছু সংখ্যক পোলিং অফিসার ও নিদিষ্ট প্রার্থীর এজেন্টগণ ভোটারদের সাথে একই বুথের ভিতর ভোট দিতে সহযোগিতা করতে দেখা গেছে, যা সাংবাদিকদের ক্যামেরায় ধরা পড়ে। এবিষয়ে বিভিন্ন প্রিজাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসারদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলছেন, সিস্টেমটি নতুন হওয়ায় অনেকেরই ভোট দিতে সমস্যা হয়েছে। যাদেও ক্ষেত্রে সমস্যা শুধু তাদেরকেই সহযোগিতা করা হয়েছে। ভোটারগণ তাদের পছন্দের প্রার্থীকেই ভোট দিয়েছেন। ভোটারদের নাগরিক অধিকারে হস্তক্ষেপ করা হয়নি।
প্রথমবারের মতো ইভিএম এর মাধ্যমে ভৈরব পৌরসভায় নির্বাচনে ভোটগ্রহণ করা হয়। অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দিতে বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মাঠে ছিল সর্বক্ষণ। পৌরসভার ১২টি ওয়ার্ডের প্রতিটিতে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করে। এ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম এবং পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) বিভিন্ন ভোটকেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন।
নির্বাচন শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হলেও কয়েকটি কেন্দ্রে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটে। আমলাপাড়া পৌর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এক কাউন্সিলর প্রার্থী বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ও জোরপূর্বক ভোট প্রদানে সহযোগিতার অভিযোগ এনে বিদ্যালয় মাঠে তারা ভোট বর্জনের ঘোষণা দেয় এবং মাটিতে বসে প্রতিবাদ জানান। এছাড়াও ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসারের স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ এনে ৪নং ওয়ার্ডের কয়েকজন কাউন্সিলর প্রার্থী ভোটগ্রহণ বন্ধ ও কেন্দ্র স্থগিত করার দাবি জানান।
বিকাল ৩টার দিকে ওই আমলাপাড়া কেন্দ্রে কাউন্সিলর প্রার্থী শিমুলের সমর্থকদের সাথে কাউন্সিলর প্রার্থী লোকমান সরকার, কাউন্সিলর প্রার্থী মো: সজীব ও কাউন্সিলর প্রার্থী মো: সুজনের সর্মথকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করলে ভোট প্রদানে বাধাগ্রস্থ হলে পুলিশ লাঠিচার্জ ও তিন রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
ভৈরব পৌরসভার ১২টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হলেন: ১নং ওয়ার্ডে মো. আল আমিন সৈকত, ২নং ওয়ার্ডে মো. দ্বীন ইসলাম, ৩নং ওয়ার্ডে মমিনুল হক রাজু, ৪নং ওয়ার্ডে শহিদুল ইসলাম শিমুল, ৫নং ওয়ার্ডে মো. ফজলু মিয়া, ৬নং ওয়ার্ডে মোশারফ হোসেন মিন্টু, ৭নং ওয়ার্ডে মোহাম্মদ আলী সোহাগ, ৮নং ওয়ার্ডে হাবিবুল্লাহ নিয়াজ, ৯নং ওয়ার্ডে হাজী মো. মোমেন, ১০নং ওয়ার্ডে হাজী মনির হোসেন, ১১নং ওয়ার্ডে মো. মানিক মিয়া ও ১২নং ওয়ার্ডে মো. ইব্রাহিম মিয়া। এছাড়াও ৪টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মহিলা কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন: ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডে মোছা. আসমা বেগম, ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডে রোজী ইসলাম, ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডে শামীমা পারভেজ শিমু এবং ১০, ১১ ও ১২নং ওয়ার্ডে মৌসুনা রহমান বেলা।
এবারের পৌরসভা নির্বাচনে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৪ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৩ জনসহ মোট ৬১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করেছেন। ভৈরব পৌরসভায় ৩৫টি ভোট কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ৭৯ হাজার ৭শ’ ১৩। এর মধ্যে নারী ভোটার ৪০ হাজার ৩শ’ ৭ জন এবং পুরুষ ভোটার ৩৯ হাজার ৪শ’ ৬ জন। নির্বাচনে মোট ভোট দিয়েছেন ৫২ হাজার ৮০৪ জন। ভোট প্রদানের শতকরা হার ৬৬.২৬ ভাগ।
এদিকে নৌকার প্রার্থী ইফতেখার হোসেন বেনু বিশাল ব্যবধানে মেয়র পদে নির্বাচিত হওয়ায় আওয়ামীলীগের বিভিন্ন নেতৃবন্দ, বিভিন্ন সংগঠন ও ভৈরবের মানুষজন তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বিজয়ী মেয়র ইফতেখার হোসেন বেনু ভৈরবের দানবীর পরিবারের সন্তান ও ব্যক্তিগতভাবে তিনি একজন ন¤্রভদ্র ভালো মানুষ। তিনি পৌর মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করে ভৈরব পৌরসভার বিভিন্ন সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে কাজ করবেন ও সাধারন মানুষের আশার প্রতিফলন ঘটাবে বলে প্রত্যাশা পৌরবাসীর।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কপিরাইট © 2021 বাংলারচোখ.কম কর্তৃক সর্ব স্বত্ব ® সংরক্ষিত। Developed by eMythMakers.com