banglarchokh Logo

পাইকগাছায় ইউপি নির্বাচন কেন্দ্র করে উত্তপ্ত জনপদ

মহানন্দ অধিকারী মিন্টু, পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি
বাংলার চোখ
 পাইকগাছায় ইউপি নির্বাচন কেন্দ্র করে উত্তপ্ত জনপদ

 খুলনার পাইকগাছায় ইউপি নির্বাচন কেন্দ্র করে উত্তপ্ত জনপদ। উপজেলার হরিঢালী গত বৃহস্পতিবার রাতে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নির্বাচনী অফিস আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এর আগে সোলাদানা ইউনিয়নে ২৭ মার্চ সকালে আ.লীগ প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান এস এম এনামুল হক এর কর্মী সমর্থকরা নির্বাচনী পোষ্টার টানানোকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে চেয়ারম্যান এনামুল সহ উভয়পক্ষের শতাধিক ব্যক্তি মারাত্বক আহত হয়। উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে এ দু’জনপদ। উপজেলার হরিঢালী ইউপি পূর্ববর্তী নির্বাচনী ইতিহাসের ঘা শুকাতে না শুকাতে এমন ঘটনার সূত্রপাতকে ঘিরে স্থানীয়রা পূর্নাবৃত্তির আশঙ্কা করছেন। যদিও আগামী ১১ এপ্রিল ইউপি নির্বাচন স্থগীত করেছেন নির্বাচন কমিশন।

উপজেলার হরিঢালী ইউপি নোয়াকাটী আমতলা মোড় নামকস্থানে গত ১ এপ্রিল রাত আনুমানিক সাড়ে ৩ টার দিকে কে বা কারা নির্বাচনী অফিসে অগুন ধরিয়ে দেয়। একপর্যায় আগুনের লেলীহা শিখা আশপাশে অবস্থানরত এলাকাবাসীর নজরে আসে। তাৎক্ষণিক এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিবৃত করেন। তৎক্ষণে অফিসে থাকা চেয়ার, টেবিল, নৌকা প্রতীক ও প্রার্থীর ছবি সম্বলিত পোষ্টার পুড়ে যায়। এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ও জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ছবিতে খন্ড খন্ড ভাবে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানান। এদিকে খবর পেয়ে হরিঢালী ইউপির নৌকামার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী, থানা প্রশাসন ও হরিঢালী ক্যাম্প পুলিশের ইনচার্জসহ স্থানীয় আওয়ালীগের নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এ ব্যাপারে হরিঢালী ইউপির নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ বেনজীর আহমেদ বাচ্চু বলেন, এ ইউনিয়ন জুড়ে শান্তি প্রিয় মানুষের বসবাস। কিন্তু বিগত ইউপি নির্বাচনের ন্যায় এবারো একটি কুচক্রী মহল এ জনপদ ঘিরে ত্রাস সৃষ্টি করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আমি মনে করি তাহার বহিঃপ্রকাশ আমার নির্বাচনী প্রচারণা অফিসে আগুন লাগানো। উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান টিপু জানান, মৌখিকভাবে অভিযোগ পেয়েছি। দোষীদের আটক পূর্বক আইনের আওতায় আনারদাবী জানায় পুলিশের কাছে। উক্ত ঘটনার বিষয়ে পাইকগাছা থানা ইনচার্জ এজাজ শফী ও হরিঢালী ক্যাম্প ইনচার্জ মনিরুজ্জামান হাজরা বলেন, ঘটনাটি যা ঘটেছে এটি দুঃখজনক। তবে অপরাদধী যেই হোক না কেনো আটক পূর্বক আইনের আওয়াতায় আনা হবে।

এ দিকে থানায় মামলা সূত্রে জানাযায়, উপজেলার সোলাদানা ইউনিয়নে গত ২৭ মার্চ সকালে নৌকা প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান এর কর্মী সমর্থকদের মধ্যে নির্বাচনী পোষ্টার টানানোকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে চেয়ারম্যান এনামুল সহ উভয়পক্ষের শতাধিক ব্যক্তি মারাত্বক আহত হয়। এ ঘটনায় নৌকা প্রার্থী আব্দুল মান্নান এর ভাই রবিউল ইসলাম রবি বাদী হয়ে ৬৩ জনের নাম উল্লেখ করে পাইকগাছা থানায় মামলা করে। যার নম্বর ৩১। অপরদিকে চেয়ারম্যান এনামুল হক গুরতর অসুস্থ থাকার কারণে ঘটনার ৩ দিন পর থানায় ১২২ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করে। যার নং ৩৩। উভয় পক্ষের মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পাইকগাছা থানার ওসি (তদন্ত) আশরাফুল আলম বলেন, সঠিক ভাবে তদন্ত সম্পন্ন করা হবে। অহেতুক কাউকে মামলায় জড়ানো হবেনা। সবমিলিয়ে উপজেলায় ইউপি নির্বাচন কেন্দ্র করে উত্তপ্ত এ দু’জনপদ।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কপিরাইট © 2021 বাংলারচোখ.কম কর্তৃক সর্ব স্বত্ব ® সংরক্ষিত। Developed by eMythMakers.com