banglarchokh Logo

২৩ জুন পলাশীর প্রান্তে পরাধীনতার জিঞ্জির পরানোর ২৬৪ বছর- বিআরজেএ

ডেস্ক রিপোর্ট
বাংলার চোখ
 ২৩ জুন পলাশীর প্রান্তে পরাধীনতার জিঞ্জির পরানোর ২৬৪ বছর- বিআরজেএ

আজ পুরোন ২৬৪ বছর পরাধীনতার। এ উপলক্ষে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক এ্যাসোসিয়েশন(বিআরজেএ) ভার্চুয়াল আলোচনা সভাপতিত্ব করেন বিআরজেএ মোহাম্মদ সাখাওয়াৎ হোসেন ইবনে মঈন চৌধুরী অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় অংশগ্রহণ করেন সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ভিপি সরকার মিজানুর রহমান,মহাসচিব মোহাম্মদ আবু হানিফ, সাংগঠনিক সচিব মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, যুগ্মমহা-সচিব,লুৎফর রহমান, এরশাদুর রহমান, মোহাম্মদ আবু ইউসুফ,অর্থ সচিব ফাহিম আলনুর,সিনিয়র সাংবাদিক নঈম পারভেজ অপু, রফিকুল ইসলাম দুলাল,হুমায়ুন কবির তালহা,শহীদুল ইসলাম মিলন প্রমুখ।

বক্তারা বলেন আজকে অনুসন্ধান করার সময় এসেছে আর তা হচ্ছে উপনিবেশিক চক্র মানবতা মৌলিক অধিকার হরণ করতে নবাবের অধীনস্হা সেনা বাহিনীর প্রধান মীর্জাফর আলী খান বাদে সংখ্যাগরিষ্ঠ কারা ছিল তাদের চিহ্নিত করতে পারলেই পরাধীনতার জিঞ্জির পরাতে কারা সাহায্যে করেছে পরিস্কার হয়ে যাবে।কারণ ২৬৪ বছর ধরে কারা গোলামীর জিঞ্জির পরিয়ে লাভবান হচ্ছে এটা দেখেয় প্রকৃত অপরাধী চিহ্নিত করা যায়। সভপতি বলেন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, অফিসিয়াল সিকিউরিটি এ্যাক্ট, কালাকানুন, হামলা,মামলা,গুম,খুন,জনগণের অর্থ আত্মসাৎ এর পথ পরিস্কার করতে শুরু করে ২৩ জুন ১৭৫৭ থেকে। আজ ২৬৪ বছর যখনই উপনিবেশিক চক্র তখন নাগরিক অধিকার হরণ করে। তিনি বলেন জুলুমকারীদের আর উপনিবেশিক শাসকদের মুল লক্ষ ইসলাম,সত্য বলার অধিকার হরণ করা।

আজ ২৬৪ বছরের মধ্যে এ অন্চলের মানুষ স্বাধীনতার নামে দুই আবরণ পরির্বতন করতে গিয়ে তাজা রক্ত দিয়েছে।তিনি বলেন যারা রক্ত নিয়েছে তারাই বাহবা আর স্বীকৃতি পেয়েছে।আর যারা রক্ত দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে উপনিবেশিক কায়দায় মিথ্যাচার জুলুম ও অপবাদ আর প্রহসনের সাজার কারণে ২৬৪ বছরে ও পরাধীন নাগরিক এর মত জীবন-যাপন করতে হচ্ছে।তিনি বলেন এ অঞ্চলের মানুষকে মানবিক, মৌলিক ও নাগরিক অধীকার থেকে বঞ্ছিত করতে,আর জনগনের সম্পদ লুটতে অসম বিভক্তি করে তাদের স্বগোত্রের জুলুমকারীদের হাতে ক্ষমতা তুলে দেয়।

আজকে প্রকৃত স্বাধীনতা মুসলিম শাসক ছাড়া নিশ্চিত করা সম্ভব না!এটা বুঝেয় পর্দার আড়ালের মানবতা বিরোধী শক্তি আলেম-ওলামা, ইসলাম প্রচারকারী ও গণমাধ্যম কর্মী এবং গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করে জুলুম চালায়। আজকে সার্ভৌমত্ব বিরোধী সকল চক্রান্ত প্রতিহত করতে নতুন করে আধিপত্যবাদ, সাম্রাজ্যেবাদ,সম্প্রসারণবাদের চক্রন্তকারীদের প্রতিহত করতে ব্যার্থ হলে আমরা কাশ্মীর না ফিলিস্তিন জনগনের ভাগ্য বরন করবো তা চিন্তা করতে হবে। আজ পিকে হালদাররা জনগনের সম্পদ নিয়ে গায়েব হচ্ছে তাদের টিকে টাও ধরার ক্ষমতা আমাদের নাই।আজ যদি সম্পদ নিরাপদ আত্মসাৎ করার আইন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, অফিসিয়াল সিকিউরিটি এ্যাক্ট সহ কালাকানুন করা না হতো তাহলে জনগনের সম্পদ লুটে পলাতে পারতো না।তাদের আন্তর্জাতিক সংস্হার মাধ্যমে ধরে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করতে না পারায় জনগণের ধারনা আমাদের প্রকৃত স্বাধীনতার অন্তরায় ১৭৫৭ সালে এই দিনে যারা পরাধীনতার জিঞ্জির পরিয়েছে তারাই।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কপিরাইট © 2021 বাংলারচোখ.কম কর্তৃক সর্ব স্বত্ব ® সংরক্ষিত। Developed by eMythMakers.com