banglarchokh Logo

যশোরে পুস্তক ব্যবসায়িদের স্বস্তি

মালিকুজ্জামান কাকা, যশোর
বাংলার চোখ
 যশোরে পুস্তক ব্যবসায়িদের স্বস্তি

করোনা মহামারী কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ এড়াতে দীর্ঘ দুই বছর সময় ধরে বন্ধ ছিল দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ব্যতিক্রম ছিলনা যশোর। এতে চরম বিপাকে পড়েছিল যশোরসহ দেশের সকল পুস্তক ব্যবসায়ি। সব প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ায় সুদিন ফিরেছে যশোরের পুস্তক ব্যবসায়িদের। এরা এখন স্বস্তিতে।

করোনার মহা দূর্যোগে প্রত্যেক বই ব্যবসায়ির লাখ লাখ টাকা লোকসান হয়েছে। তবে এখন স্কুল-কলেজ খোলায় স্বস্তি ফিরেছ তাদের মধ্যে। একই সাথে ব্যবসার চাকা ঘুরতে শুরু করেছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রিক অন্যান্য ব্যবসায়িদের মাঝেও। অনেকদিন পর নিজেদের পেশায় ফিরতে পেরেছেন তারা। লাইব্রেরী খোলা পেয়ে ও বই কিনতে পেরে খুশি শিক্ষার্থী-অভিভাবকরাও।
জানা যায়, যশোর জেলায় সর্বমোট ২৬০টি বইয়ের দোকান বা লাইব্রেরী রয়েছে। এর মধ্যে শহরে রয়েছে ৪৫টি। ২০২০ মালের ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার পরই মূলত বই ব্যবসায় চরম ভাটা পড়ে। ওই বছরের এপ্রিলের শেষে লকডাউন শুরু হওয়ায় বন্ধ হয়ে যায় বইয়ের দোকান তথা লাইব্রেরি গুলো। মে মাসের শেষে কিছু দোকান খুললেও ক্রেতার অভাবে তা আবার বন্ধ হয়ে যায়।
করোনা কালীন যশোরের প্রত্যেক পুস্তক ব্যবসায়ির লোকশান গুণতে হয়েছে পাঁচ থেকে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত। এই দাবি প্রকাশক ও পুস্তক বিক্রেতা সমিতি যশোর জেলা শাখার নেতৃবৃন্দের। গত ১২ সেপ্টেম্বর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার পর বেচা কেনা শুরু হয়েছে। এ কারণে কিছুটা স্বস্তিতে রয়েছেন বই ব্যবসায়িরা।
বৃহস্পতিবার যশোর একাধিক বইয়ের দোকানে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন বয়সী শিক্ষার্থীরা বই কেনার জন্যে ভিড় করছে। জনতা লাইব্রেরি ও হাসান বুক ডিপোসহ কয়েকটি দোকানের কর্মচারীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা থাকায় বই বিক্রি তুলনা মূলক বেড়েছে। করোনাকালে ছাঁটাই হওয়া কর্মচারীদের দোকানে ফেরত নিয়ে আসা এখনো সম্ভব হয়নি বলে জানান তারা।
বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি যশোর শাখার সাধারণ সম্পাদক ও জনতা লাইব্রেরির স্বত্ত্বাধিকারী জাকির উদ্দীন দোলন বলেন, ৬০ বছরের চাঙ্গা বই ব্যবসায় মহামারী করোনা প্রথম তাদের ব্যবসার পুঁজি ভেঙে দিয়েছিল। অনেক লাইব্রেরী দোকান বন্ধ হয়ে যায়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ায় বেচাকেনা বাড়বে বলে ব্যবসায়িরা স্বস্তি পেতে শুরু করেছেন। তবে করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অনেকটা সময় প্রয়োজন বলে তিনি মতামত প্রকাশ করেন।

 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কপিরাইট © 2022 বাংলারচোখ.কম কর্তৃক সর্ব স্বত্ব ® সংরক্ষিত। Developed by eMythMakers.com